বৃহস্পতিবার, ২৪শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং

ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের অভ্যন্তরীণ কেনাকাটায় অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগে ৫ জনকে বদলি, বিলম্বিত হচ্ছে তদন্ত

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ৯, ২০১৯
news-image

ডেস্ক রিপোর্টঃ

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে অভ্যন্তরীণ কেনাকাটায় অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগে ৫ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীকে সেবা শাখা থেকে ইনহাউস বদলি করা হয়েছে।

তবে বদলি কোনো শাস্তি কিংবা সমাধান হতে পারে না- এমন মন্তব্য জানিয়ে মন্ত্রণালয়ের সাধারণ কর্মকর্তা-কর্মচারীরা জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন। সবার দাবি, ক্যাডার কর্মকর্তাদের ওএসডি করাসহ নেপথ্যের গডফাদারদের চিহ্নিত করতে হবে।

বিশেষ করে এ মন্ত্রণালয়ে দীর্ঘদিন থেকে যারা টিআর, কাবিখা ও কাবিটা দুর্নীতির সঙ্গে দাপটের সঙ্গে নিজেদের সম্পৃক্ত করেছেন তদন্তের মাধ্যমে তাদের শাস্তির মুখোমুখি করতে না পারলে প্রতিমন্ত্রী ও সিনিয়র সচিবের দুর্নীতিবিরোধী সব প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়ে যাবে।

তারা মনে করেন, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে বরাদ্দপত্র কেনাবেচার সঙ্গে দীর্ঘদিন থেকে শক্তিশালী যে চক্র সক্রিয় রয়েছে তাদের চিহ্নিত করা এখন সময়ের দাবি।

এদিকে সূত্র জানিয়েছে, ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের অভ্যন্তরীণ কেনাকাটায় ভয়াবহ অনিয়ম-দুর্নীতির বিষয়ে ইতিমধ্যে দুর্নীতি দমন কমিশন ও গোয়েন্দা সংস্থা ছায়াতদন্ত শুরু করেছে। এছাড়া এ সংক্রান্ত তথ্যপ্রমাণ সংগ্রহ করে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা এ মন্ত্রণালয়ে দুর্নীতির শেকড় অনুসন্ধানে কাজ করছেন।

প্রসঙ্গত, ‘ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে নজিরবিহীন দুর্নীতি-গায়েবি কেনাকাটায় চ্যাম্পিয়ন’ শিরোনামে ১ অক্টোবর দৈনিক পত্রিকায় তথ্যবহুল রিপোর্ট প্রকাশিত হয়। এ বিষয়ে তদন্ত করে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ড. মো. নজরুল আনোয়ারকে প্রধান করে ৩ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির অপর সদস্যরা হলেন অতিরিক্ত সচিব মো. মোয়াজ্জেম হোসেন ও উপসচিব আবুল খায়ের মো. মারুফ হাসান। কমিটিকে ৭ কার্যদিবস সময় দেয়া হলেও তারা এখনও রিপোর্ট দিতে পারেননি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে তদন্ত কমিটির প্রধান অতিরিক্ত সচিব নজরুল আনোয়ার মঙ্গলবার বলেন, ১৩ অক্টোবর দুর্যোগ প্রশমন দিবস। দিবসটি সফলভাবে উদযাপন করা নিয়ে তাদের এক সপ্তাহ যাবৎ ব্যস্ত সময় পার করতে হচ্ছে। এ কারণে তদন্ত কাজে তারা পর্যাপ্ত সময় দিতে পারছেন না। তিনি জানান, তদন্তের বিষয়ে ইতিমধ্যে কিছু কাজ তারা শেষ করেছেন। বাকি কাজ যথাযথভাবে সম্পন্ন করে যত দ্রুত সম্ভব রিপোর্ট জমা দেবেন।

সূত্র জানায়, ইতিমধ্যে সেবা শাখার যুগ্মসচিব আবুল বায়েজ মিয়াকে প্রশাসন শাখায়, পরিকল্পনা-১ শাখার সিনিয়র সহকারী প্রধান মো. মাজেদুর রহমানকে সেবা শাখার অতিরিক্ত দায়িত্ব থেকে প্রত্যাহার, প্রশাসনিক কর্মকর্তা শেখ এজাজুল কামালকে সংসদ ও সমন্বয় শাখায়, অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর সুরাইয়া পারভিনকে প্রশিক্ষণ শাখায় এবং ফেরদৌসকে এনডিআরসিতে বদলি করা হয়েছে।

