বুধবার, ১৫ জুলাই, ২০২০

চাঁদপুরে করোনা ভাইরাস নিয়ে ফেসবুকে গুজব সৃষ্টিকারি ব্যবসায়ী আটক

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ২৩, ২০২০
news-image

 

মাসুদ হোসেন, চাঁদপুর:
বিশ্ব মহামারি করোনাভাইরাসের কারনে হিমসিম খেয়ে যাচ্ছে সারাবিশ্ব। আর এটাকে পূঁজি করে কিছু অসাধু মানুষ সৃষ্টি করছে গুজব। কোভিড-১৯ করোনাভাইরাস নিয়ে মৃতের সংখ্যা ১৮ সম্পর্কিত একটি ভুয়া ও মিথ্যা তথ্য সৃষ্টিকারী ভিডিও ক্লিপ ফেসবুকের মাধ্যমে গুজব ছড়ানোর অপরাধে চাঁদপুরে খাজা মোহাম্মদ মাকসুদ নামে এক ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ।

সোমবার (২৩ মার্চ) বিকেলে চাঁদপুর জেলা পুলিশের ফেসবুক পেজে প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানানো হয়।

গুজব সৃষ্টিকারী ওই ব্যক্তি চাঁদপুর সদর উপজেলার ইসলামপুর গাছতলা গ্রামের খাজা মোহাম্মদ অলিউল্লার পুত্র। গুজব সৃষ্টিকারী মোহাম্মদ মাকসুদ চাঁদপুর শহরের বাসস্টান্ডে অবস্থিত ফয়সাল শপিং কমপ্লেক্সের ২য় তলায় সায়মন ডিজিটাল হাউজ এন্ড অফসেট প্রেস এর সত্ত্বাধিকারী বলে জানিয়েছে পুলিশ।

সোমবার (২৩ মার্চ) দুপুর পৌনে ১টায় চাঁদপুর জেলা পুলিশ সুপার মোঃ মাহবুবুর রহমান পিপিএম এর নির্দেশে ও জেলা গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) অফিসার ইনচার্জ মোঃ নূর হোসেন মামুন এর নেতৃত্বে এসআই মোঃ রেজাউল করিন সঙ্গীয় ফোর্সদের নিয়ে আসামীর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান হতে আটক করা হয়।আটকের পূর্বে তার ব্যবহৃত মোবাইলফোন যাচাই করে ইউটিউব এ আপলোড দেওয়া চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ এর ডাক্তার ইফতেখার আদনান কর্তৃক মোবাইল ফোনে বলা করোনা ভাইরাসে একদিনে চট্টগ্রামে মৃতের সংখ্যা ১৮-১৯ জন উল্লেখতি একটি মিথ্যা, ভুয়া ও গুজব সৃষ্টিকারী ভিডিও ক্লিপ গত শনিবার (২১ মার্চ) সন্ধ্যা ৭টা ১০ মিনিটে শেয়ার এর মাধ্যমে প্রচার করে জনমনে অস্থিরতা বা বিশৃংখলা সৃষ্টি করে আইন শৃংখলা অবনতি ঘটানোর উপক্রম করায় ব্যবহৃত মোবাইলসহ তাকে গ্রেফতার করা হয়। উক্ত আসামীর বিরুদ্ধে ২৩ মার্চ ২০২০ তারিখে চাঁদপুর সদর মডেল থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ২০১৮ এর ৩১ (২) ধারায় রুজু করা হয়েছে। মামলা নং-৪৮।

উক্ত আসামীর বিরুদ্ধে নিম্নোক্ত নাশকতার ৪টি মামলা সমূহ বিজ্ঞ আদালতে বিচারাধীন আছেঃ চাঁদপুর সদর মডেল থানায় গত ৩ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে ধারা- ১৪৩/ ১৪৭/ ১৪৮/ ১৪৯/ ৩৩২/ ৩৩৩/ ৩০২/ ৪২৭/ ৩৪ ধারায় মামলা করা হয়েছে। মামলা নং- ৬, একই দিনে ১৯০৮ সনের বিস্ফোরকদ্রব্য আইনের ৩/৬ ধারায় মামলা হয়েছে। মামলা নং-৭। একই বছরের ২২ ফেব্রুয়ারী তারিখে, ১৪৩/ ৩৫৩/ ৩৩২/ ৩০৭/ ৩৩৪/ ৩৪ ধারায় মামলা হয়েছে। মামলা নং-৪৪, একই দিনে ১৯৭৪ সনের বিশেষ ক্ষমতা আইনের ১৬(২) ধারায় আরেকটি মামলা হয়েছে। মামলা নং-৪৫।

আর পড়তে পারেন