শুক্রবার, ১৭ই জানুয়ারি, ২০২০ ইং

কুমিল্লায় প্রচন্ড গরমের সাথে বিদ্যুতের ভেলকিবাজি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১, ২০১৯
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
“সাংবাদিক সাব পল্লী বিদ্যুৎ নিয়া কিছু লেখা লেখি করইন, এতো গরমের মাঝে লোডশেডিং রাত ঘুম আয়না”  রাত ২টার সময় এ প্রতিবেদককে মোবাইল ফোনে কল দিয়ে এমন কথা বলছিলেন এক গ্রাহক। কারন শহর থেকে গ্রামে সর্বত্রই লোডশেডিং।

প্রচন্ড দাবদাহে এমন লোডশেডিংয়ে দুর্ভোগে পড়েছেন মনোহরগঞ্জ উপজেলার কয়েক লক্ষাধীক সাধারণ মানুষ। প্রচন্ড দাবদাহের মধ্যে বিদ্যুতের ঘন ঘন লোডশেডিং যেন ঘুম কেড়ে নিয়েছে কুমিল্লা বাসিন্দাদের। উপজেলা সদরের অফিস পাড়াতেও স্বাভাবিক কাজ কর্ম ব্যাহত হচ্ছে। গেল কয়েক মাস লোডশেডিংয়ের পরিমাণ কম হলেও গত ২ মাস ধরে তা মাত্রাতিরিক্ত বেড়েছে। বিদ্যুতের অভাবে দিনে গোসলের পানি জোগানোও অনেকের জন্য কঠিন হয়ে পড়েছে।

মনোহরগঞ্জ উপজেলার সর্বত্র গত দুই মাস ধরে বিদ্যুতের লোডশেডিং ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। আধা ঘন্টা বিদ্যুৎ সরবরাহ করলে আড়াই ঘন্টা লোডশেডিং করা যেন নিয়মে পরিণত হয়েছে। এ নিয়ে সাধারণ গ্রাহকদের মধ্যে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে।

একদিন দু‘দিন নয় পল্লী বিদ্যুতের ভেলকীবাজী, অনিয়ম ও সেচ্ছাচারিতা এখন কুমিল্লার মানুষের নিয়মিত সমস্যায় পরিনত হয়েছে। সুস্পষ্ট কোন কারন ছাড়াই প্রতিদিন বিদ্যুতের এমন ভেলকীবাজী লুকোচুরি খেলায় জনমনে বাড়ছে মারাত্মক ক্ষোভ।

এ জন্য কর্তৃপক্ষে উদাসীনতা, দায়িত্বহীনতা ও মান্দাতা আমলের বিদ্যুৎ বিতরন ব্যবস্থাকেই দায়ী করেছেন ভুক্তভোগীরা।

কোন কোন সময় এক মিনিটের ব্যবধানে দুই থেকে তিন বার ঘটে এমন ভেলকীবাজীর ঘটনা। অনেক ব্যবসায়ীদের বিদ্যুত দ্বারা চালিত মেশিন বন্ধ থাকে এবং লোডশেডিংয়ের কারনে নষ্ট হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে।

এতে গৃহস্থালি কাজে গৃহিনীদের মারাত্মকভাবে ব্যাঘাত সৃষ্টি হয়। সন্ধ্যার পর বিদ্যুৎ না থাকায় শিশু শিক্ষার্থীদের পড়ালেখাও মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। বিদ্যুৎ না থাকলে সকল শ্রেণী পেশার মানুষকেই ভূগান্তিতে পড়তে হয়, বিশেষ করে সাংবাদিকদের নির্দিষ্ট সময়ে সংবাদ প্রেরনে সমস্যা হয়। মুন্না আরো বলেন, বুধবার সকাল থেকে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত অনন্ত ২০ বার লোডশেডিং করা হয়েছে। সারারাত মনোহরগঞ্জ উপজেলার মানুষ তীব্র গরমে নির্ঘুম রাত কাটিয়েছেন। এ জন্য আন্দোলনের জন্য গ্রাহকরা প্রস্তুতি নিচ্ছেন। এরকম অনেকেই অভিযোগ করে বলেন, দিন-রাত ২৪ ঘন্টার মধ্যে ১০ ঘন্টাও বিদ্যুৎ পাওয়া যায়না।

এ দিকে বরুড়া উপজেলায় বিদ্যুৎ নির্ভর ওয়ার্কসপ, মটর গ্যারেজসহ কম্পিউটার ব্যবসায়ীরা জানান, বিদ্যুতের অভাবে তাদের ব্যবসা লাটে উঠেছে। দৈনন্দিন সংসার খরচ চালাতেই তারা এখন হিমশিম খাচ্ছে। এ ছাড়াও বিদ্যুতের কারণে উপজেলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের রোগীদের মারাত্মক দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। ঠিকমতো পানিও পাওয়া যাচ্ছে না।

কুমিল্লা মনোহরগঞ্জের লিমন চৌধুরী নামের এক ব্যবসায়ী জানান, দু মাস ধরে দিনের বেশির ভাগ সময় বিদ্যুৎ থাকে না। রাতে ১০-১১টার দিকে বিদ্যুৎ এসে ঘণ্টাখানেক থেকে আবার চলে যাচ্ছে। মুঠোফোন, ল্যাপটপ পর্যন্ত ঠিকমতো চার্জ দেওয়া যাচ্ছে না।

তামান্না নামের এক কলেজ ছাত্রী জানান, “ প্রচন্ড গরমের মাঝে লেখাপড়া করা যায় না। বিদ্যুত থাকে না বললেই চলে। এই আসে আবার চলে যায়।

আর পড়তে পারেন