তবে এই বদলিকে সে ফ আইওয়াশ বলে মন্তব্য করেছেন মন্ত্রণালয়ের অনেকে। তারা বলেন, সুপরিকল্পিতভাবে তদন্ত রিপোর্টকে বিলম্বিত করা হচ্ছে। মূলত যেসব শাখায় মালামাল সরবরাহ ছাড়াই ভুয়া বিল ভাউচার করে টাকা তুলে নেয়া হয়েছে এখন সেখানে মালামাল সরবরাহ করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে ২ অক্টোবর সিডিউল বিক্রির টাকা জমা নেয়া হয়েছে, যা আগে জমা দেয়া হয়নি।

সাবেক মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়ার বাসা থেকে টিভি, ফটোকপিয়ার মেশিন ও কম্পিউটার ফেরত আনার প্রক্রিয়া চলছে। যদিও এসব মালামালের অধিকাংশ দুর্নীতি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের বাসায় রয়েছে। তদন্ত কমিটি চাইলে এ বিষয়টি একেবারে হাতেনাতে প্রমাণ করতে পারে।

নির্ভরযোগ্য কয়েকটি সূত্র জানায়, মন্ত্রণালয়ের অডিট শাখায় কর্মরত ‘ন’ আদ্যাক্ষরের একজন কর্মকর্তার সম্পদের অনুসন্ধান হওয়া খুবই জরুরি। ওই কর্মকর্তা নামে-বেনামে ইতিমধ্যে বিপুল পরিমাণ সম্পদের মালিক হয়েছেন। এছাড়া তার সহযোগী হিসেবে অডিট শাখা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে আরও কয়েকজন কর্মকর্তা-কর্মচারী আছেন যারা শুধু অভ্যন্তরীণ কেনাকাটায় দুর্নীতি নয়, টিআর কাবিখার বরাদ্দপত্র বিক্রির কমিশন তুলে কোটি কোটি টাকার সম্পদ গড়েছেন। এদের চিহ্নিত করতে হলে বিগত অর্থবছরগুলোর প্রতিটি প্রকল্প ধরে বিশদ তদন্ত করতে হবে। এটি শুধু বর্তমান সরকারের সময়ে নয়, বিএনপি আমলেও এরা সক্রিয় ছিল। ওই সময়ও বরাদ্দপত্র জালজালিয়াতি ও নামসর্বস্ব প্রকল্প কেনাবেচা করে তারা মোটা অঙ্কের কমিশন হাতিয়ে নেন।

আসলে এদের কোনো দল নেই। ওই সময় বরাদ্দ সংশ্লিষ্ট শাখায় ১৯৮৪ ব্যাচের কর্মকর্তা সুলতান উল আলম চৌধুরী দায়িত্ব পালনকালে বড় ধরনের দুর্নীতি-জালিয়াতি চিহ্নিত করেন, যা যুগান্তরে গুরুত্বসহকারে প্রকাশিত হয়েছিল। তিনি সে সময় পদোন্নতিবঞ্চিত হয়ে সিনিয়র সহকারী সচিব পদে কর্মরত ছিলেন।

তার পোস্টিং ছিল মন্ত্রণালয়ের সংসদ ও সমন্বয় শাখায়। কিন্তু ত্রাণ শাখার কর্মকর্তা কিছুদিনের জন্য বিদেশ সফরে গেলে তিনি অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে দেখতে পান, এমপিদের ডিও লেটার জাল করে শত শত টন চাল তুলে নিয়েছে একটি চক্র। এ বিষয়ে যুগান্তরে রিপোর্ট প্রকাশিত হলে জড়িত দুর্নীতিবাজ চক্র ওই কর্মকর্তার ড্রয়ার ভেঙে সেসব আলামত চুরি করে নিয়ে যায়।

সুলতান চৌধুরী অতিরিক্ত সচিব হিসেবে কয়েক মাস আগে অবসরে গেছেন। সূত্র জানায়, এই চক্রের কয়েকজন চাকরি থেকে অবসরে ও মারা গেলেও তাদের উত্তরসূরি হিসেবে অন্যরা একই কাজ বহাল-তবিয়তে চালিয়ে যাচ্ছে।

নামসর্বস্ব ও ভুয়া প্রকল্পের বরাদ্দপত্র কেনার জন্য সারা দেশে শক্তিশালী একটি নেটওয়ার্ক আছে। এদের অনেকে ইউপি চেয়ারম্যান বা জনপ্রতিনিধি। টাকা ৫০ শতাংশ কমিশন দিয়ে বরাদ্দপত্র কিনে নিয়ে যায়। এদের নেতারা মন্ত্রণালয় ও মন্ত্রণালয়ের গডফাদারদের বাসাবাড়িতে ধরনা দেয়। প্রতি বছর এপ্রিল থেকে জুন মাস পর্যন্ত তারা ঢাকায় ভিড় করে।

সূত্রঃ যুগান্তর।

আর পড়তে পারেন