মঙ্গলবার, ২৮শে জানুয়ারি, ২০২০ ইং

জালিয়াত চক্রের কারণে অনিরাপদ এটিএম বুথ সেবা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
November 25, 2019
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

দেশে অটোমেটেড টেলার মেশিনের (এটিএম) বুথে জালিয়াতির ঘটনা নতুন নয়। বুথে একের পর এক জালিয়াতির ঘটনা ঘটেই চলছে। জালিয়াতি রোধে নানা পদক্ষেপের কথাও শোনা গেলেও কার্যকর প্রতিরোধ ব্যবস্থা না থাকায় অনিরাপদ হয়ে উঠছে এটিএম বুথ সেবা।

তথ্য বলছে, ২ বছর আগে কার্ড ভিত্তিক ও ইলেকট্রনিক ব্যাংকিং (ই-ব্যাংকিং) সেবা নিরাপদ ও ঝুঁকিমুক্ত করতে বেশকিছু নির্দেশনা দিয়েছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক। নির্দেশনা পরিপালনের সময়সীমাও পার হয়ে যায়। কিন্তু সব নির্দেশনা পুরোপুরিভাবে পরিপালন করেনি অধিকাংশ ব্যাংক। তাই ব্যাংকগুলোর সেবা ঝুঁকিপূর্ণই থেকে গেছে।

মূলত কার্ড জালিয়াতির বিষয়টি প্রথম ধরা পড়ে ২০১৫ সালে। ওই বছরে সিটি ব্যাংকের ক্রেটিড কার্ড নকল করে ৩ কোটি ৪০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয় এটিএম জালিয়াত চক্র। এরপর ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারিতে একযোগে ৬টি ব্যাংকের এটিএম বুথে স্কিমিং ডিভাইস বসিয়ে ১২০০ কার্ড নকল করে জালিয়াত চক্র।

এর ২ বছর পর ২০১৮ সালে ৫ ব্যাংকের ৪৯ গ্রাহকের কার্ড জাল করে ২০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয় প্রতারক চক্র। সম্প্রতি পূবালী ব্যাংকের ৩টি এটিএম বুথ থেকে ২ প্রতারক অত্যাধুনিক পদ্ধতিতে ৯ লাখ ৬০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।

সূত্র বলছে, এ পর্যন্ত ডাচ-বাংলা, সিটি, ব্র্যাক, ইউসিবি, মিউচুয়াল ট্রাস্ট, ইস্টার্ন, ব্যাংক এশিয়া, প্রিমিয়ার ব্যাংক, এনসিসি ও প্রাইমসহ বিভিন্ন ব্যাংকের কার্ডধারীরা জালিয়াতির শিকার হয়েছেন।

এসব ঘটনার তদন্ত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, চলতি বছরের যে তিনটি ঘটনা ঘটেছে। ঘটনাগুলোর সঙ্গে একই প্রতারক চক্র জড়িত। আন্তর্জাতিক এই জালিয়াত চক্রে ইউক্রেন, রোমানিয়া, জার্মানি, রাশিয়ার নাগরিক ছাড়াও বাংলাদেশিদের সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে।

চক্রটির সমন্বয়ক হিসেবে কাজ করছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক ফরিদ নাবির। অবশ্য ফরিদ নাবিরকে গ্রেফতারে আন্তর্জাতিক পুলিশ সংস্থা ইন্টারপোলের সহায়তা চেয়েছে বাংলাদেশ পুলিশ। কিন্ত ধরা ছোঁয়ার বাইরে আছেন এই ডিজিটাল ব্যাংক জালিয়াত চক্রের মূল হোতা।

এদিকে ডিজিটাল ব্যাংকিংয়ের যুগে এটিএম বুথের মাধ্যমে সেবাগ্রহণ বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে দেশে। সারাদেশে ব্যাংকগুলোর ১০ হাজার ৭২২টি এটিএম বুথ করেছে। কার্ডধারী গ্রাহকের সংখ্যা ১ কোটি ৭২ লাখ ৩৯ হাজার ৯০২। এর মধ্যে ডেবিট কার্ডধারী আছেন ১ কোটি ৫৭ লাখ ৫৮ হাজার ৯৭৭, ক্রেটিড কার্ডধারী ১২ লাখ ৩ হাজার ৪২৭ এবং প্রি-পেইড কার্ডধারী গ্রাহকের সংখ্যা ২ লাখ ৭৭ হাজার ৪৯৮ জন।

