সোমবার, ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

জৌলুস-উৎসব-ঔজ্জ্বল্যে বৈশাখী মেলা || গ্রামীণ ও শহুরে সংস্কৃতির সেতুবন্ধন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ১৫, ২০১৮
news-image

জাহাঙ্গীর আলম ইমরুল ঃ
শহরের বাসিন্দারা পহেলা বৈশাখে যেভাবে মেতে ওঠেন উৎসব পালনে, গ্রামের লোকজন কাছে বিষয়টি সেভাবে উৎসবের নয়। বিশেষ করে শিশু-কিশোররাই কিছুটা আনন্দ করে থাকে, মেলায় গিয়ে কিংবা নতুন পোশাক পড়ে। আর বেশিরভাগ ক্ষেত্রে বড়োরা মেলায় যান শিশুদের বায়না মেটাতে, নাহয় পরিবারে তৈজসপত্র, হাল-চাষের লাঙল-জোয়াল-মই এজাতীয় কৃষি উপকরণ বা অন্যান্য সামগ্রি কিনতে। আর খেটে খাওয়া পরিবারের কাছে আগে কাজ, তার পার অন্য কিছু। তাদের কাছে পহেলা বৈশাখ মানেই হলো ”সনের পইলা” তারা এদিনটিতে তিতা শাক-শুটকি-পান্তা ভাত খেয়ে সাত সকালে কাজে নামেন আর কণ্ঠে সুর তুলে ‘আমি বাংলার গান গাই’। এটিই বাঙালীর সত্যিকারের পহেলা বৈশাখের ছবি। যা আমাদের আবহমান কালের ঐতিহ্য।

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার ছোট্ট একটি জনপদের নাম রাজাবাড়ী। যেখানে আমার কয়েক পুরুষের বসবাস। রাজাবাড়ির পাশের প্রাচীণ এক জনপদের নাম বলিঘর। সিএস রেকর্ড অনুযায়ী গ্রামটির নাম বৈলঘর। বৈলঘর একটি মৌজার নাম। বহু কাল আগে থেকেই খাজনা আদায়ের স্বার্থে বৈলঘরে কাচারী ছিলো। কাচারী প্রঙ্গণে প্রতিদিন ভোরে বাজার জমে। এ ধরনের বাজারকে বলা হয় আঢ়ং। সেই সাথে প্রতিবছর কাচারীর মেলা’ নামে এখানে গ্রামীণ মেলা বাসে পহেলা বৈশাখে। বাংলা সনের এই প্রথম দিন পহেলা বৈশাখকে স্থানীয় ভাষায় বলা হয় সনের পইলা।

সনের পইলা:
সনের পইলায় বাড়ির কাছে বৈলঘরের কাচারীর মেলার কথা ছেলেবেলা থেকেই শুনে আসলেও, এই মেলায় যাওয়া হয়নি এর আগে কখনো। অবশেষে বৈলঘরের কাচারির মেলায় যাবার  ইচ্ছেটা এবার পুরন হলো, মেয়ে ছামিয়া জাহান আর ছেলে ছামিউম মুবিন এর বায়নাতে। ওদের জীবনে প্রথম মেলা যাওয়া এটি।
বৈলঘর কাচারি প্রাঙ্গণের মেলার ইতিহাস বেস প্রাচীন। প্রতিবছর সরকারি ক্যালেন্ডার অনুযায়ী বসে এ মেলা। কিন্তু পরদিন পাশের পীরকাশিমপুর গ্রামের পাঁচ পীরের মাজারের চারপশ ঘিরে বসে গ্রামীণ মেলা, যা পাঁচ পীরের মেলা নামে পরিচিত এবং নবীনগরের ভোলাচং মেলাও বেশ প্রাচীন। এসব মেলা বেশ জমজমাট। তাই ছেলেবেলা থেকেই ভোলাচংয়ের জমজমাট বৈশাখী মেলার অপেক্ষায় থাকতাম।

