মঙ্গলবার, ২১শে জানুয়ারি, ২০২০ ইং

‘চাইয়া লন দেড়শ-বাইছা লন দেড়শ’ কুমিল্লার ফুটপাতের কাপড়ের ভাঁজে নিম্নবিত্তের উষ্ণতার খোঁজ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ৩, ২০১৯
news-image

অনলাইন ডেস্কঃ

বাংলাবর্ষ পঞ্জিতে এখন অগ্রহায়ণ মাস। তারপরেই আসবে পৌষ মাস। পৌষ-মাঘ মানে শীতকাল। তবে এখনই সন্ধ্যার পরেই কুয়াশার সাথে উত্তরের কনকনে হিমেল হাওয়া বইতে শুরু করে। অবস্থা সম্পন্নরা অভিজাত শপিং মল থেকে দামী সব শীতের পোশাক কিনলেও নিম্নবিত্তদের জন্য ফুটপাতের কম দামের পোশাকেই ভরসা করছে। আর তাই ফুটপাতের কাপড়ের ভাঁজে নিম্নবিত্তরা উষ্ণতা খোঁজে। এ কারণে গত বেশ কিছু দিন ধরে কুমিল্লার ফুটপাতজুড়ে গরম পোশাক কিনতে ভীড় করছে নিম্ন আয়ের মানুষজন। আর ফেরিওয়ালা সুরে ছন্দে গরম কাপড় বিক্রি করছেন চাইয়া লন দেড়শ বাইছা লন দেড়শ।

গতকাল কুমিল্লা মহানগরীর বিভিন্ন সড়কের ফুটপাতে ফেরিওয়ালাদের ভ্যান ঘিরে থাকতে দেখা যায় নিম্ন আয়ের মানুষজনকে। ফেরিওয়ালারা ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থান হতে কম দামের পোশাক কিনে আনে। এছাড়া কুমিল্লা ইপিজেড থেকেও কম দামে কাপড় কিনে এনে নগরীতে বিক্রি করে।

 

নগরীর রাজগঞ্জ-চকবাজার সড়কের পাশে একদল ফেরিওয়ালাকে নিয়ম করে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত কম দামের গরম কাপড় বিক্রি করতে দেখা যায়। বিক্রেতাদের একজন জসিম। বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলায়।

বিকিকিনির ফাঁকে জসিম জানায়, শীতের এ সময়টাতে ঢাকা, চট্টগ্রাম ও কুমিল্লা ইপিজেড থেকে কম দামে ভারি কাপড় কিনে আনি। পাইকারি কিনে আনা শীতের পোশাকগুলো প্রতিটি বিক্রি করলে ৪০-৬০ টাকা মুনাফা হয়।

কান্দিরপাড় মনোহরপুর সড়কে ছায়েদুল ইসলাম নামে একজন সিএনজি চালিত অটোরিকশা চালক মহিলাদের পরিধেয় দুটি সুয়েটার, একটি শিশু পোশাক ও একটি ভারি শার্ট কিনেছেন সাড়ে ৬শ’ টাকা দিয়ে। মুখে স্মিত হাসি। কথা বলার ফাঁকে জানালেন, ভাড়ায় সিএনজি চালান। নগরীর সাতোরা এলাকায় মা, স্ত্রী ও এক ছেলে নিয়ে ভাড়া থাকেন। পাশে খালি জলাভূমি। ঠাণ্ডা হাওয়ায় বেশ শীত লাগে। প্রতিদিন সিএনজির মালিককে জমা দেয়ার পর হাতে খুব বেশি টাকা থাকে না। শীত তো আর সে কথা বুঝে না।

কালিয়াজুরি এলাকার সবজি বিক্রেতা সোহরাব মিয়ার স্ত্রী নিলুফা রাজগঞ্জ ছাতিপট্টি ঘুরে ২ সন্তান জন্য দু’টি সুয়েটার ও একটি কম্বল কিনেছেন। তিনি জানান, ৭শ’ টাকার এই কাপড়গুলো মার্কেটে (শপিংমলে) ২/৩ হাজার টাকার কম হতো না। এত টাকা দিয়ে কাপড় কেমনে কিনবো। স্বামীর আয় বেশি না।

গরম কাপড়ের অভাবে যেন শীতের সময় সন্তান কষ্ট না পান তাই স্বামীর দেয়া টাকা থেকে কিছু টাকা জমিয়ে রেখেছিলেন। এখন সেই টাকার সাথে আরো কিছু টাকা যোগ করে সন্তানদের জন্য ভারী পোশাক কিনেছেন বলে নিলুফার দেহমনজুড়ে একটা উষ্ণতা ছড়িয়ে গেল।

আর পড়তে পারেন