মঙ্গলবার, ২২শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং

জলাবদ্ধ কুমিল্লার নগরবাসীর বিপর্যস্ত জনজীবন, দ্বিগুন ভাড়ায় গন্তব্যে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ২, ২০১৯
news-image

 

অনলাইন ডেস্কঃ
চৈত্রের শেষ সপ্তাহ। বিকেলজুড়ে হালকা বাতাসের সাথে উড়তে থাকে সাদা মেঘের দলা। উত্তর আকাশে জমতে থাকা সাদা মেঘের দলা ধীরে ধীরে কালো হয়ে উঠে। থেমে যায় বাতাস। আকাশে বিদ্যুৎ চমকাতে থাকে। শুরু হয় বৃষ্টিবজ্রসহ বৃষ্টি। হালকা ঝড়ো বাতাসের সাথে টানা একঘন্টা ধরে থেমে থেমে বজ্রপাতের সাথে চলে মাঝারি ও ভারি বর্ষণ। এর মাঝে পানিবন্দি হয়ে পরে পুরো কুমিল্লা নগরী। বিপর্যস্ত হয়ে পরে জনজীবন। কাকভেজা হয়ে গন্তব্যে ফিরতে হয় নানা পেশাশ্রেণির মানুষদের। নগরীর প্রধান সড়ক থেকে অলিগলি ও বাসাবাড়িতে পানি বন্দি হয়ে পড়ে নগরবাসী।

আজ বেলা ৩ টা ৬ পর্যন্ত থেমে থেমে বৃষ্টিপাত হয়। তবে বেলা ৪ টা থেকে ৫ টা পর্যন্ত একটানা বজ্রসহ ঝড়ো বৃষ্টিপাতে পানি বন্দি হয়ে পরে নগরবাসী। অলিগলি থেকে প্রধান সড়ক পানি বন্দি হয়ে পড়ায় দ্বিগুন ভাড়ায় গন্তব্যে ফিরতে হয় বিভিন্ন পেশাশ্রেণি মানুষদের।

নগরীর কান্দিরপাড় থেকে ঈদগা সড়কে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, নগরীর অন্যতম ব্যস্ত এ সড়কটি পানিবন্দি। হাতে জুতা নিয়ে ফুটপাত দিয়ে বাড়ি ফিরতে দেখা যায় সাধারণ মানুষদের। একই অবস্থা কান্দিরপাড়,মনোহরপুর, রেইসকোর্স, দ্বিতীয় মুরাদপুর,শুভপুর এলাকার সড়ক ও গলিতে পানিবন্দি অবস্থায় রয়েছে। এর মাঝেই হাটু পানি মাড়িয়ে বাসা বাড়িতে যেতে দেখা যায় বিভিন্ন প্রয়োজনে ঘর থেকে বের হওয়াদের।

এদিকে বিকেল থেকে বৃষ্টিপাতের কারনে বিপাকে পড়ে নিম্ন আয়ের মানুষজন। ফুটপাত থেকে দোকান গুছিয়ে সন্ধ্যা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে দেখা যায়। তবে নগরীর প্রধান সড়ক ও অলিগলিসহ বাসা বাড়িতে পানিবন্দির বিষয়টি নিয়ে বিরক্ত নগরবাসী। এত উন্নয়ণের পরেও কেন নগরীজুড়ে পানি বন্দি থাকতে হবে। সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও অন্যান্য কর্মকর্তাদের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা যায় নগরবাসীর। সবার একটাই কথা। নগরীর সব সড়কের পাশে এত উচু করে ড্রেন নির্মাণ করা হলেও কেন এখনো পানি বন্দি থাকতে হবে। আর এখন জলাবদ্ধতার বিষয়টি টক অব দ্যা টাউনে পরিনত হয়েছে।

নগরীর বিশিষ্টজনেরা বলেন অপরিকল্পিত নগরায়নের ফলে আজ আবাসিক রাজধানী বলে খ্যাত কুমিল্লা নগরী আজ বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এখন থেকে সুপরিকল্পিত ভাবে নগরায়ন না করা গেলে আগামীতে আরো ভোগান্তির শিকার হতে হবে নগরবাসীকে।

এ বিষয়ে কুমিল্লা সিটি মেয়র মো. মনিরুল হক সাক্কুর কাছেে জানতে চাইলে তিনি জানান, পানি নিষ্কাশনের জন্য ড্রেনেজ সিস্টেমের কাজ এখনো শেষ হয়নি। কবে নাগাদ কাজ শেষ হবে এমন প্রশ্নের জবাবে মেয়র সাক্কু জানান, আগামী মাস খানের মধ্যে সম্পূর্ণ কাজ শেষ হবে। আশাকরি তারপর থেকে আর জলাবদ্ধতার সমস্যা আর থাকবেনা।

আর পড়তে পারেন