বুধবার, ২৫শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

কোভিড পেন্ডেমিকে ডায়াবেটিস প্রতিরোধ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ১৩, ২০২০
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

আসছে ১৪ নভেম্বর ২০২০.বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস।ডায়াবেটিস বর্তমানে এক মহামারীর নাম সেই সঙ্গে যুক্ত হয়েছে করোনা মহামারী, দুই মহামারী মিলে সারা পৃথিবী আজ একাকার।করোনায় লন্ডভন্ড হয়েছে সারাপৃথিবীর আর্ত সামাজিক প্রেহ্মাপট,ধ্বংস হয়েছে বিশ্ব অর্থনীতি ।বাংলাদেশে এ মুহূর্তে প্রায় ৭১লহ্ম মানুষ ডায়াবেটিস রোগে আক্রান্ত।

২০৪০ সালের মধ্যে তার পরিমাণ হবে দ্বিগুণ।প্রায় ৫০ % মানুষ জানেই না যে তারা ডায়াবেটিস রোগে আক্রান্ত। দেখা যায় কোন একটা বড় অসুখে আক্রান্ত হওয়ার পর তাদের ডায়াবেটিস ধরা পড়ে।সাধারণত বলা হয় সারা পৃথিবীতে প্রতি ১০ জনে একজন ডায়াবেটিসে আক্রান্ত।

কোভিড মহামারীতে এরা মস্ত ঝুকিতে আছে, যেহেতু ডায়াবেটিস আছে সেই সাথে বিভিন্ন রকম সমস্যা হাইপারটেনশন, হৃদরোগ থেকে শুরু করে অন্যান্য রোগে সহজে আক্রান্ত হচ্ছে। যেহেতু কোমরভিডিটি আছে সেহেতু করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর হার অধিক।

একমাএ সচেতনায় পারে আমাদের সুস্থ রাখতে।এ বছরে ডায়াবেটিস দিবসের প্রতিবাদ্য বিষয় হলো ডায়াবেটিস চিকিৎসা ও প্রতিরোধে স্বাস্থ্য সেবি হিসাবে নার্সদের ভুমিকা।।আপনারা অলরেডি জানেন অসংখ্য চিকিৎসক,নার্স,স্বাস্থ্যসেবাকর্মীরা ফ্রন্টলাইন ফাইটার হিসাবে নিজের জীবনকে তুচ্ছ করে অসহায় রোগীদের চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছেন এই কোভিড মহামারিতে। অনেকে কোভিড রোগীদের চিকিৎসা দিতে দিতে নিজে আক্রান্ত হচ্ছেন, এমনকি মৃত্যুবরণ করেছেন। আমি আজ পৃথিবীর সকল চিকিৎসক, নার্স,স্বাস্থ্যসেবাকর্মীদের সালাম জানাচ্ছি। সম্মান জানাই প্রিয় কমরেড।।

ডায়াবেটিস প্রতিরোধে করণীয়ঃ

মানুষের খাবার থেকে তৈরী হয় গ্লুকোজ যা রক্তের মাধ্যমে শরীরে বিভিন্ন অংশে পৌঁছে যায়।ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগীর শরীর তৈরি হওয়া গ্লুকোজ শরীরে সম্পুর্ণ্য ভাবে ব্যবহার হয় না।তখন গ্লুকোজ রক্তে জমা হয়ে স্বাভাবিকের চেয়ে বেশী রক্ত ঘন করে।এই ঘন রক্ত রক্তনালিতে রক্ত চলাচলে বাধা দেয়।তখন রক্ত অক্সিজেন টিস্যুতে পৌঁছাতে পারে না,তখন টিস্যুর মৃত্যু হয় আস্তে আস্তে অংগহানী ঘটায়, এমনকি অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস মৃত্যু পর্যন্ত ডেকে আনে। তবে সচেতনতা ডায়াবেটিস থেকে রহ্মা পেতে সাহায্য করে।গবেষণায় দেখা গেছে ৭০ % ক্ষেত্রে ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করা সম্ভব।