কিভাবে জালিয়াতি চক্রটি কাজ করে জানতে চাইলে প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ মোহাম্মাদ জোহা বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, ক্যাশ মেশিনের সাথে স্কিমিং যন্ত্র বসিয়ে কার্ড জালিয়াতি, পিন ও পাসওয়ার্ড জালিয়াতির অভিযোগই বেশি শোনা যায়।

এ ব্যবস্থায় এটিএম মেশিনের সঙ্গে ছোট্ট একটি যন্ত্র জুড়ে দেওয়া থাকে, যার মাধ্যমে ডেবিট বা ক্রেডিট কার্ডের সব তথ্য কপি হয়ে যায়, পরে তা ব্যবহার করে নির্দিষ্ট কোন অ্যাকাউন্টের অর্থ হাতিয়ে নেওয়া যায়।

সবশেষ পূবালী ব্যাংকের জালিয়াতির বিষয়ে পুলিশ বলছে, জালিয়াতির মাধ্যমে অর্থ হাতিয়ে নেওয়া দেশি চক্রের দুই সদস্যকে গ্রেফতার করতে পারলে এই নেটওয়ার্কের দেশীয় সিন্ডিকেটকে শনাক্ত করা সম্ভব হবে। পুলিশ যথাসাধ্য চেষ্টা করে যাচ্ছে।

গত ৩১ মে রাজধানীর খিলগাঁও এলাকার ডাচ-বাংলা ব্যাংকের একটি বুথ থেকে ইউক্রেনের দুই নাগরিক ৩ লাখ টাকা উত্তোলন করেন। পরদিন একই বুথ থেকে তারা টাকা হাতিয়ে নিতে ঢোকেন। মুখে মাস্ক দিয়ে ও মাথায় ক্যাপ পরে বুথে ঢুকে বেশি সময় নেওয়ায় সন্দেহ হয় নিরাপত্তারক্ষীর। তারা পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে একজনকে হাতেনাতে আটক করে পুলিশে দেওয়া হয়। পরে তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে উত্তরার হোটেল ওলিও ড্রিম হ্যাভেনে অভিযান চালিয়ে আরও পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়। দেখা যায়, ডাচ-বাংলা ব্যাংকের বিভিন্ন বুথ থেকে ১৪ লাখ টাকা তুলে নিয়েছে চক্রটি।

এ ঘটনায় ইউক্রেনের ৬ নাগরিককে গ্রেফতারসহ মামলাটির তদন্ত করছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। ডিবি পুলিশ বলছে, এই ঘটনায় এখন পর্যন্ত ইউক্রেনের ওই ৬ নাগরিক দায় স্বীকার করেননি। এতে রাশিয়ার এক নাগরিকসহ আরও কয়েকজন জড়িত। তাদের তথ্য চেয়ে আন্তর্জাতিক পুলিশ সংস্থা ইন্টারপোলের সহায়তা চাওয়া হয়েছে। এ ছাড়া এটিএম বুথের ভিডিও চিত্রসহ কয়েকটির আলামত ফরেনসিক পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর পুলিশের যুগ্ম কমিশনার (ডিবি) মাহবুব আলম বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, মামলার তদন্ত প্রায় শেষ পর্যায়ে। তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতে দ্রুতই মামলার চার্জশিট দেওয়া হবে।

এটিএম বুথ সেবার ঝুঁকি প্রসঙ্গে জানতে চাইলে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, এটিএম সার্ভিস আলাদা করে কী ঝুঁকিতে পড়বে, পুরো ব্যাংক ব্যবস্থাই তো ঝুঁকির মুখে পড়েছে। সারা বিশ্বের এটিএম ব্যবস্থা অনেক উন্নত। সেখান থেকে অভিজ্ঞতা নিয়ে আমাদের দেশের ব্যাংকগুলো চাইলেই এটিএম ব্যবস্থা উন্নত করতে পারে। ব্যাংকগুলোর এটিএম সার্ভিসে যে টেকনিক্যাল বিষয়গুলো আছে সেগুলোর প্রটেকশন নিলে এ ধরনের ঘটনা ঘটবে না।

আর পড়তে পারেন