মঙ্গলবার, ৪ আগস্ট, ২০২০

কুমিল্লায় দীর্ঘ হচ্ছে করোনা উপসর্গে মৃতদের তালিকা: ১৮ দিনে ৭৮ জনের মৃত্যু

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ১০, ২০২০
news-image

নাছরিন আক্তার হীরা:
কুমিল্লায় প্রতিনিয়ত বেড়ে চলেছে করোনা উপসর্গে মৃতদের তালিকা। কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গত ১৮ দিনে (২২ জুন থেকে ৯ জুলাই সকাল পর্যন্ত) কোভিড- ১৯ করোনা ইউনিটে করোনা ভাইরাসের লক্ষণ-উপসর্গ নিয়ে মারা গেছে ৭৮ জন।

বৃহস্পতিবার (৯ জুলাই) কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ (কুমেক) হাসপাতালে করোনা উপসর্গে ৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন, কুমিল্লা নগরীর কান্দিরপাড় এলাকার মিজানুর রহমান (৩৮), কুমিল্লা সদর উপজেলার কালিকাপুর এলাকার ফরিদ উদ্দিনের মেয়ে ফিরোজা বেগম (৬০), কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার তোফাজ্জল হোসেনের মেয়ে রোকেয়া খাতুন (৬৫), কুমিল্লা মনোহরগঞ্জ উপজেলার আবদুল খালেকের ছেলে স্বপন (৩৮), কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার আবদুল্লাহর মেয়ে ফিরোজা বেগম (৬০), কুমিল্লা চৌদ্দগ্রাম উপজেলার ঘনা মিয়ার ছেলে রফিকুল ইসলাম (৬৫) ও চাঁদপুর মতলব উপজেলার নিকিল সরকারের ছেলে নারায়ণ সরকার (৪০)।

৮ জুলাই সকাল ১০ টায় করোনা উপসর্গ নিয়ে কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা মুহম্মদ আজিজুল হক (৪৫)এর মৃত্যু হয়েছে। ঢাকার বাসা থেকে হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয় (ইন্নালিল্লাহে ওয়া ইন্না ইলাহে রাজেউন)। সন্ধ্যা ৬ টায় জানাযা শেষে ফেনী জেলার ফুলগাজী সদরের পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়েছে।

এর আগে ৭ জুলাই কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ (কুমেক) হাসপাতালে করোনা উপসর্গ নিয়ে ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে।

৪ জুলাই দুপুর থেকে ৫ জুলাই সকাল পর্যন্ত কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গত ২৪ ঘন্টায় কোভিড-১৯ করোনা ইউনিটে করোনা ভাইরাসের লক্ষণ-উপসর্গ নিয়ে এক নারীসহ মারা গেছে ৫ জন। হাসপাতালের করোনা ইউনিটের আইসিইউতে ২ জন, করোনা ওয়ার্ডে ১ জন এবং আইসোলেশনে ২ জন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। মৃত ব্যক্তিরা হলেন, নাঙ্গলকোটের আবদুল আলিম (৬৭), বুড়িচংয়ের নুরুজ্জামান (৮৮), নুরজাহান (৮০), ব্রাহ্মনপাড়ার মোশাররফ হোসাইন (৫৩) ও চাঁদপুরের টিপু সুলতান (৪৬)।

৩ জুলাই দুপুর থেকে ৪ জুলাই সকাল পর্যন্ত কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করোনার উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু হয়েছে আরও ৬ জনের। উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন, চাঁদপুর জেলা শাহারাস্তি উপজেলার স্ত্রী নাজমা রহমান (৫০), কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার আবদুল করিম (৭৫), কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ উপজেলার জামাল উদ্দিন (৫৩), গোপালগঞ্জ জেলার লুৎফর নেছা (৬২), কুমিল্লা সদর উপজেলার আবদুল কাদের (৬০)। এছাড়া বাকি একজনের নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি।

২ জুলাই সকাল থেকে ৩ জুলাই সকাল পর্যন্ত কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করোনার উপসর্গ লক্ষণ নিয়ে মারা গেছে ৬ জন।

১ জুলাই দুপুর থেকে ২ জুলাই সকাল পর্যন্ত সময়ে মারা গেছেন ৫ জন। এদের মধ্যে ৪ জন পুরুষ ও ১ জন মহিলা রয়েছে। মৃত ৫ জনই জ্বর, সর্দি, শ্বাসকষ্টসহ করোনা উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালের করোনা ইউনিটের আইসিইউতে ৪ জন ও আইসোলেশনে ১ জন চিকিৎসাধীন ছিলেন। মৃত ব্যক্তিরা হল, ইউসুফ আলী, নাবিল, হাজী জব্বর, দুদু মিয়া ও রিনা আক্তার।

৩০ জুন দুপুর থেকে ১ জুলাই সকাল পর্যন্ত সময়ে করোনার উপসর্গ ও লক্ষণ নিয়ে মারা গেছেন ৬ জন । মৃত ৬ জনই জ্বর, সর্দি, শ্বাসকষ্টসহ করোনা উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ভর্তি ছিলেন।

