বৃহস্পতিবার, ৫ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং

কুমিল্লায় বেপরোয়া কিশোরদের ১০ গ্যাং , আতংকিত সাধারণ মানুষ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১৮, ২০১৯
news-image

সাইয়িদ মাহমুদ পারভেজঃ

ওরা সবাই কিশোর-তরুণ। একই স্কুলে লেখাপড়া, একই পাড়া-মহল্লায় বসবাস কিংবা ফেসবুক, বিভিন্ন সূত্রে এরা একত্রিত হয়। গড়ে তোলে ভিন্ন ভিন্ন গ্রুপ। যাকে বলা হচ্ছে গ্যাং। এই টিনএজাররা নানা বাহারি ও চটকদার নাম দিয়ে একেকটি গ্যাংয়ে যুক্ত হয়ে জড়িয়ে পড়ে অপরাধ-অপকর্মে। কুমিল্লায় ভয়ানক আকার ধারণ করেছে এই গ্যাং কালচার।

অন্তত ১০টি গ্যাং বা গ্রুপ আতঙ্কগ্রস্ত করে রেখেছে কুমিল্লাবাসীকে। ওইসব গ্যাংয়ে পর্দার আড়ালে ‘বড় ভাই’রূপী গডফাদার থাকায় তারা দিন দিন বেপরোয়া হয়ে উঠছে। গ্যাং সদস্যরা নিজেদের মাঝে বা আন্তঃগ্যাংয়ের দ্বন্দ্বে জড়িয়ে গত দুই বছরে খুন হয়েছে ছয় কিশোর। আহত হয়েছে অন্তত ৫০ জন। খবর নিয়ে জানা গেছে, কুমিল্লা নগরীতে স্কুল, কলেজপড়–য়া ছাত্রদের বেশিরভাগই এসব গ্রুপ গঠন করে পাড়া-মহল্লায় মাস্তানিতে জড়িয়ে পড়ছে।

ঈগল, আরজিএস, র‌্যাক্স, এক্স, এলআরএন, সিএমএইচ, মডার্ন, রকস্টার, ডিস্কো বয়েজ, বস ইত্যাদি বাহারি ও চটকদার নামে পরিচালিত হচ্ছে এসব গ্যাং। এসব গ্রুপের আবার গ্যাং-লিডারও রয়েছে। তাদের বেশিরভাগ সদস্যই ফেসবুক, ইন্টারনেটে আসক্ত। নেশার মধ্যে গাঁজা, ইয়াবা ও ধূমপানেই বেশি আসক্ত। এসব গ্যাংয়ের মধ্যে ঈগল এবং আরজিএসই সব চেয়ে ভয়ানক।

এ দুটি গ্রুপই নিজেদের মনস্তাত্ত্বিক দ্বন্দ্বে জড়ায় বেশি। কার চেয়ে কে শক্তিশালী এ দ্বন্দ্বে তারা মুহূর্তেই জড়িয়ে পড়ে। আর প্রতিযোগিতা চলে সদস্য সংখ্যা বাড়ানোর। জানা গেছে, শুধু ঈগল গ্যাংয়ের সদস্য সংখ্যাই নয় শ’র বেশি। নগরীর মোগলটুলিভিত্তিক ঈগল গ্যাংয়ের সদস্যদের আচার-আচরণও উগ্র প্রকৃতির। এ গ্যাংয়ে কুমিল্লা জিলা স্কুল ও কুমিল্লা হাইস্কুলের অষ্টম শ্রেণি থেকে দশম শ্রেণির ছাত্ররাই বেশি।

গ্যাংয়ে যোগ না দিলে মোবাইল কেড়ে নেওয়া, টিফিনের টাকা-পয়সা হাতিয়ে নেওয়া, টিফিন ছিনিয়ে খেয়ে ফেলাসহ শারীরিক নির্যাতন চালায় শিক্ষার্থীদের ওপর। এ ছাড়া কুমিল্লা মডার্ন হাইস্কুলের শিক্ষার্থীরা আরজিএস নামে গ্যাং সৃষ্টি করে নগরীর নজরুল অ্যাভিনিউ, তালপুকুর এলাকা, বাগিচাগাঁও, কান্দিরপাড়, ঝাউতলা, ঠাকুর পাড়ায় নিজেদের কর্তৃত্ব তৈরিতে কাজ করছে। কুমিল্লা কালেক্টরেট স্কুল ও কলেজের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে রাজগঞ্জ ও উজিরদীঘি এলাকা। গ্যাংগুলোর অনেক সদস্যের স্কুলব্যাগে ধারালো ছুরি থাকে। থাকে গাঁজা ও সিগারেটের প্যাকেটও।

জানা গেছে, চায়ের দোকান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনের সড়ক এমনকি বিভিন্ন শপিংমলের আশপাশে কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা ঘোরাঘুরি করে। চায়ের দোকানগুলোয় সকাল থেকে সন্ধ্যা অবধি আড্ডায় মেতে থাকে। বিশেষ করে টাউন হল মাঠ ও এর আশপাশের বিভিন্ন চা দোকান ও হোটেলে তাদের আড্ডা, মেয়েদের স্কুল ছুটির সময় পথে দাঁড়িয়ে উত্ত্যক্ত করা যেন রুটিন কাজ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এসব শিক্ষার্থীরা পরিবারের প্রশ্রয় পেয়ে দিন দিন উচ্ছৃঙ্খল ও বিপথগামী ও হয়ে ওঠে। কুমিল্লা মডার্ন হাইস্কুল, জিলা স্কুল, কালেক্টরেট স্কুল ও হাইস্কুল, অ্যাথনিকাসহ নগরীর আরও কিছু স্কুলের বেশিরভগ ছাত্র গ্যাং কালচারে আক্রান্ত হয়ে পড়েছে। এসব গ্যাংয়ের সদস্যরা তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে হুটহাট যে কাউকে আক্রমণ করতে দ্বিধা করে না। গত দুই বছরে তাদের হাতে নিহত হয়েছে ছয় কিশোর।