বৈশাখী মেলা :
পহেলা বৈশাখ তথা বাংলা নববর্ষ। দিনটি বিশেষ উৎসবের সাথে পালন করে থাকে বাংলাদেশের মানুষ। এ উৎসবের নাম বৈশাখী মেলা। এটি বাঙালিদের একটি সর্বজনীন লোকউৎসব। বাংলা একাডেমী কর্তৃক নির্ধারিত আধুনিক পঞ্জিকা অনুসারে প্রতি বছর বাংলা সনের বৈশাখ মাসের ১ তারিখ আর ইংরেজী ১৪ই এপ্রিল, নির্দিষ্ট এই দিনটিতে এই উৎসব পালিত হয়।
মেলা যে কেবল নির্দিষ্ট দিনেই বা ‘বৈশাখী মেলা’ নামেই হয় এমনটি নয়। কোথাও পহেলা বৈশাখে ‘সনের পইলা’, ‘বর্ষবরণ মেলা’, ‘নববর্ষ মেলা’ আবার কোথাও ‘বান্নি মেলা’ প্রভৃতি নামে এ মেলা অনুষ্ঠিত হয়ে আবার কোথাও হয় ২য় বৈশাখ থেকে।
মূলতঃ পহেলা বৈশাখকে কেন্দ্র করে মেলা শুরু হলেও ঘুরেফিরে মেলা চলে মাসজুড়ে।

ইতিহাস:
সম্রাট আকবরের দরবার থেকে বাংলা সনের উদ্ভব ঘটে ষোড়শ শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে। তবে, হিন্দু সৌর পঞ্জিকা অনুসারে বাংলা বার মাস অনেক কাল আগে থেকেই পালিত হতো।
নতুন বছরের উৎসবের সঙ্গে গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর কৃষ্টি ও সংস্কৃতির নিবিড় সম্পর্ক। আবহমান কাল থেকেই মূলতঃ দু-তিনটি গ্রামের সীমান্তবর্তী কোন গুরুত্বপূর্ণ স্থান, নদীর ধারে, বিশাল বটতলায় এসব বৈশাখী মেলার আয়োজন করা হয়।
মেলায় হরেক রকম পণ্যের পসরা সাজিয়ে বসেন দোকানিরা। থাকে কাঁচের চুড়ি, রঙ-বেরঙের ফিতা, তাঁতের শাড়ি, নকশা করা হাতপাখা, কামার ও কুমোরের দোকান, মুড়ি-মুড়কি-খই, সন্দেশ, বাতাসা, মিষ্টি, মাটির তৈরি খেলনা, গুলতি, ঘুড়ি, নাটাই, পোড়া মাটির অলংকার, তৈজসপত্র, বেলুন, বাঁশি, ফলমূল ইত্যাদি।
অর্থাৎ নানা রকম কুটির শিল্পজাত সামগ্রী, খেলনা, মাটির তৈজসপত্র, কাপড়, কাঠের আসবাবপত্র ইত্যাদি।
এক সময় মেলায় রঙিন চুড়ি, মাটির পুতুল ছিলো গ্রামীণ মেয়ে শিশুদের কাছে এক বড় আকর্ষণ। যদিও আজকাল শিশুদের নজর এসবে তেমন নেই।
মেলাতে খাবার সামগ্রীর মধ্যে থাকে নানারকম পিঠা পুলি, বাতাসা-খই, হাওয়াই মিঠাই প্রভৃতি। অনেক স্থানে পান্তা-ইলিশেরও ব্যবস্থা থাকে। হাল-চাষের লাঙল-জোয়াল-মইসহ সব ধরেনর কৃষি উপকরণও মিলে মেলায়।
আর বিনোদন হিসেবে থাকে লাঠিখেলা, পুতুল নাচ, বায়োস্কোপ, নাগরদোলা ও সার্কাস, যাত্রা, পালাগানসহ বিভিন্ন বিনোদনের ব্যবস্থা। সাথে কোন কোন অঞ্চলে নৌকা বাইচ, কুস্তি খেলা ষাড়ের লড়াই ইত্যাদি’র কথা তো বলাই হয়নি। কোথাও কোথাও বসে জুয়ার আসরও!

