রবিবার, ১২ই জুলাই, ২০২০ ইং

ডিএমসিবি’র সহায়তায় কুমিল্লার শাহাবুদ্দিন এখন সফল ব্যবসায়ি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ২৬, ২০২০
news-image

স্টাফ রিপোর্টারঃ
অর্থের অভাবে আগ্রহ থাকা সত্ত্বেও মাধ্যমিক শিক্ষার গন্ডি পেরোতে না পারা ক্ষুদ্র ব্যবসায়ি শাহাবউদ্দিন কিভাবে ডিএমসিবি’র সহায়তায় সফল ব্যবসায়ি হলেন , কিভাবে তার দিন বদল হয়ে গেল তার সেই সফলতার কাহিনী আজকের কুমিল্লার পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হল।

কুমিল্লা জেলার নাঙ্গলকোট উপজেলার মৃত. ইউনুছ মিয়ার ছেলে মোঃ শাহাবুদ্দিন জানান, বর্তমানে বেশ কয়েক বছর যাবত কুমিল্লা মহানগরীর সদর দক্ষিণ উপজেলার জাঙ্গালিয়া বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন এলাকায় বসবাস করছি। বর্তমানে আমি একজন সফল ব্যবসায়ি। কিন্তু অতীতটা অনেক কঠিন ও কষ্টের ছিল । প্রতি পদে পদে সমস্যায় জর্জরিত ছিল আমার জীবন। প্রতিটা মুহূর্ত জীবন সংগ্রাম করতে হয়েছে। বার বার হতাশ হয়েছি। নিরাশায় চারদিকে আলোর পথ খুঁজে ফিরেছি। কষ্টের দিনগুলির কথা যখন মনে হয় তখন চমকে উঠি বার বার। অনেক কষ্টের সময়গুলো অতিবাহিত করে ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংকের সহায়তায় এখন আমি সফল ব্যবসায়ি। মনের আশাগুলো পূরণে ধাপে ধাপে এগিয়ে যাচ্ছি।

ছোটবেলা থেকে পড়ালেখার প্রতি আমার অনেক আগ্রহ ছিল। ইচ্ছে ছিল অনেক পড়ালেখা করে উচ্চ শিক্ষিত হবো। কিন্তু আর্থিক অনটনে তা আর সম্ভব হয়নি। জীবনে প্রথম ধাক্কাটা আসে যখন আমার বয়স মাত্র ১৩ বছর। সালটা ছিল ১৯৮৩ । ওই সময়ে অল্প বয়সে কোন কিছু বোঝার আগেই বাবাকে হারালাম। ৫ ভাই-বোনকে নিয়ে বেকায়দায় পড়ে গেলাম আমরা। আর্থিক অনটনে পড়ালেখাটা বন্ধ হয়ে গেল। দুচোখে অন্ধকার দেখতে পেলাম।

জেলার চৌদ্দগ্রাম উপজেলায় আমাদের একটা দোকান ছিল। বড় ভাই সেই দোকানের দায়িত্ব নিল। সাথে রাখলেন উনার এক বন্ধুকে ম্যানেজার হিসেবে। আস্থা রাখলাম ভাইয়ের উপর। আশায় আবার বুক বাধঁলাম ব্যবসায় উন্নতি হলে নতুন ব্যবসা শুরু করবো। কয়েকদিনের মধ্যে সেই স্বপ্নটিও ধুলিসাৎ হয়ে গেল। ভাই আর ম্যানেজার মিলে দোকানটি বিক্রি করে দিল। আমরা কোন টাকা পেলাম না। কয়েক মাস পরে ৮০ হাজার টাকা জোগাড় করলাম। পরের বছর ১৯৮৪ সালে ৭টা মেশিন কিনে রাইস মিল স্থাপন করলাম। শুরু হলো আমার ব্যবসা। কিছুটা চিন্তা দূর হলো। সারা দিনরাত রাইসমিলে আসা যাওয়া করতাম। ইচ্ছে ছিল ব্যবসাটা আরো প্রসারিত করা। পরিবারের সবার অভাব অনটন দূর করা। সবার মুখে হাসি ফুটানোই ছিল আমার লক্ষ্য ।

