বৃহস্পতিবার, ৫ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং

চৌদ্দগ্রামে ধানের শীষের প্রচার মাইক ভাংচুর, গ্রেফতারের পর দুজনের সন্ধান মিলছে না

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ২৪, ২০১৮
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে পুলিশের বিরুদ্ধে ধানের শীষের চার নেতাকর্মী গ্রেফতার, প্রচার মাইক ভাংচুর ও বিএনপি নেতাদের বাড়িতে তল্লাশীর অভিযোগ করেছেন সাবেক এমপি ডাঃ সৈয়দ আবদুল্লাহ মোঃ তাহের।

সোমবার বিকেলে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, চৌদ্দগ্রাম আসনে ধানের শীষের নির্বাচনী প্রস্তাবক, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারী অ্যাডভোকেট মোঃ শাহজাহান ও আইনজীবী এ্যাডভোকেট বদিউল আলম সুজন সোমবার দুপুর ২টার দিকে জেলা নির্বাচন অফিসে পুলিশি তাণ্ডব, গণগ্রেফতার, হয়রানি, সরকার দলের নির্বাচন বহির্ভূত আচরণের অভিযোগ দাখিল করতে রিটার্নিং কর্মকর্তার সঙ্গে দেখা করে কার্যালয় থেকে বের হলে তাদেরকে সাদা পোশাকধারীরা প্রশাসনের পরিচয়ে তুলে নিয়ে যায়। এরপর থেকে তাদের ফোন বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। তাদের কোথাও পাওয়া যাচ্ছে না।

সন্ধান মিলছে না অ্যাডভোকেট মোঃ শাহজাহান ও আইনজীবী এ্যাডভোকেট বদিউল আলম সুজনের।

থানা বা আদালতেও তাদের হাজির করা হয়নি। এর আগে চৌদ্দগ্রাম বাজারে ধানের শীষের প্রচার মাইক ভাংচুর করে যুবলীগের কর্মীরা। রবিবার রাতে মুন্সিরহাট ইউনিয়নের যুগিরহাট গ্রামের ডাঃ ইয়াছিনকে পুলিশ প্রকাশ্যে নাটকীয়ভাবে ১২টি ককটেল দিয়ে গ্রেফতার করে।

গুণবতী ইউনিয়নের রামপুর গ্রামের মোশারফ হোসেন ডালিমকে যুবলীগ কর্মীরা ধানের শীষের লিফলেট বিতরণ করায় মারধর শেষে পুলিশের হাতে সোপর্দ করে। পুলিশের পৃথক টিম উজিরপুর ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ইমাম হোসেন মজুমদার রুবেল ও উপজেলা যুবদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জামাল উদ্দিন মামুনের বাড়িতে ব্যাপক তল্লাশী চালিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করে।

বাসন্ডা গ্রামে ধানের শীষের পোস্টার লাগানোর পর হেলমেট বাহিনী গিয়ে ২০০ পোস্টার পুড়িয়ে ফেলে। এছাড়া পুলিশ ও যুবলীগের হেলমেট বাহিনী সর্বত্রই তাণ্ডব চালাচ্ছে বলে বিএনপির সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে অভিযোগ করা হয়েছে। বলা হয়েছে তাদের হুমকি-ধমকির কারণে গ্রেফতার আতঙ্কে ভোটার ও সাধারণ মানুষ।

ডাঃ তাহের আরও বলেন, ‘পুরো চৌদ্দগ্রামের ভোটারদের সমর্থনে ধানের শীষ প্রতীক রয়েছে। এটি বুঝতে পেরে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা দিশেহারা হয়ে হুমকি-ধমকি অব্যাহত রেখেছে। তারা ভয়ভীতি দেখিয়ে একতরফা নির্বাচন করতে চায়। এজন্য ক্ষমতাসীন মন্ত্রীর নির্দেশে পুলিশকে তারা কাজে লাগাচ্ছে। এরই অংশ হিসেবে নাটকীয়ভাবে পুলিশ ধানের শীষের সহজ-সরল সমর্থক-কর্মীদের মারধর ও গ্রেফতার অব্যাহত রেখেছে। অবিলম্বে প্রশাসনকে নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করে শান্তিপুর্ণ ভোট প্রদানে সকলকে সহযোগিতা করার আহবান জানাচ্ছি।’

আর পড়তে পারেন