প্রতিরোধের উপায়ঃ

ডায়াবেটিসের ঝুকি এড়াতে অতিরিক্ত ফ্যাট,ফাস্টফুড,চকলেট, কোমল পানীয় বন্ধ করে প্রচুর পরিমানে সবুজ শাকশব্জী ফলমুলের দিকে নজর দিতে হবে।কারণ সবুজ শাকসবজীতে প্রচুর পরিমানে এন্টিঅক্সিডেন্ট,ফাইবার থাকে যা ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করে।প্রতিদিন কমপহ্মে ৩০-৪০ মিনিট হাঁটার অভ্যাস করতে হবে এবং কোভিড সিচুয়েশনে এই হাঁটা ঘরে,কিংবা ছাদে হাঁটাই যথেষ্ট। বাইরে বের না হওয়াই ভালো। সেই সাথে ধূমপান ও মদ্যপান পরিহার করতে হবে।যেহেতু কোভিড সিচুয়েশনে, ডায়াবেটিসের কারণে কোমরভিডিটি আছে সেজন্য দরকার ছাড়া কোন অবস্থায় বাসার বাইরে যাওয়া বন্ধ করতে হবে।বাজার ও নিত্য প্রয়োজনীয় কাজের জন্য বাসার অপেক্ষাকৃত সুস্থ ব্যাক্তিকে পাঠানো উচিত। যদি বাসা থেকে বের হতেই হয় সঠিক পদ্ধতিতে মাস্ক পরিধান করতে হবে সেই সংগে সোশ্যাল ডিস্টেন্সিং এবং একটু পর পর সাবান কিংবা হেক্সিসল,হেক্সিক্রাভ হাত ধুতে হবে।খেয়াল রাখতে হবে বাইরে থাকা অবস্থায় কোন ভাবেই নাক মুখ চোখে হাত দেওয়া যাবে না।

ডায়াবেটিস চিকিৎসাঃ

চিকিৎসকের পরামর্শমতো নিয়মতান্ত্রিক খাদ্যেভাস,জীবনযাত্রা, ব্যায়াম ঔষধ নিয়মিত মানতে হবে। কোভিডের কারণে কখনওই এ নিয়ম অমান্য করা যাবে না।

নিয়ন্ত্রণ করুন এবিসিঃ

ডায়াবেটিস হলে মাথার ব্রেইন থেকে শুরু করে পা পর্যন্ত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়।তাই এবিসি নিয়ন্ত্রন করতে হবে। এখানে এ হলো এইচ বি এওয়ানসি,বি হলো ব্লাডপ্রেসার, সি হলো অতিরিক্ত কোলেস্টেরল। ডায়াবেটিস রোগীর শর্করা নির্নয়ে খালি পেটে ও খাওয়া র ২ ঘন্টা পর রক্তের শর্করা নির্নয় করা হয়।কিন্তু গত ৩ মাসে রক্তে গ্লুকোজের পরিমান জানা যায় না।এইচ বি এওয়ানসি দিয়ে ৩ মাসের শর্করার গড় পরিমান জানা যায়।যদি এইচবিএওয়ানসি ৬.৫ কম হয় তার মানে হলো সংশ্লিষ্ট ব্যাক্তির ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে আছে।।কোভিড সিচুয়েশনে সচেতনতা কেবল আমাদের বাঁচাতে পারে।সর্বপরি আপনার সুস্থতা হোক আপনার পরিবারের জন্য অংগীকার।

ডাঃ অংকুর দও
ডায়াবেটিস, ফ্যামিলি মেডিসিন ও প্রিভেনটিভ মেডিসিন বিশেষজ্ঞ
সিনিয়র লেকচারার, ইস্টার্ন মেডিকেল কলেজ কুমিল্লা।
চেম্বারঃ সিডি প্যাথ হাসপাতাল।

আর পড়তে পারেন