রবিবার, ২৫শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

চাঁদপুরে নিত্যপণ্যের বাজারে অস্থিরতা : দিশেহারা ক্রেতা সাধারণ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ১২, ২০২০
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

চাঁদপুরে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য দিনে দিনে বেড়েই চলেছে। গত এক মাসের ব্যবধানে অনেক রকম নিত্যপণ্যের মূল্য অব্যাহতভাবে বেড়েছে।এতে চাঁদপুরের সবগুলো বাজারেই নিত্যপণ্যের বাজারের অস্থিরতা কিছুতেই কাটছে না যেনো।

চাল-আলু-পেঁয়াজসহ শাক সবজির দাম আকাশছোঁয়া। এতে চরম ক্ষুব্ধ সাধারণ মানুষ। বেশ কয়েকদিন ধরে নিরবে বেড়েই চলছে চাল, পেঁয়াজ, আলুসহ শাক সবজির বাজার।

প্রকারভেদে চালের দাম কেজিতে বেড়ে যায় ১০ থেকে ১৫ টাকা পর্যন্ত। বরাবরের মতো পাইকার-মিল মালিক একে অপরকে দুষছে। পেঁয়াজের বাজারেও কোনও সুখবর নেই। আমদানি হলেও কারসাজি থেমে নেই। তাই দেশি পেঁয়াজ প্রায় নব্বই থেকে এক’শ টাকা।

সোমবার (১২ অক্টোবর) চাঁদপুরের কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা যায়, চাল প্রকারভেদে প্রতি কেজি ৪৮ থেকে ৫৫ টাকা, আদা ২৩০-২৫০ টাকা, গোল আলু ৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। অথচ বিগত কয়েক বছরের তুলনায় এই প্রথম আলুর সর্বোচ্চ দামে ক্রয় বিক্রয় হওয়ার রেকর্ড গড়েছে। এছাড়াও কাঁচা বাজারের সকল শাক সবজির দাম নিরবে বেড়েই চলছে। কাঁচা মরিচ কেজি প্রতি ২২০-২৫০ টাকা, করলা ৭৫-৮০ টাকা, শষা ৭০-৭৫ টাকা, সিম ১২০-১৪০ টাকা, টমেটো ১০০-১১০ টাকা, গাজর ৮০-৯০ টাকা, চড়া ৪০ টাকা, বরবটি ৮০-৯০ টাকা, বেগুন ৮০-১০০ টাকা, দুন্দুল ৬০ টাকা, পটল ৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, সরবরাহ স্বাভাবিক থাকলে সামনের দিনে পেঁয়াজসহ সব ধরনের কাঁচাপণ্যের দাম আরও কমবে। মোকামে জিনিসপত্রের মূল্য বেড়ে যাওয়ায় খুচরা বাজারেও এর প্রভাব পড়েছে। নানা অযুহাতে বেড়েই চলেছে সবিজর দাম। কোনো সবজির দাম একবার বাড়লে কমার সম্ভাবনা যেনো একেবারেই কম।

নিত্যপয়োজনীয় এসব পণ্যের মনগড়া দাম বৃদ্ধি নিয়ে ক্রেতারা চরম ক্ষোভ প্রকাশ করছেন। এদিকে দ্রব্যমূল্যের সঙ্গে জীবনযাত্রার সম্পর্ক অত্যন্ত নিবিড়। একটি পরিবার কীভাবে তাদের দৈনন্দিন জীবনকে নির্বাহ করবে তা নির্ভর করে তাদের আয়, চাহিদা এবং দ্রব্যমূল্যের ওপর। প্রয়োজনীয় প্রতিটি পণ্যের মূল্য যখন সহনীয় পর্যায়ে এবং সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে থাকে, তখন তাদের জীবন কাটে স্বস্তিতে।

অন্যদিকে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য যখন সাধারণ মানুষের আর্থিক সঙ্গতির সঙ্গে অসামঞ্জস্যপূর্ণ হয়ে যায়, তখন দরিদ্র এবং অতিদরিদ্র পরিবারে শুরু হয় অশান্তি। তাই দ্রব্যমূল্যের বাজার নিয়ন্ত্রণ জরুরী হয়ে পড়েছে চাঁদপুরে প্রত্যন্ত অঞ্চলসহ জেলার ছোট বড় সকল বাজারে।

আর পড়তে পারেন