শুক্রবার, ১৭ই অক্টোবর, ২০১৯ ইং

চাঁদপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য ৫ একর জমি দিতে চায় ইউপি চেয়ারম্যান মানিক

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ২৮, ২০১৯
news-image

মাসুদ হোসেন, চাঁদপুর:
চাঁদপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় অনুমোদন পাওয়ার পর থেকে চাঁদপুর জেলার কোন উপজেলায় কিংবা কোন এলাকায় এটি স্থাপন করা হবে তা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নানাজন নানা মতামত প্রদান করছে। এ নিয়ে প্রতিদিনই ফেসবুকে পজিটিভ মতামত আসছে। গত ২৩ আগস্ট শুক্রবার চাঁদপুর সদর উপজেলার ৬নং মৈশাদী ইউনিয়নের জনবান্ধব চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান মানিক ফেসবুকের মাধ্যমে একদাপ এগিয়ে ব্যতিক্রমধর্মী যুগপোযোগী প্রশংসিত প্রস্তাব দিয়েছেন। তিনি ফেসবুকের মাধ্যমে ঘোষনা দিয়েছেন যদি চাঁদপুর জেলা সদরের ৬নং মৈশাদীতে চাঁদপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় করা হয় তাহলে তিনি ৫একর জমি (সম্পত্তি) উক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে দান করবেন।

মৈশাদী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান মানিকের উক্ত ঘোষণা দেওয়ার সাথে সাথে ফেসবুকে ব্যাপক সাঁড়া পড়ে যায়। ইতিমধ্যে তার ঘোষনা ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে যায়। সবাই একবাক্যে উক্ত ঘোষনাকে স্বাগত ও অভিনন্দন জানিয়েছে। মৈশাদী ইউনিয়নটি চাঁদপুর জেলা শহরের খুব নিকটে। শহর থেকে ৩ থেকে ৪ কিলোমিটার হবে। আর যোগাযোগ ব্যবস্থাও বেশ উন্নত। বিশেষ করে মৈশাদীতে রেল, সড়ক ও নৌপথে যাতায়াতের চমৎকার ব্যবস্থা রয়েছে। তাই এ বিষয়টি শিক্ষামন্ত্রী ডাঃদীপু মনির সুদৃষ্টি কামনা করেছেন ফেসবুকের অগনিত ইউজার। বিষয়টি বিবেচনা করার অনুরোধ জানান সবাই। কারণ এমনিতে সরকার চাঁদপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় করার জন্য জায়গা খুঁজছে। যতটুকু জানা গেছে এখন পর্যন্ত জায়গা নির্ধারণ করা সম্ভব হয়নি। জায়গা খুঁজছে সরকার। ফেসবুকে সবাই স্ব স্ব উপজেলা কিংবা এলাকায় করার দাবী করলেও কেউ এ যাবত জায়গা দেওয়ার প্রস্তাব করেননি।

সংবাদ সংস্থা ইউএনবি’র বাংলা বিভাগের মফস্বল সম্পাদক ও ঢাকাস্থ চাঁদপুর জেলা সাংবাদিক ফোরামের সাধারন সম্পাদক রাশেদ শাহরিয়ার পলাশ ২৮ আগস্ট তাঁর ফেসবুকে আইডি থেকে একটি স্ট্যাটাস দিয়ে বলেন, চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান মানিক যে জায়গা দিতে চান, তার স্থান চাঁদপুর সদর উপজেলার মৈশাদী রেল স্টেশনের কাছে। বাবুরহাট থেকে মৈশাদীতে যে সড়ক গিয়েছে তার পাশে। বর্তমান বাজার দর অনুযায়ী এ সম্পত্তির আনুমানিক মূল্য প্রায় ৮ কোটি টাকা। এতদামি সম্পদ উনি এই প্রথমবার দিতে চেয়েছেন বিষয়টা তেমন নয়। চাঁদপুর মেডিকেল কলেজ যখন করার অনুমোদন এল তখনও তিনি এ জায়গাটি দিতে চেয়েছেন। এ ব্যাপারে মৈশাদী ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মনিরুজ্জমান মানিক জানান, চাঁদপুরে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় অনুমোদন দেওয়ায় প্রথমেই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এমপিকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। উক্ত বিশ্ববিদ্যালয় ৬নং মৈশাদী ইউনিয়নে করার প্রস্তাব করছি। বিশেষ করে ৬নং মৈশাদীতে চাঁদপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় করা হয় তাহলে আমি ৫একর জমি (সম্পত্তি) উক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে দান করবো। আমি এ ব্যাপারে চাঁদপুরের কৃতিসন্তান মাননীয় শিক্ষাবান্ধব শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এমপি মহোদয়ের সুদৃষ্টি কামনা করছি।
উল্লেখ্য, ১৯ আগস্ট সোমবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে ‘চাঁদপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় আইন, ২০১৯’-এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দেয়া হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সভা শেষে সচিবালয়ে ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম বলেন, চাঁদপুরে একটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপিত হতে যাচ্ছে। অন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো এ বিশ্ববিদ্যালয় হবে। অন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে অ্যাকাডেমিক কাউন্সিল যেভাবে হয় এ বিশ্ববিদ্যালয়েও সেভাবে হবে। তিনি জানান, বিশ্ববিদ্যালয়টির চ্যান্সেলর থাকবেন রাষ্ট্রপতি। এদিকে চাঁদপুরের কৃতিসন্তান শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এমপির সহযোগিতায় সম্প্রতি চাঁদপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় করার বিষয়ে মন্ত্রিসভায় নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে। এ জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনিকে ধন্যবাদ ও অভিনন্দন জানিয়েছেন চাঁদপুরবাসী।

আর পড়তে পারেন