সোমবার, ৪ আগস্ট, ২০২০

ছেঁড়া বস্তার ঘরে অমানবিক জীবনযাপন সালেহার, পেলেন টিনের ঘর

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ১৩, ২০২০
news-image

 

মাছুম কামালঃ

‘মানুষ বড় কাঁদছে,তুমি মানুষ হয়ে পাশে দাঁড়াও
মানুষই ফাঁদ পাতছে ,তুমি পাখির মত পাশে দাঁড়াও’

কবি শক্তি চট্টোপাধ্যায়-এর এই পঙক্তিগুলোর আহবানই যেনো কাজে লাগালেন কুমিল্লার লাকসামের গোবিন্দপুর ইউনিয়নের মোহাম্মদপুর গ্রামের ৮ যুবক।

তারা উদ্যোগ নিয়ে স্থানীয় এক দুঃস্থ, সহায়সম্বলহীন মহিলাকে একটি টিনের ঘর তুলে দিয়েছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, অসহায় ওই দুঃস্থ মহিলার নাম সালেহা বেগম (৩২)। এক প্রকারের স্বামী পরিত্যক্তা সালেহা চরম অভাবের তাড়নায় অত্যন্ত দুঃখ কষ্টে বিভিন্ন জনের কাছে সাহায্য নিয়ে জীবনধারণ করেন। তার দু’টি সন্তান রয়েছে। বসবাসের উপযোগী ঘর না থাকায় ছেঁড়া সিমেন্টের বস্তা দিয়ে জোড়াতালি দিয়ে কোনোমতে ঠাঁই গোঁজতেন তিনি।

এক পর্যায়ে গত রোজার ঈদের সময় ওই এলাকার স্থানীয় সেলিম, সবুজ, ফয়সাল, তাজুল, জাহিদ, নাজমুল, ইব্রাহিম, রনি, বাবলু নামে আট যুবক উদ্যোগ নিয়ে এলাকার প্রবাসী এবং বিভিন্ন জনের কাছে সাহায্য চেয়ে টাকা তুলে টিনের ঘরটি তুলে দেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সেলিম জানান, ‘এই মহিলা হৃদয়বিদারকভাবে জীবন-যাপন করছেন। এরমধ্যে একদিন তার পরিবার থেকে আমাদের কাছে সাহায্য চাইলে আমরা বিভিন্ন জায়গা থেকে সাহায্য তুলে ওনাকে একটা টিনের ঘর করে দিয়েছি।

এরমধ্যে সালেহার পরিবার থেকে সঞ্চিত কিছু টাকা এবং আমাদের সংগ্রহের টাকা দিয়ে ঘরের পাশাপাশি কিছু ফার্নিচারও কিনে দিয়েছি। অবশিষ্ট টাকা ওদের হাতে হস্তান্তর করেছি।

জানতে চাইলে সালেহা বেগম কান্নাজড়িত কণ্ঠে জানান, ‘আমাদের মাথা গোঁজার ঠাই ছিল না। ছেঁড়া সিমেন্টের বস্তা দিয়ে আমরা কোনোরকমে দিনাতিপাত করছিলাম। এরা আমাকে ঘর তুলে দিয়েছে। আমি এদের জন্য দোয়া করি।’

আর পড়তে পারেন