বউমেলা:
পহেলা বৈশাখের আরেক আকর্ষণ বউমেলা। ঈশা খাঁ’র রাজধানী সোনারগাঁওয়ে ব্যতিক্রমী এক মেলা বসে, যার নাম বউমেলা, এটি স্থানীয়ভাবে “বটতলার মেলা” নামেও পরিচিত। শতবছর ধরে পহেলা বৈশাখে শুরু হয় বউমেলা। চলে পাঁচ দিনব্যাপী। আছে ঘোড়া মেলাও। সোনারগাঁও এলাকাতেই সনাতনধর্মীদের ব্যতিক্রমী এ মেলা প্রচলন শুরু হয়।
রাজধানীর বৈশাখী মেলা:
রাজধানীর বৈশাখী মেলার মধ্যে রমনার বটমূলকে কেন্দ্র করে শাহবাগ, সোহওয়ার্দী উদ্যান, দোয়েল চত্বর, টিএসসি এলাকায় হয়েওঠে জমজমাট। এর বাইরে ঢাকার নিকটবর্তী সোলারটেক মেলা, ভাগ্যকুল মেলা, শুভাঢ্যার বৈশাখী মেলা, শ্যামসিদ্ধি মেলা, টঙ্গীর স্নানকাটা মেলা, মিরপুর দিগাঁও মেলা, রাজনগর মেলা ও কুকুটিয়া মেলা উল্লেখযোগ্য।

মঙ্গল শোভাযাত্রা:
ঢাকাসহ নগর কেন্দ্রিক বৈশাখী উৎসবের একটি অঙ্গ মঙ্গল শোভাযাত্রা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউটের উদ্যোগে পহেলা বৈশাখের সকালে এই শোভাযাত্রাটি বের হয়ে শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। যতোদূর জানা যায় ১৯৮৯ সাল থেকে এই মঙ্গল শোভাযাত্রা পহেলা বৈশাখ উৎসবের একটি অন্যতম আকর্ষণ হিসেবে পালিত হয়ে আসছে। অবশ্য এটি এখন দেশের অনেকস্থানেই করে থাকে।

আদিবাসীদের বর্ষবরণ:
এদিকে পাহাড়ি জনগোষ্ঠী এলাকার প্রধান তিনটি ক্ষুদ্র জাতিসত্তার প্রত্যেকেরই বছরের নতুন দিনে উৎসব আছে। ত্রিপুরাদের বৈশুখ, মারমাদের সাংগ্রাই ও চাকমাদের বিজু উৎসব। বর্তমানে তিনটি জাতিসত্তা একত্রে এই উৎসবটি পালন করে। যৌথ এই উৎসবের নাম বৈসাবি উৎসব। এই উৎসবের নানা দিক রয়েছে, এর মধ্যে একটি হলো উৎসব। যা মুলত মারমাদের উৎসব ছিলো।

মেলা ও অর্থনীতি এবং রাষ্ট্রের করণীয়:
পহেলা বৈশাখ যে শুধুই মেলা তা ই নয়, বাঙালী চেতনার অনেক কিছুই উপস্থিত থাকে এখানে। শুধু নতুন কিছু কেনার আন্দই নয়। বেঁচার আনন্দও জড়িয়ে আছে এ মেলাকে কেন্দ্র করে। আছে জীবন জীবিকার প্রশ্ন। এর সঙ্গে তাদের জীবন ও জীবিকার নিবিড় সম্পর্ক বিদ্যমান। মৃৎ ও কুটির শিল্পের সঙ্গে জড়িত মানুষদের জন্যও এ মেলা যেন আশির্বাদ। তাদের হাতের তৈরি তৈজসপত্র বিক্রির বড় ক্ষেত্র এই বৈশাখী মেলা। বৈশাখী মেলার মধ্যদিয়ে কামার, কুমোর, তাঁতি, ছুতার প্রভৃতি হস্ত ও কুটির শিল্পীরা অর্থনৈতিক আলোর মুখ দেখে।
এদিকে ব্যাবসায়ীরা বৈশাখকে কেন্দ্র করে হাল খাতা খুলেন। ব্যাবসায়ীদের কাছে পহেলা বৈশাখের গুরুত্বপূর্ণ আয়োজন এ হালখাতা। ফলে শুধু ঐতিহ্যের নয়, গ্রামীণ অর্থনীতিও জড়িয়ে আছে এখানে।