মাসখানেক পর আমার জীবনে আরেকটি দূঘর্টনা হলো। এবার সেটি শারিরীক আঘাত, মানে অঙ্গহানি। একদিন ভোররাতে রাইসমিলের কাজ দেখতে গেলাম। মেশিনে কাজ দেখতে দেখতে নিজের অজান্তেই বাম হাতের একটু আঙ্গুলের অর্ধেক অংশ মেশিনে ঢুকে গেল। মনে হলো যেন প্রাণটা চলে গেল। রক্তে মেশিন ভরে গেল। আমাকে শ্রমিকরা হাসপাতালে নিয়ে গেল। আঙ্গুলের অর্ধেক হারালাম। সেই সাথে আত্মবিশ্বাসটাও আবার হারালাম। কোন রকমে চলতে লাগলো ব্যবসা। এর মধ্যে ১৯৮৮ সালে বিয়ে করলাম।

১৯৯২ সালে ছোট ভাইকে মালেশিয়াতে পাঠালাম। দেখি এবার কপালে কি আছে ? পারিবারিক আর্থিক অনটন দূর হবে কি ? এসব চিন্তা সব সময় মাথায় ঘুরতো। শোনতাম পরিবারের কেউ বিদেশে গেলে জীবনের মোড় ঘুরে যায়। বিদেশের টাকায় স্বচ্ছলতা আসে। যাহোক কোনরকমে চলছিল জীবনকাল। দুই বছর পর ১৯৯৪ সালে আমি এবার বিদেশ যাওয়া সিদ্ধান্ত নিলাম। চলে গেলাম মালেশিয়াতে। কিন্তু কষ্ট যেন পিছু ছাড়ে না। মালেশিয়ার যেই ফ্যাক্টরিতে গেলাম সেখানকার মালিক জুড়ে দিল এক কঠিন শর্ত। মালিক বললো – তুমি তোমার দেশ থেকে আরো ৩০ জন শ্রমিক এনে দিবে। প্রতি শ্রমিককে ৬০ হাজার টাকা করে দিতে হবে। কয়েক বছরে মালিকের সেই শর্ত পূরণ করলাম। কঠিন নিয়ম মেনেই কাজ করে গেলাম। কিছু কিছু করে টাকা জমা করলাম। প্রবাসে থাকাটা কত কষ্টের, তখন হাড়ে হাড়ে টের পেলাম। আত্মীয়-স্বজনকে ফেলে দূরে থাকাটা অনেক কঠিন বিষয়। তখন তো ফোনালাপ অত সহজ ছিল না। পরিবারজনের জন্য মনটা কাদঁতো। তারপরও আর্থিক বিবেচনায় রোবটের মত কাজ করে যেতাম।

অবশেষে ৬ বছর প্রবাস জীবন কাটিয়ে ২০০০ সালে দেশে ফিরে আসলাম। প্রিয় মাতৃভূমিতে নেমে দেশের মাটির স্বাদটা অনুভব করলাম। আত্মীয়-স্বজন,পাড়াপড়শির সাথে দেখা করলাম। আস্তে আস্তে প্রবাসের কিছু টাকা খরচ হয়ে গেল।

ওই বছরই শহরে এসে নতুন ব্যবসা শুরু করা চিন্তা করলাম। যেই চিন্তে সেই অনুযায়ী কাজ। চলে এলাম শহরে। বাসা ভাড়া নিলাম মহানগরীর জাঙ্গালিয়া এলাকায়। শুরু করলাম পোল্ট্রি ব্যবসা। একটি দোকান ভাড়া নিয়ে সাইফুল পোল্ট্রি খামারের সাথে ব্যবসা শুরু করলাম ক্ষুদ্র আকারে। ছোটখাট ব্যবসা চলতে লাগলো বেশ কয়েক বছর যাবত। বিনিয়োগ কম ছিল, তাই ব্যবসাটাও সম্প্রসারণ করতে পারছিলাম না। কোন রকমে সংসারটা চলছিল। কিন্তু এভাবে তো জীবন চলে না। এরই মধ্যে সংসারে দুই ছেলে আর এক মেয়ে রয়েছে। তাদের পড়ালেখার খরচ চালাতে হিমশিম খাচ্ছিলাম। একজনের পরামর্শে ২০১৩ সালে একটি এনজিওর কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা ঋণ নিলাম। কিন্তু ওই এনজিওর কর্মকর্তাদের আচরণ ভাল লাগেনি। তাই কয়েক মাস পর তাদের সাথে লেনদেন শেষ করে দিলাম। খোঁজতে লাগলাম নতুন কিছু, যা দিয়ে আমার ব্যবসাটা নতুন করে সম্প্রসারণ করা যায়।

