বৃহস্পতিবার, ২৪শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং

তিতাস ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের অভিযোগ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ৬, ২০১৯
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
কুমিল্লার তিতাস উপজেলার জিয়ারকান্দি ইউনয়িন পরিষদের চেয়ারম্যান হাজি আলী আশ্রাফ এর বিরুদ্ধে বিভিন্ন ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। রবিবার সকালে স্থানীয় সাংবাদিকদের নিকট তিনি এ অভিযোগ করেন।

জানা যায়, কয়েকদিন আগে ওই পরিষদের কয়েকজন সদস্য বিভিন্ন অনিয়মের কথা উল্লেখ করে জেলা প্রশাসকের নিকট লিখিত অভিযোগ করেন। হাজি আলী আশ্রাফ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর পরিষদের সদস্যদের সম্মানী ভাতা পরিশোধ না করা, নিয়মিত মাসিক সভা না করা, পরিষদেও ভবনে না বসে পাশের দাউদকান্দি উপজেলার গৌরীপুর বাজারস্থ নিজস্ব ব্যাবসা প্রতিষ্টানে বসে পরিষদের কার্যক্রম চালানো ওই অভিযোগ সূত্রে জানাযায়।

এসব অভিযোগ অস্বিকার করে চেয়ারম্যান হাজি আলী আশ্রাফ স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান, আমি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে আমার বিরুদ্ধে একের পর এক ষড়যন্ত্র করছে একটি মহল। এর আগেও মাননীয় জেলা প্রশাসকের নিকট আমার নামে মিথ্যা অভিযোগ করেছিলো। গত বছর   আমি হজ্বে   গেলে টেক্সের এক লাখ ২৭ হাজার টাকা তুলে ১নং ওয়ার্ডের সদস্য শাহ আলম মেম্বার ব্যাংকে জমা না দিয়ে নিজের কাছে রেখে দেয়। আমি এসে এ টাকা চাইলে আজ না কাল বলে সময় ক্ষেপন করে। পরে উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানালে তাঁর ভাতা বন্ধ করে দেয়্। এরপরই আমার নামে একের পর এক মিথ্যা অভিযোগ শুরু করে শাহ আলম। কয়েকদিন আগে হওয়া উপজেলা নির্বাচনের সময় নৌকা মার্কার প্রার্থীর কথা বলে সাদা কাগজে কয়েকজন সদস্যের স্বাক্ষর নেয়। পরে দেখি আমার নামে মিথ্যা অভিযোগ। আর আমি নির্বাচিত হওয়ার পর মাননীয় ডিসি স্যারের অনুমতির আবেদন করেই গৌরীপুর বাজারে অফিসের কাজকাম করি। এর আগের তিনজন চেয়ারম্যানই সন্ত্রাসীদের হাতে খুন হয়েছেন। কারন জীবনের চাইতে টাকা আর চেয়াম্যানি বেশী না।

ইউপি সদস্য শামীম, মিজানুর রহমান উজল জানান, আমরা অভিযোগে স্বাক্ষর করিনি, কৌশলে নৌকা মার্কার কি কাজে আমাদের থেকে স্বাক্ষর নিয়েছে শাহ আলম মেম্বার। যে কাগজে সই নিয়েছে সেটি পড়তেও দেয়নি।

শাহ আলম মেম্বার অভিযোগ অস্বিকার করে বলেন, সবায় অভিযোগ পড়েই স্বাক্ষর করেছে।
তিতাস উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে কয়েকবার ফোন করা হলে রিসিভ না করায় বক্তব্য নেয়া যায়নি।

আর পড়তে পারেন