রাষ্ট্রীয় উন্নয়ন পরিকল্পনার মধ্য দিয়ে পহেলা বৈশাখের এ উৎসবকে দেশের অর্থনীতিতেও যুক্ত করা সম্ভব। যেমনটি পাশের দেশ ভারতে দেওয়ালি উৎসব দেখার জন্য ইউরোপ-আমেরিকাসহ পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চল থেকে থেকে প্রতি বছরই হাজার হাজার পর্যটক ভারতে ছুটে আসেন। এতে বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা এনে দেয়। যেটি তাদের অর্থনীতির অন্যান্য ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। বৈশাখী মেলাকেও আমরা এভাবে পর্যটক আকৃষ্ট করতে পারলে তা দেশের জন্য খ্যাতি ও উপার্জন দুই-ই বয়ে আনবে।
শুধুমাত্র উত্তরাধিকারসূত্রে প্রাপ্ত হয়ে, কোন ধরনের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা বা প্রশিক্ষণ এবং রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতা ছাড়াই বাংলাদেশের আনাচে-কানাচে লাখ লাখ হস্ত ও কারুশিল্পী কাজ করে যাচ্ছেন, যারা বস্তুত তৃণমূল পর্যায়ের মানুষ। এদেশের হস্ত ও কারুশিল্পের মতো ঐতিহ্যবাহী এ শিল্পকে বিলুপ্তির হাত থেকে রক্ষায় এবং আন্তর্জাতিক বাজারেও এসব কারুশিল্পকে ছড়িয়ে দিতে বৈশাখী মেলা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে।
যদিও এক পরিসংখ্যান বলছে বাংলাদেশ থেকে বছরে প্রায় ৮০ লাখ মার্কিন ডলার মূল্যের হস্তশিল্প সামগ্রী বিদেশে রফতানি হচ্ছে। কিন্তু সেসব দেশে বাঙালীর প্রাণের মেলাকে ছড়িয়ে দিতে পারলে এরচেয়ে আরও অনেক বেশি পরিমাণ হস্তশিল্প পণ্য বিদেশের বাজারে রফতানির সুযোগ রয়েছে বাংলাদেশের। বৈশাখী মেলার আয়োজন এবং এসব মেলায় বিদেশীদের আকৃষ্টকরতে পারলে ব্যাপকভাবে সহায়ক হতে পারে।

ঐতিহ্যের বৈশাখী মেলা:
এক সময় দেশের গ্রামাঞ্চলে ৩০ চৈত্র অর্থাৎ চৈত্রসংক্রান্তিতে যে মেলার আয়োজন করা হতো, সেটাই ক্রমান¦য়ে বৈশাখী মেলায় রূপ নেয়। এ বৈশাখী মেলা বাঙ্গালী সংস্কৃতির খুবই পুরনো একটি অনুষঙ্গ। এ উৎসবটি একটি সাম্প্রদায়ের কাছ থেকে যাত্র শুরু হলেও, ক্রমান্বয়ে এটি হয়েগেছে সার্বজনীন এবং ইতিমধ্যে তা আমাদের অন্যতম লোকজ ঐতিহ্যে পরিণত হয়েছে।
বরং বলা চলে, নববর্ষ উদযাপনই হচ্ছে বাঙালীর সবচেয়ে বড় অসাম্প্রদায়িক ও সর্বজনীন উৎসব। বস্তুতপক্ষে সময়ের সাথে সাথে আমাদের জ াতিগত মর্যাদারই প্রতীক হয়ে দাঁড়িয়েছে এ উৎসবের জৌলুস ও  ঔজ্জ্বল্য।মুলতঃ গ্রাম থেকেই শুরু বৈশাখী মেলায় নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র, নানা জাতের খাবার, মিষ্টি, ফলমূল, শাকসবজি সবই পাওয়া যেতো।আজকাল শহর এলাকায় ’শহুরে বৈশাখী মেলা’ বলতে যা দেখি, এটা কিন্তু মোটেও এমন ছিলো না। বিশেষ করে আমার ছেলে বেলায় দেখা মেলার চিত্রও আজকের কৃত্রিম শহুরে মেলার সাথে মিলাতে পারছি না।