২০১৬ সালে ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংকের কুমিল্লার (চকবাজার) শাখার জনাব রাজীব নামের একজনের মাধ্যমে ওই ব্যাংক থেকে ১ লাখ টাকা ঋণ নিলাম। এই টাকা দিয়ে শুরু করলাম ইসলামিয়া পোল্ট্রি ব্যবসা। মোড় ফিরলো আমার জীবনের। ব্যাংক কর্মকর্তাদের আন্তরিকতা ও সৌজন্যবোধ আমার ব্যবসায় অনুপ্রেরণা দিল। তারা সব সময় সময়মত এসে কিস্তি নিয়ে যেত। আমারও ব্যবসাটা ভাল চলা শুরু করলো। ৮ মাসের মধ্যে ঋণ শোধ করে ফেললাম। ওই বছরের শেষের দিকে এবার ব্যাংক কর্মকর্তারা আমাকে ২ লাখ টাকা ঋণ দিল। ব্যবসা আরো সম্প্রসারিত হলো। মুরগী বিক্রির সাথে সাথে এবার মুরগীর খাদ্যও বিক্রি শুরু করলাম। দোকানে কর্মচারিও নিয়োগ করলাম ২ জন। তাদেরকে ১৪ হাজার টাকা বেতন দেওয়া শুরু করলাম। এই ঋণও ৮ মাসের মধ্যে শোধ করে দিলাম। আমার বড় ছেলে সালাউদ্দিনকে ঢাকার ড্যাফোডিলস ইউনিভার্সিটিতে কম্পিউটার সাইন্স বিষয়ে ভর্তি করিয়ে দিলাম। আমি যা করতে পারিনি, তা সন্তানদের দিয়ে পূরণ করতে শুরু করলাম। আমার অধোরা স্বপ্ন আবার পূরণ হওয়ার পথে এগুতো লাগলো। নিজে আর্থিক অনটনের কারণে পড়ালেখা করতে পারিনি। নিজে এখন ব্যবসা করে সন্তানদের উচ্চশিক্ষায় বড় মানুষ করার পথে এগিয়ে যাচ্ছি।

২০১৭ সালে ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক থেকে ৩ লাখ টাকা ঋণ নিলাম। বিনিয়োগ করলাম ব্যবসাতে। ২০১৮ সালে এই ব্যাংক থেকে চতুর্থবারের মত ঋণ নিলাম। এবারও ৩ লাখ টাকা নিলাম। এবার মুদি ব্যবসাও সংযুক্ত করলাম। অনেক রকমের নিত্যপণ্য দোকানে তুললাম। আরো প্রত্যাশা বেড়ে গেল। ভালই ব্যবসা চলছে। পদুয়ার বাজারের রসনা স্বাদ, রাজগঞ্জ এলাকার ছমির হোটেল ও টমছমব্রিজ এলাকার আরব হোটেলে মাল সরবরাহ করা শুরু করলাম। ব্যবসা অনেক প্রসারিত হল। প্রতিদিন লাখ লাখ টাকার মাল বিক্রি শুরু করলাম। সেই সাথে ছোট ছেলে আলাউদ্দিনকে কোরআনে হাফেজে ভর্তি করিয়ে দিলাম। ইহকালের সাথে সাথে পরকালের জন্যও কাজ করতে লাগলাম। আর আল্লাহর শোকরিয়া আদায় করতে লাগলাম। সময়মত ব্যাংকের ঋণ শোধ করলাম।

২০১৯ সালের শেষের দিকে আবার ৩ লাখ টাকা ঋণ নিলাম। এই বছরটি আমার জীবনে দুটি সফলতার পালক যোগ করলো। দুইটি স্বপ্ন পূরণ হলো। প্রথমটি হলো আমার বড় ছেলে সালাউদ্দিন ঢাকার ড্যাফোডিলস ইউনিভার্সিটি থেকে কম্পিউটার সাইন্স বিষয়ে পাশ করে বের হয়ে বাংলাদেশের জাপানের জাইকা প্রজেক্টে কাজ করে জাপান যাওয়ার সুযোগ পেল। বিমান ভাড়া ৫৫ হাজার টাকা দিয়ে বড় ছেলেকে জাপানে পাঠালাম। একই বছর ছোট ছেলে আলাউদ্দিনকে ৩ লাখ টাকা দিয়ে সৌদি আরবে পাঠালাম । আমার কষ্টের দিনগুলোর সমাপ্তি হয়েছে।

