রবিবার, ২৫শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লা ইপিজেড এলাকায় পরিবেশ আইন অমান্য করে পুকুর ভরাট করছে প্রবাসী ব্যবসায়ী

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ১৫, ২০২০
news-image

স্টাফ রিপোর্টার:
কুমিল্লা মহানগরীর ২০ নং ওয়ার্ডের ইপিজেড এলাকায় পরিবেশ আইনের তোয়াক্কা না করেই পুকুর ভরাট করছে প্রবাসী ব্যবসায়ী পিন্টু খান।

কুমিল্লা জেলার লাকসাম থানার নরপাটি গ্রামের ছেলে এনামুল হক ওরফে পিন্টু খান সৌদি আরব প্রবাসি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, পিন্টু খান চলতি বছর কুমিল্লা সিটির ইপিজেড এলাকায় মানুষের নিত্য দিনের ব্যবহৃত প্রায় ১০ শতক পরিমাণ একটি পুকুর কিনেন । এই এলাকায় শতক প্রতি জায়গার মূল্য সর্বোচ্চ ২০ লাখ টাকা হলেও পিন্টু খান প্রতি শতক ৩১ লাখ টাকা দিয়ে কিনেছেন। পুকুরটিকে কেনার পর তা ভরাট করার জন্য পরিত্যাক্ত বলে পরিগণিত করতে নানা বর্জ্য ও আবর্জনা ফেলতে থাকেন । কেননা বর্জ্য ও আবর্জনা ফেললে এক পর্যায়ে আশেপাশের প্রতিবেশিদের পক্ষ থেকে জায়গাটি পরিস্কারের প্রস্তাব আসবে। প্রথমে পুকুরে বর্জ্য ফেলে, তারপর এখন মাটি দিয়ে পুকুরটি ভরাট করছে পিন্টু খান। পুকুরের চারপাশে প্রাচীর দিয়ে ফটক স্থাপন করে এখন ভরাট চলছে।

পুকুর ভরাটের বিষয়ে জানতে পিন্টু খানের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বার বার বিষয়টি এড়িয়ে যান। এক পর্যায়ে তিনি গণমাধ্যমকে রাজনীতিবিদের দোহাই দিয়ে বলেন, আমি বসের সাথে কথা বলা ছাড়া এ বিষয়ে কোন কথা বলবোনা।

বিভিন্ন মহল থেকে জানা যায়, যে কোন জায়গা বাজার দর থেকে কয়েক গুণ বেশি টাকা দিয়ে তিনি জায়গা ক্রয় করে ফেলেন। এতে করে আশেপাশের মানুষের জন্যও জায়গা ক্রয় বিক্রয় করতে অনেক সমস্যা হয়। এদিকে নগরীজুড়ে পুকুর ভরাটের মহোৎসব চললেও রহস্যজনক কারণে নিরব ভূমিকা পালন করছেন কুমিল্লা পরিবেশ অধিদপ্তর ও কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষ।

এ বিষয়ে স্থানীয় কুসিক কাউন্সিলর সুরুজ মিয়া জানান, পুকুর ভরাট বিষয়ে আমার জানা নেই। তারা আমাকে জানায়নি।

আর পড়তে পারেন