বুধবার, ১৫ জুলাই, ২০২০

দাউদকান্দিতে করোনা প্রতিরোধে ঘরমুখী লোকজন,রাস্তাঘাট ফাঁকা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ২৭, ২০২০
news-image

জাকির হোসেন হাজারীঃ

বুধবার সন্ধ্যা থেকে দাউদকান্দি উপজেলা সদরসহ বিভিন্ন হাট বাজারের ব্যবসায়ী, ছোট ছোট চায়ের দোকান বন্ধ রেখে মানুষ ঘরে ফিরতে শুরু করে। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে উপজেলা প্রশাসন, পৌর মেয়র এর সচেতনতামূলক মাইকিং এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর টহল গাড়ি রাস্তায়, বাজার ও মোড়ে মোড়ে ঘুরছে।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, বৃহস্পতিবার সকাল থেকে উপজেলার গৌরীপুর , ইলিয়টগঞ্জ, শহিদনগর ও পৌরসদর বাজারে ওষুধের দোকান আর কিছু নিত্যপ্রয়োজনীয় মালামালের দোকান ছাড়া সব প্রতিষ্ঠান বন্ধ। প্রতিদিনের জমে ওঠা বিভিন্ন মোড়ের বাজার এবং আড্ডা আজ নেই। দুই একটি চায়ের দোকান খোলা থাকলেও ভিড় নেই। রাস্তাঘাট ফাঁকা, তবে অতিপ্রয়োজনে এখনো কিছু মানুষ রাস্তায় আছেন।

দাউদকান্দি পৌর মেয়র নাইম ইউসুফ সেইন মাইকিং করে স্থানীয় বাসিন্দাদের সচেতন করছে। তারা সবাইকে ঘরে থাকা ও যারা সম্প্রতি বিদেশ থেকে দেশে এসেছেন তাদের ১৪ দিনের জন্য হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে অনুরোধ করেছেন।

দাউদকান্দি পৌরসদরের ব্যবসায়ী মোহাম্মদ আলী শাহীনসহ একাধিক ব্যবসায়ি বলেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সরকারের এই পদক্ষেপকে আমরা স্বাগত জানিয়ে দিন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখছি।

দাউদকান্দি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মেজর (অবঃ) মোহাম্মদ আলী সুমন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে এক স্ট্যাটাসে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে উপজেলাবাসীকে অত্যাবশ্যক কারণ ছাড়া ঘর ছেড়ে বের না হওয়ার অনুরোধ করেছেন।

সুন্দুলপুর ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদ আলম বলেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে এলাকার জনসাধারণকে সচেতন করতে কয়েকদিন ধরে মাইকিং, লিফলেট বিতরণসহ নানা প্রচারণা চালানো হয়। প্রয়োজন ছাড়া তেমন কেউ ঘরের বাইরে আসছেন না।
দাউদকান্দি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ কামরুল ইসলাম খান বলেন, চলমান করোনা ভাইরাস সংক্রমন প্রতিরোধে সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক বিভিন্ন প্রচার প্রচারণা চালিয়েছি। লিফলেট বিতরণ থেকে শুরু করে গণ বিজ্ঞপ্তি, মাইকিং করার পাশাপাশি ফেসবুকের মাধ্যমে জনগণকে সচেতন প্রচারণা অব্যাহত রয়েছে। দাউদকান্দিবাসী সরকারের আহŸানে সাড়া দিয়ে ঘরে ফিরতে শুরু করায় তাদের সাধুবাদ জানাচ্ছি।

তিনি বলেন, আজ বৃহস্পতিবার পর্যন্ত উপজেলায় তিনশ ৬১ জন কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে এবং এক’শ ৬০ জন কোয়ারেন্টাই থেকে সুস্থ্য হয়ে বের হয়েছে। আমরা সবাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঘরের ভেতরে থাকলে সবাই সুস্থ থাকতে পারব।

আর পড়তে পারেন