আমার ব্যবসা এখন প্রসারিত হয়েছে। দুই ছেলেকে পড়ালেখা করিয়ে বিদেশে পাঠালাম। মেয়েকে পড়ালেখা করিয়ে এক ব্যাংক কর্মকর্তার সাথে বিয়ে দিলাম। বেশ সুখে আছে মেয়ে আমার। এখন আর আমি আর্থিক অনটনে নেই। ছেলেমেয়েদের একটা ভাল অবস্থানে নিয়ে গেছি। আল্লাহর কাছে শোকরিয়া জানাই আমি অতীতের বিপদ, সংকটাপন্ন জীবন কাটিয়ে এখন আমি স্বাবলম্বী। সেই সাথে ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংকের কাছে আমি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। তাদের আন্তরিকতা সহযোগিতা পেয়েছি। এখনো তাদের সাথে আমার লেনদেন চলমান রয়েছে। সবচেয়ে উল্লেখ্য করার মত বিষয় হলো-এই ব্যাংকের সবাই অনেক বেশি আন্তরিক । তারা গত ৫ বছর ধরে আমাকে সহযোগিতা করে যাচ্ছে। আমার জীবনও মিরাকলের মত পরিবর্তন হয়ে গেছে। ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে সময়মত পরিশোধ করেছি। একটা বিষয় হলো-তারা আমাকে কখনো হয়রানি করেনি। যখনই ঋণের প্রয়োজন হতো, তাদেরকে বলার সাথে সাথে তারা তড়িৎ গতিতে তা ব্যবস্থা করে দিত। আসলে আমরা গ্রাহকরা এটাই চাই। ব্যাংক কর্মকর্তাদের কাছ থেকে এমন ব্যবহারই সবাই আশা করে । ব্যাংকে গেলে কখনো আমাকে বসিয়ে রাখেনি। আমার মেয়ের জামাতার ব্যাংকের কর্মকর্তা আমাকে বেশ কয়েক বার বলেছে-আপনি এই ব্যাংক থেকে ঋণ নেন । ব্যবসা করেন। কিন্তু আমি তা করিনি। আমার ভরসার জায়গাজুড়ে আছে ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক।

আমি এখন ১৫ হাজার টাকা বাসা ভাড়া দেই। দোকানের দুই কর্মচারিকে ১৪ হাজার টাকা এবং দোকানের ভাড়া ২০ হাজার টাকা দেই। মার্কেটে আমার পাওনা রয়েছে ২০ লাখ টাকা। আমার ছেলেরা বলে-বাবা আমরা টাকা পাঠামো , তুমি ব্যবসা করো। আমি তাদের বলে দিয়েছি, তোমাদের টাকা পাঠানো লাগবে না। আমি নিজ টাকায় ব্যবসা করতে পারবো। আমার ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক রয়েছে। যে ব্যাংক এর সহায়তায় আমার জীবনের মোড় দ্রুত পরিবর্তন হয়েছে। তাদের সাথে সহজে লেনদেন করতে পারছি। আমার তো সন্তানের টাকার প্রয়োজন নেই। আমাকে অনেকে বলে অন্য ব্যাংক থেকে ঋণ নিতে। আমি তাদেরকে বলেছি, আমি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংক এর সাথে কাজ করে তৃপ্তি পেয়েছি। কোন হয়রানি নেই, তারা অনেক সহযোগিতা করে। তোমরাও এই ব্যাংকের সাথে লেনদেন করে দেখো।

ছোটকাল থেকে কষ্ট-আর্থিক অনটনে বড় হয়েছি। এখন অনেক সংগ্রাম করে ব্যবসায় সফলতার মুখ দেখেছি। এখন আমার লক্ষ্য যারা ব্যবসায় সফল হতে চান তাদের সহযোগিতা করা। কিভাবে ব্যাংক ঋণ নিয়ে সঠিকমত ব্যবসা করে ব্যবসার সম্প্রসারণ করা যায়, সবাইকে এ বিষয়ে বলতে চাই। এলাকার অসহায় মানুষের পাশে দাড়াঁতে চাই, তাদেরকে আমার মত সাবলম্বী দেখতে চাই। আশা করি আমি এ পথেও সফল হবো।

আর পড়তে পারেন