আহত হয়েছেন অন্তত ৫০ জন। গত ১৩ মে রাত সাড়ে ৯টায় নগরীর মোগলটুলি এলাকায় ঈগল গ্রুপের হাতে খুন হয় আবদুস সাত্তারের একমাত্র ছেলে আজনাইন আদিল (১৭)। এ গ্রুপের তিন সদস্য এ খুনের ঘটনায় গত বুধবার গ্রেপ্তার হয়। আদিলের সঙ্গে কোনো এক গ্রুপের দ্বন্দ্ব ছিল। তাই সে মৃত্যুর আগের দিন তার ফেসবুকে লিখেছিল ‘বিপদ একদিন সবার জন্যই আসবে’। এর আগে, গত ২১ এপ্রিল শবেবরাতের রাতে নগরীতে কিশোর সন্ত্রাসীদের ছুরিকাঘাতে কুমিল্লা মডার্ন হাইস্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র মুমতাহিন হাসান মিরণ নিহত হয়।

পরে এ ঘটনায় দায়ের করা হত্যা মামলায় দুই আসামি মো. আমিন ও সৌরভ হোসেন পল্টুকে চট্টগ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। গত ২১ এপ্রিল বিকালে নগরীর নুরপুর এলাকায় দুই কিশোর ছাত্রের ছুরিকাঘাতে আহত হয়ে ২৩ এপ্রিল মারা যান অটোরিকশাচালক শাহজাহান। অভিযোগ রয়েছে ভাড়া নিয়ে বাগবিত-ার জের ধরে স্কুলছাত্র ইরফান, হৃদয় ও তার সঙ্গীয়রা তাকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়।

গত ১৬ এপ্রিল কুমিল্লা কালেক্টরেট স্কুলের এক ছাত্রের ছুরিকাঘাতে আহত হয় কুমিল্লা জিলা স্কুলের ছাত্র মারুফ। পরে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায় সহপাঠীরা। গত ১০ মার্চ নগরীর দিশাবন্দ এলাকায় ক্রিকেট খেলায় তর্কবিতর্কের একপর্যায়ে সাজ্জাতুল ইসলাম (১৬) নামে এক তরুণকে নগরীর চর্থা এলাকার ইউসুফ নামের এক কিশোর স্টাম্প দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করে।

২০১৮ সালের ১১ জুলাই রাতে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে কুমিল্লা অজিতগুহ কলেজের ছাত্র অন্তুকে (১৮) নগরীর ধর্মসাগরপাড়ে খুন করে তার সহপাঠীরা। প্রেম সংক্রান্ত বিরোধের জেরে তাকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়। ২০১৭ সালের ২৭ মে সন্ধ্যায় নগরীর নজরুল অ্যাভিনিউ এলাকায় ব্রিটানিয়া ইউনিভার্সিটির বিবিএ প্রথম বর্ষের ছাত্র শাহজাদা ইসলামকে নৃশংসভাবে কুপিয়ে জখম করে একটি কিশোর গ্যাং। পরে সে মারা যান।

২৯ মে নিহত শাহজাদার বাবা শহিদ মিয়া বাদী হয়ে স্কুলছাত্র শাফায়েত উল্লাহ শৈকতকে প্রধান আসামি করে সাতজনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেন। আসামিদের সবাই স্কুলছাত্র। ঘটনার পর দিন মডার্ন স্কুলের ৯ম শ্রেণির ছাত্র অর্পণ আশ্চার্য দীপসহ কয়েক ছাত্রকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এ ব্যাপারে কুমিল্লা কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আবু ছালাম মিয়া বলেন, গ্যাং কালচারের লাগাম টেনে ধরতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। জনসচেতনতামূলক কর্মসূচি চালাচ্ছি। অভিভাবকদেরও ভালো ভূমিকা নিতে হবে। সন্তান কোথায় যায়, কী করে, কার সঙ্গে মেলামেশা করে, নিয়মিত স্কুলে-কলেজে যায় কিনা সে বিষয়ে তদারকি করতে হবে।

মোটকথা এসব গ্রুপ বা গ্যাং নিয়ন্ত্রণে কঠোর পদক্ষেপ নিয়েছে পুলিশ। অপরাধী যেই হোক, তাকে ছাড় দেওয়া হবে না। কুমিল্লা-৬ সদর আসনের সংসদ সদস্য, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযেুাদ্ধা আ ক বাহাউদ্দিন বাহার বলেছেন- কুমিল্লার শান্তি নষ্ট হবে এমন কোনো গ্রুপ বা গ্যাং সৃষ্টি হতে দেওয়া হবে না। কিছু কিছু স্কুল শিক্ষার্থী বখাটেদের সঙ্গে নিয়ে বিভিন্ন গ্রুপ তৈরি করে অপরাধের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ছে। তিনি এসব গ্যাং বা গ্রুপ রোধে প্রশাসনকে কঠোর ভূমিকা নিতে নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানান।

আর পড়তে পারেন