মঙ্গলবার, ৪ আগস্ট, ২০২০

কুমিল্লায় ৬৯ হাজার টাকায় কবিরাজের কিডনি রোগের চিকিৎসা, ২ দিন পরেই রোগীর মৃত্যু

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ৫, ২০২০
news-image

মাহফুজ আহম্মেদ:
কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার কংশনগর মোল্লা বাড়ী এলাকায় শাহজালাল হুজুর নামে এক কবিরাজের খপ্পরে সর্বশান্ত  অনেক গরীব পরিবারের সদস্যরা ।

জানা যায়, মুরাদনগর উপজেলার উড়িস্বর পূর্বপাড়া গ্রামের ৬৬ বছরের বৃদ্ধ বাচ্চু মিয়ার একমাত্র ছেলে শাহজাহান আশিক(৩৮) দীর্ঘদিন কিডনি রোগে আক্রান্ত হওয়ার পর বিভিন্ন ভাবে জমি –বন্ধক রেখে ছেলের চিকিৎসা করে যাচ্ছিলেন । নিয়মিত ডাক্তার দেখানোসহ বেশ ব্যায়বহুল হতে লাগলো শাহজাহান এর চিকিৎসা খরচ । পরে রাছেল নামে স্থানীয় এক দালালের খপ্পরে পরে শরনাপন্ন হোন কংশনগর মোল্লা বাড়ীর আধ্যাত্বিক  হুজুর শাহজালালের কাছে ।

ভন্ড কবিরাজ শাহজালাল ৬৯ হাজার টাকায় কিডনি রোগের সম্পূর্ণ চিকিৎসা করে দিবে বলে বৃদ্ধ বাচ্চু মিয়াকে প্রতিশ্রুতি দেয় । তারই ধারাবাহিকতায় পরের দিন সিএনজি অটোরিক্সা করে বাচ্চু মিয়ার গ্রাম উরিশ্বরে যান ,সেখান তিনি শুরু করেন তার আধ্যাত্বিক চিকিৎসা । বিভিন্ন জায়গা থেকে উদ্ধার করেন একের পর তাবিজ । দুপুরের খাওয়ার পর দেশী মুরগী জবাই করে সেই মুরগীর রক্ত দিয়ে তাবিজ বানিয়ে অসুস্থ শাহজাহান এর গলায় ঝুলিয়ে দিয়ে আসে । সেই সাথে চুক্তি অনুযায়ী চিকিৎসার ৪০ হাজার টাকা নগদ বুঝে পেয়ে চলে আসেন । সেই সাথে বাকী ২৯ হাজার টাকা ২ দিনের মধ্যে পরিশোধ না করলে ছেলে হারা হবেন বৃদ্ধ বাচ্চু মিয়া এমন কথা বলে আসেন। ২দিন পরই  রাত ১০ টার দিকে মৃত্যু হয় অসহায় বৃদ্ধের একমাত্র সন্তান শাহজাহান আশিকের । এমন ঘটনার পর এলাকায় সাধারণ মানুষের মাঝে সৃষ্টি হয় মিশ্র প্রতিক্রিয়া ।

এলাকা বাসী বলছে হুজুরের অপচিকিৎসায় বহু মানুষের শারিরীক ও আর্থিক ক্ষতি হয়েছে ।

এ বিষয়ে বৃদ্ধ বাচ্চু মিয়ার কাছে জানতে চাইলে ,হাউমাউ করে কেঁদে উঠেন তিনি । একমাত্র ছেলের মৃত্যুতিনি কোনো ভাবেই মেনে নিতে পারছেন না । তিনি বলেন, হুজুরের কথামত ডাক্তারের দেওয়া কোনো ঔষুধ খেতে দেইনি আমার ছেলেকে । দীর্ঘদিন যাবত আমার ছেলে কিডনি রোগে আক্রান্ত ,সহায় সম্বল যা ছিল তা দিয়ে চিকিৎসা করেছি । পরে হুজুরের দেওয়া প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী সুদে টাকা ধার করে দিয়েছি। যার ফল বাবার কাঁধে  ছেলের লাশ । আমার ছেলের স্ত্রীসহ তিনটি মেয়ে আছে আমি এখন কোনো পথ খুজে পাচ্ছিনা । হুজুরের অপ-চিকিৎসায় আমার ছেলের মৃত্যু হয়েছে।

স্থানীয়ারা জানায়, নিয়মিত প্রতিদিন অর্ধশত রোগীর চিকিৎসা করে থাকেন শাহজালাল হুজুর । কিছু সংঘবদ্ধ  দালাল চক্র তার কাছে রোগী নিয়ে আসে ,কেউ উপকার পায়,আবার কেউ পায় না।

এ বিষয়ে শাহজালাল হুজুর বলেন ,সব রোগের চিকিৎসক আল্লাহ্ । আমি মাত্র উছিলা । বাচ্চু মিয়া আমার কাছে এসেছে । আমি তার বাড়ীতে গিয়ে চিকিৎসা দিয়ে এসেছি,চিকিৎসা খরচ বাবদ আমাকে ৪০ হাজার টাকা দিয়েছে । হায়াত রিজিক মৃত্যু সব আল্লারহর হাতে । আমি চেষ্টা করেছি । তবে টাকা ফেরতে বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সামান্য কিছু সহযোগিতা ছাড়া আমার তেমন বেশি করার নেই ।

এদিকে ছেলে হারা বৃদ্ধ বাচ্চু মিয়া জানান, কিডনি রোগের চিকিৎসার নামে আমার সাথে এই ধরনের প্রতারণা  করেছে ,আর কারো সাথে যেনো প্রতারণা না করতে পারে সে জন্য আমি আদালতে তার বিরুদ্ধে মামলা করব ।

আর পড়তে পারেন