বৃহস্পতিবার, ১৪ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

’তারা আমার কাপড় টেনে-হিঁচড়ে খুলে নিতেন, সব কিছু ভিডিও করতেন’

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ৬, ২০১৬

kanna
রিনার (ছদ্মনাম) গ্রাম ঢাকা থেকে দুই ঘণ্টা। চৌদ্দ বছর বয়সে স্কুল ছাড়েন তিনি। তার জবানিতে, ‘বাবার শরীর ভাল ছিলো না। আমি নিজেই আর স্কুলে যেতে চাইনি বরং কাজে যোগ দিতে চাই।’

২০১২ সালে শিক্ষার্থী ভিসায় একজন বাংলাদেশি তাকে মালয়েশিয়া নিয়ে আসেন। এরপর মালিক এবং তার স্ত্রীর হিংস্র নির্যাতনের শিকার হন রিনা। রিনা এক সময় নির্যাতন সহ্য করতে
দ্ধে মামলা লড়ছে মালয়েশিয়ায় অভিবাসী শ্রমিকদের নিয়ে কাজ করা বেসরকারি সংস্থা তেনেগানিতা।

মালয়েশিয়ায় কাজ করতে যাওয়া সেই বাসায় নির্যাতনের বর্ণনা দিয়ে রিনা ওই ভিডিওচিত্রে বলেন, ‘মালয়েশিয়ায় আমি কখনো পাসপোর্ট হাতে পাইনি। একবার একটি ব্যাগে দেখেছিলাম। মালিক বলেছিলেন, আমারে প্লেনের টিকিট থেকে শুরু করে সব খরচ তিনি দিয়েছেন। কাজ করে যে বেতন পাবো, সেখান থেকে কেটে রাখা হবে।’

তেনেগানিতার পরিচালক ও কনসালট্যান্ট (মানবপাচার) এইজেল ফার্নান্দেজ বলেন, অবশ্যই যার পাসপোর্ট তার কাছে থাকার কথা। কিন্তু নির্যাতনকারীরা তার পাসপোর্ট রেখে দিয়েছিলো।

মালয়েশিয়ায় ওই পরিবার সম্পর্কে রিনা বলেন, দুই সন্তানসহ তাদের ৪ জনের সংসার। তাদের দেখে বেশ সুখী পরিবার মনে হয়েছিল। পুরুষ মালিক ছিলেন আমার মতোই বাংলাদেশি, তিনি একজন মালয় নারীকে বিয়ে করেছিলেন।’

নির্যাতনের শুরু থেকে হৃদয় বিদারক ঘটনার বর্ণনা দেন রিনা। তিনি বলেন, ‘একদিন রাতে ছোট শিশুটির ডায়াপার আমি দুবার পরিবর্তন করে দেই। এরপর থেকে নির্যাতনের শুরু হয়। পরিবারের কর্তা আমায় শক্ত করে ধরেন। তার স্ত্রী আমার প্যান্ট খুলে নেন এবং আমার যোনিপথে গরম পানি ঢেলে দেন।’

এ ধরনের নির্যাতনেও থামেনি তারা। রিনার বর্ণনায়, ‘তারা আমার কাপড় টেনে-হিঁচড়ে খুলে নিতেন, ছবি তুলতেন এবং ভিডিও করতেন। বলতেন, তাদের কথামতো না চললে, এসব ছবি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়া হবে। আমার বাবা-মা ও গ্রামবাসী লজ্জায় মুখ দেখাতে পারবে না।’

নির্যাতনের বর্ণনায় তিনি বলেন, ‘তারা ২ থেকে ৩ বার আমার পুরো শরীরে মরিচের গুড়ো মাখিয়ে দিয়েছিল। এমনকি যোনিপথে ঘষে দিতো। আবার কোন সময় আমাকে মরিচের গুঁড়া খেতে বলা হতো। খেতে না চাইলে মারধর করতো। উপায় না দেখে খাওয়ার পরে অনেক সময় বমি হতো। তখন তারা আমাকে নিজের বমি খেতে বাধ্য করতো।’

রিনা বলেন, ‘আমার মুখ বেঁধে বিছানায় ফেলে দেয়া হতো। পুরুষটি আমার বুকের ওপর বসে পা দুটো উপরে তুলে ধরতো। তার স্ত্রী আমার যোনিপথে একটি লাঠি ঢোকাতো এবং বের করতো।’

তেনেগানিতার প্রোগ্রাম ম্যানেজার লিভা শ্রোধারান বলেন, বাঁশের কঞ্চি ঢোকানো এবং বের করার ফলে তার যোনিপথ ছিড়ে যায়।’

রিনা বলেন, ‘আমার প্রস্রাবের রাস্তা এবং পায়ুপথ এক হয়ে যায়। আমি ওই বাসা থেকে পালিয়ে বের হতে পারতাম না। সকালে উঠে দেখলাম পুরো বিছানা রক্তে ভেসে আছে। তারা আমাকে সবকিছু পরিষ্কার করতে বলে এবং আমার শরীর ও রক্তও ধুতে বলে।’

এইজেল বলেন, মূল জায়গাটাই ছিল পাসপোর্ট। তারা রিনাকে এই বলে ভয় দেখাতো, ‘তোমার পাসপোর্ট নেই। ফলে বাসা থেকে বের হলেই তোমাকে ইমিগ্রেশন বা পুলিশ ধরবে। এরপর ডিটেনশন ক্যাম্পে পাঠানো হবে। সেখানে আরো বেশি নির্যাতনের শিকার হবে।’

রিনা বলেন, ‘আমার শরীর থেকে এতো বেশি রক্ত বের হতো যে আমাকে ডায়াপার পরে থাকতে হতো।

আর পড়তে পারেন