বৈশাখী মেলা গ্রাম থেকে শহুরে সংস্কৃতিতেও অবস্থান করে নিয়েছে। নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি যেখানে সহজলভ্য সে শহরের মানুষের কাছে বৈশাখী মেলাটা হয়েঠে শুধুই বিনোদননির্ভর এবং শহুরে ধাচের। ব্যস্ততার ফাঁকে একটুখানি আনন্দ পাওয়া এই যা। শহুরে বৈশাখী মেলায় খেলনা, চুড়ি, বাঁশি, বেলুন এসব শুধুই ফ্যাশন। তবে এটি শহুরে ধাচের হলেও বাঙালির ঐতিহ্যের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেয় তা ই বা কম কিসে। যে তরুণ সমাজ আজকাল বিদেশী সংস্কৃতিটাকেই বেশি টানছে সে তরুণ প্রজন্মের কাছে বছরে অন্ততঃ একটি দিনের জন্যে হলেও পৌঁছে দিচ্ছে বাঙালির হাজার বছরের ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি।

নাগরিক জীবন পহেলা বৈশাখে যোগ করে নতুন মাত্রা। বৈশাখী মেলার মতো ঐতিহ্যবাহী এ লোকজ উৎসবটি তার আদি জৌলূস হারিয়ে, আধূনিকত জৌলুস ও ঔজ্জ্বল্য নিয়ে উদযাপিত হচ্ছে।

তবে, খেয়াল রাখতে হবে, এটি যেন শিকড় বিচ্ছিন্ন হয়ে না পড়ে। কেননা আমাদের ভুলে গেলে চলবে না যে, বছরের একটি দিন বাঙালির জীবনে অন্যরকম স্বপ্ন আর অমিত সম্ভাবনার ফুললঝুড়ি নিয়ে এসে হাজির হয় পহেলা বৈশাখ। অবিরাম সুন্দরের পথে হাঁটার ও সংস্কৃতির শুদ্ধ চর্চার অঙ্গীকারের দিন এ পহেলা বৈশাখ। সমাজ ও দৈনন্দিন জীবনের নানা অনুষঙ্গকে ধারণ করে, কয়েক শতাব্দী ধরে বাঙালিরা উৎসাহ উদ্দীপনা নিয়ে এ দিনটি উদযাপন করে আসছে।

আজকাল শুধু ক্ষমতা, নগরকেন্দ্রিক সংস্কৃতিসেবী, প্রভাবশালী ব্যবসায়ীরা নিজেদের স্বার্থে নতুন নতুন প্যাকেজ প্রচলন করে সংস্কৃতির মূলধারাকে কুঠারাঘাত করে শিকড় বিচ্ছিন্ন করছেন। নতুন মাত্রার এ প্রতিযোগিতায় আমাদের ঐতিহ্যের যাতে বিকৃত উপস্থাপন না হয়, সেদিকেও লক্ষ্য রাখা বাঞ্ছণীয়। ব্যাক্তি-প্রতিষ্ঠান থেকে শুরু করে এই বিকৃতি রোধের দিকটি বিবেচনায় রাখতে হবে রাষ্ট্রীয়ভাবেও।

লেখক:
মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম (ইমরুল),
সাংবাদিক, মাছরাঙা টেলিভিশন,
প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালক, ’ঐতিহ্য কুমিল্লা’
মোবাইল: ০১৭১৬-৯৬২৪৬০
তারিখ: ১২ এপ্রিল ২০১৮
রসৎঁষ৬০@মসধরষ.পড়স