২৯ জুন দুপুর থেকে ৩০ জুন সকাল পর্যন্ত সময়ে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করোনার উপসর্গ ও লক্ষণ নিয়ে মারা গেছে ৪ জন। এদের মধ্যে ১ জন পুরুষ ও ৩ জন মহিলা। মৃত ব্যক্তিরা হলেন, কুমিল্লা সদরের আইরিন (৮), সেলিম হোসেন (৫৩), সদর দক্ষিণের আয়চান বিবি (৬০) ও চাঁদপুরের নুরজাহান (৬৫)।

২৮ জুন দুপুর থেকে ২৯ জুন সকাল পর্যন্ত মারা যাওয়াদের মধ্যে ৪ জন পুরুষ ও ২ জন মহিলা। মৃত ব্যক্তিরা হলেন, কুমিল্লার চান্দিনার রাফিয়া (৬৫), আতিকা রেজি (৬৭), বরুড়ার তোফাজ্জল হোসেন (৫০), সেলিমুল ইসলাম ভূইয়া, সদরের বিলকিস বেগম (৪৫), মমতাজ বেগম (৫৫) ও আবু তাহের (৬০)।
২৭ জুন দুপুর থেকে ২৮ জুন সকাল পর্যন্ত কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছে ৬ জন। এদের মধ্যে ৪ জন পুরুষ ও ২ জন মহিলা। মৃত ব্যক্তিরা হলেন, কুমিল্লার রাহেলা বেগম, মোস্তফা, নাছিমা বেগম, ফরিদ উদ্দিন, মোসলেম মিয়া এবং চাঁদপুরের মোতাহের হোসেন।

২৬ জুন বিকেল থেকে ২৭ জুন সকাল পর্যন্ত কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালেন করোনা ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছে ৩ জন। ৩ জনই জ্বর, সর্দি, শ্বাসকষ্টসহ করোনা উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালের করোনা ইউনিটে চিকিৎসাধীন ছিলেন। উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন জেলার বুড়িচং উপজেলার বারবী মিয়ার ছেলে আলমগীর হোসেন (৬০), সদর দক্ষিণের সেকান্দর মিয়ার ছেলে মোসলেম উদ্দিন (৬৫) এবং আদর্শ সদর উপজেলার বিবির বাজার এলাকার ইকবাল মজুমদারের ছেলে তানভীর মজুমদার (৪০)।

বৃহস্পতিবার (২৫ জুন) সন্ধ্যা থেকে রাত পর্যন্ত সময়ের মধ্যে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছে ৪ জন। এর মধ্যে ২ জন পুরুষ ও ২ নারী। তাদের বেশির ভাগেরই বয়স ৪৫ থেকে ৭৫ বছর।
মৃত ব্যক্তিরা হলেন, জেলার চান্দিনার ইদ্রিস মিয়া (৬০), আবদুল মান্নান (৬৫), সদরের হনুফা বেগম (৪৬) ও লাকসামের শাহানারা বেগম (৬০)।

মঙ্গলবার (২৩ জুন) দুপুর থেকে বুধবার (২৪ জুন) সকাল পর্যন্ত কুমিল্লায় করোনা উপসর্গ নিয়ে ৪ জন মারা গেছে। এদের মধ্যে ৩ জন পুরুষ ও ১ জন মহিলা।
মৃত ৪ জনই জ্বর, সর্দি, শ্বাসকষ্টসহ করোনা উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালের করোনা ইউনিটে চিকিৎসাধীন ছিলেন। মৃত ব্যক্তিরা হলেন, জেলার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার আব্দুল জলিল, আদর্শ সদর উপজেলার মধুসূদন, হোমনা উপজেলার দুলাল মিয়া ও দাউদকান্দি উপজেলার রুসিয়া ।

মঙ্গলবার (২৩ জুন) সকাল পর্যন্ত হাসপাতালের করোনা ইউনিটে আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় ৪ জন এবং অপর দুই জন মারা যায় আইসোলেশনে। এদের মধ্যে ৫জন পুরুষ ও ১জন মহিলা।
মৃতরা হলেন চাঁদপুরের কচুয়ার দেবীপুরের সিরাজুল ইসলাম (৮৫), কুমিল্লার ঠাকুরপাড়ার পুষ্পা রানী মজুমদার(৬৫), চাঁদপুরের হাজীগঞ্জের অরুন চন্দ্র (৮০), কুমিল্লার দুর্গাপুরের আবদুল মান্নান (৯৬), কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়ার আব্দুল আজিজ (৩৪) , কুমিল্লার দেবীদ্বারের বিএনপি নেতা ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মনিরুল ইসলাম (৭০)।

সোমবার (২২ জুন ) কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা ইউনিটে করোনা ভাইরাসের লক্ষণ-উপসর্গ নিয়ে মারা গেছে আরো ৬ জন। হাসপাতালের করোনা ইউনিটে আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় ৫ জন এবং অপর একজন মারা যায় আইসোলেশনে।
মৃত ব্যক্তিরা হলেন , কুমিল্লা সদর উপজেলার পারভীন আক্তার, সদর দক্ষিন উপজেলার মোস্তাক আহমেদ, হাজী মোঃ আবুল হোসাইন, মোসলেম। এছাড়া চাঁদপুর জেলার সদর উপজেলার আলমগীর হোসেন ও হাজীগঞ্জ উপজেলার নজরুল ইসলাম।

এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারি সার্জন ডা. মুক্তা রাণী।

আর পড়তে পারেন