শুক্রবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং

চান্দিনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডাক্তার আসেন ইচ্ছেমত, বেশিরভাগ পরীক্ষা হয় বাহিরের প্যাথলজিতে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ১৭, ২০১৯
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্ট :

কুমিল্লার চান্দিনার ৫০ শয্যা বিশিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়োগপ্রাপ্ত ডাক্তারদের দায়িত্ব পালনে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। সময়মত চেম্বারে আসেন না তারা। এতে রোগীরা সময়মত চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হন। সকাল সাড়ে ৮টা থেকে ডাক্তারদের চেম্বারে থাকার নিয়ম থাকলেও সরকারি ওই নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে নিজেদের মনমত সময়ে হাসপাতালে আসেন তারা।

এদিকে হাসপাতাল ঘিরে গড়ে উঠা প্যাথলজির কর্মী ও দালালদের দৌরাত্ম্যে সঠিক সেবা বঞ্চিত ও আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে সাধারণ রোগীরা। হাসপাতালের অভ্যন্তরে প্যাথলজিতে স্বল্প মূল্যে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার ব্যবস্থা থাকলেও কমিশনের লোভে বেশিরভাগ ডাক্তারই রোগীদেরকে বাহিরের প্যাথলজিতে পরীক্ষার করার পরামর্শ দেন বলেও অভিযোগ উঠে।

রোগীদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) সকাল ৮টা থেকে দুপুর পর্যন্ত ৫০ শয্যা বিশিষ্ট চান্দিনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অবস্থান করে পর্যবেক্ষণে দেখা যায়, সকাল ১০টা পর্যন্ত মেডিকেল অফিসার ডা. আমেনা বেগম, সহকারী সার্জন ডা. মো. আরিফুর রহমান, মেডিকেল অফিসার ডা. নাজমা আক্তার রবি’র চেম্বার তালাবদ্ধ ছিল। স্যাকমো ডা. মো. আবু কাউছারও সকাল ১০টার পরে কর্মস্থলে আসেন। চেম্বারের সামনে ডাক্তার না পেয়ে খালি টিকিট নিয়ে রোগীদের ভিড় করতে দেখা গেছে।

 

ভোক্তভোগী উপজেলার মাধাইয়া ইউনিয়নের কাশিমপুর গ্রামের ওসমান গণি জানান, ‘আমার স্ত্রী অসুস্থ। সকাল ৯টায় টিকিট কেটেছি। প্রায় সোয়া এক ঘন্টা অপেক্ষা করে ডা. নাজমা আক্তার রবি’কে দেখাতে পেরেছি। হাসপাতালে ডাক্তাররা সময় মতো আসে না।’

পৌরসভার বেলাশ্বর গ্রামের রহিমা আক্তার জানান, ‘আমার মা, ভাই ও আমি নিজেও অসুস্থ। সকাল থেকে অপেক্ষা করে ১০টার পর ডাক্তার দেখাতে পেরেছি।’
এব্যাপারে জানতে চাইলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্যাকমো মো. আবু কাউছার বলেন- ‘আমি সকাল ৮টায়ই হাসপাতালে গিয়েছি। আমাদের তিন সিফটে ডিউটি করতে হয়। ইমারজেন্সিতে দেরি করার সুযোগ নেই।’

এ ব্যাপারে মেডিকেল অফিসার ডা. আমেনা বেগম সময়মত না আসার বিষয়টি স্বীকার করে বলেন- ‘আজকে রাস্তায় একটু দেরি হয়ে গেছে। আর আউটডোর মূলত সকাল সাড়ে ৯টা-১০টা থেকেই চালু হয়। আমরা প্রতিদিন অনেক রোগী দেখি।
ডাক্তার কম থাকায় রোগীদের চাপ বেশি থাকে। এমনও দিন যায় ৮০-৯০ জন রোগী দেখতে হয়। আল্লাহর রহমতে কোন সমস্যা হয় না।

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আহসানুল হক জানান, ‘আসলে সকালে এসে আমাদের কিছু কাজ থাকে। রাউন্ডে গিয়ে রোগী দেখতে হয়, ছুটি দিতে হয়। হাজিরার কিছু কাজ থাকে। বায়োমেট্রিক হাজিরার কারণে ফাঁকি দেওয়া সুযোগ নেই। কোন ডাক্তার লেইট করলে মেশিনই বলে দিবে।

আর পড়তে পারেন