সোমবার, ২০শে জানুয়ারি, ২০২০ ইং

কুমিল্লায় নগর জীবনে গ্রামীণ পিঠার আমেজ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ১৪, ২০২০
news-image

 

মাছুম কামাল:

শীতে পিঠা তৈরীর প্রচলন বাংলাদেশে অনেক আগে থেকেই রয়েছে। বাহারি নামের ও স্বাদের পিঠা রয়েছে আমাদের দেশে। তারমধ্যে উল্লেখযোগ্য পরিচিত ভাপা, পিঠাপুলি, চন্দ্রপুলি, ক্ষীরপুলি, চিতই, পোয়া, পাটিসাপটা, বিভিন্ন রকমের ও স্বাদের নকশা পিঠা ইত্যাদি।

তবে, অন্য অনেক ঐতিহ্যর মত শীতে পিঠা তৈরির রীতিটিও হয়ে গেছে গ্রাম কেন্দ্রিক। তবে, কুমিল্লা নগরীর ইট-পাথরের ভীড়ে সেই ঐতিহ্যের কিছুটা হলেও রেশ ফিরিয়ে দিয়েছে পথের পাশের ছোট-ছোট পিঠার দোকানগুলো।

এ ধরণের দোকানগুলোতে ভাপা আর চিতই পিঠাই বেশী বিক্রি হয়। নগরীর দোকান রয়েছে ঝাউতলা, সিটিপার্ক গেইট, কান্দিরপাড়, শাসনগাছা, ভিক্টোরিয়া কলেজ রোড, রাজগঞ্জসহ বিভিন্ন এলাকায় ছোট-বড় দোকানগুলোতে সন্ধার পর-পর পিঠাপ্রেমীদের দেখার মতো ভীড় থাকে।

সিটি পার্ক গেইটের এক পিঠা বিক্রেতার কাছে গেলাম। তিনি চিতই পিঠা বিক্রি করেন। সঙ্গে থাকে ৭ পদের ভর্তা। সরিষা, রসুন-মরিচ, শুঁটকি, ধনেপাতার ভর্তা দিয়ে ধোয়া ওঠা চিতই পিঠা খেতে দারুণ সুস্বাদু। পাশাপাশি পঞ্চমূখী মাটির উনুন থেকে পিঠা তুলছেন আর ক্রেতারা নিয়ে নিচ্ছেন।
খেতে-খেতে কথা হলো দোকানির সঙ্গে। মানুষের ভীড়ে দম ফেলবার যেনো ফুরসত নেই। জানালেন, প্রতিটি পিঠা ১০টাকা করে বিক্রি করেন। ভর্তা ফ্রি। দৈনিক গড়ে ২০০-৩০০ পিঠা বিক্রি হয় তার।

কথা হয়, রাশেদ নামের একজনের সঙ্গে। তিনি এবং তার বন্ধুরা পাল্লা দিয়ে খাচ্ছেন। হাসতে-হাসতে বলেন, ‘গরম চিতই পিঠা ডেইলি খাইতে আসি। ১০-১৫টা আমরার লাইগ্যা কিছুই না’।

এরপর গেলাম ঝাউতলার দিকে আরেকটি পিঠার দোকানে। এখানে বিক্রেতা একজন। ভ্যানের মধ্যে চুলায় বসিয়ে ভাপা পিঠা বিক্রি করছেন তিনি। তাকে ঘিরে আছেন বেশ কিছু ক্রেতা। প্রতিদিন গড়ে ১০০-১৫০টি পর্যন্ত পিঠা বিক্রি হয় তার। গুড়, নারিকেল আর চালের গুড়া দিয়ে তৈরি এই পিঠা না খেলে নয়। যোগ করেন একজন ক্রেতা।

শীতে এমন ছোট-খাটো পিঠার দোকানগুলি নগর জীবনে যেনো নিয়ে আসে গ্রাম বাংলার আবহমান পিঠা উৎসবের আমেজ।

আর পড়তে পারেন