সোমবার, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

কুমিল্লায় চাল সংগ্রহে কমিশন বাণিজ্য ও ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ১৬, ২০১৮
news-image

 

সেলিম সজীবঃ

কুমিল্লায় সরকারিভাবে চাল সংগ্রহ কার্যক্রমে কমিশন বাণিজ্য, ঘুষ নেওয়ার মাধ্যমে নিম্নমানের চাল ক্রয় ও ভুয়া মিলের নামে বরাদ্দ দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কার্যালয়ের কিছু কর্মকর্তার যোগসাজশে ধান চাল সংগ্রহ করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয় ব্যবসায়ী ও কৃষক। তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক ফারুক হোসেন বলেছেন, ‘কমিশন বাণিজ্য ও উৎকোচের মাধ্যমে ধান চাল সংগ্রহের অভিযোগ মিথ্যা। এছাড়া লাইসেন্সবিহীন ভুয়া চালকল থেকেও খাদ্য সংগ্রহ করা হয়নি।’

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ধান চাল ক্রয় অভিযানে কতিপয় প্রভাবশালী নেতা ও মিল মালিকদের ভাগাভাগির কোন্দলে চাল সংগ্রহে জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে। এতে জেলায় বোরো মৌসুমে ধান চাল সংগ্রহ অভিযান ব্যর্থ হতে চলেছে। খাদ্য নিয়ন্ত্রক সূত্রে জানা যায়, ভরা মৌসুমে বোরো ধান ও চাল সংগ্রহে সরকারের লক্ষ্যমাত্রা অনুসারে কুমিল্লা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের বরাদ্দ ছিল ১৪ হাজার ৪২ মেট্রিক টন, তার মধ্যে আতপ চাল ১২ শ’ ৮৮ মেট্রিক টন। নির্ধারিত মেয়াদ অনুসারে, বোরো মৌসুমে ধান ও চাল সংগ্রহে ১ আগস্ট মেয়াদ শেষ হলেও এখন পর্যন্ত প্রায় ৪৫ ভাগ চাল সংগ্রহে পিছিয়ে আছে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক। তালিকা অনুসারে, ১৪ হাজার ৪২ মেট্রিক টন খাদ্যের মধ্যে এখন পর্যন্ত মাত্র ৯ হাজার ১ শ’ ১৪ মেট্রিক টন চাল সংগ্রহ করা হয়েছে। এসব চাল কুমিল্লার বিভিন্ন উপজেলার তালিকাভুক্ত ৭০টি চাল কল থেকে সংগ্রহ করা হয়।

খাদ্য নিয়ন্ত্রক সূত্রে আরও জানা যায়, কুমিল্লার ১৭টি উপজেলার মধ্যে মনোহরগঞ্জ, সদর দক্ষিণ, তিতাস, মেঘনা ও লালমাই উপজেলায় কোনও খাদ্যগুদাম নাই। তবে অন্য উপজেলাগুলোতে ১৪টি গুদাম রয়েছে। সরকারের নির্দেশ অনুযায়ী, ১৭টি উপজেলায় খাদ্য সংগ্রহের বরাদ্দ থাকলেও নেই পর্যাপ্ত গুদাম।

মিজানুর রহমান, মোবারক হোসেনসহ একাধিক কৃষক জানান, সরকারি নিয়ম অনুযায়ী, ধান কৃষকের কাছ থেকে এবং চাল মিলারদের কাছ থেকে কেনার নিয়ম। তারপরও ধান মধ্যস্বত্বভোগী ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে কেনা হচ্ছে। এতে কৃষক ফসলের ন্যায্য মূল্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক কর্মকর্তা জানান, জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের তালিকাভুক্ত ৭০টি চাল কলের মধ্যে একাধিক মিল মালিকের লাইসেন্স বা চুক্তিপত্র নেই। নেই আতপ চাল উৎপাদন কলও। মিলাররা সরকারের কাছে চাল বিক্রি করতে চাইলে ওই দফতরের সহকারীর কাছে টন প্রতি এক হাজার টাকা জমা দিয়ে চুক্তিবদ্ধ হতে হচ্ছে। এই টাকা না দিলে তাদের নানা ধরনের হুমকি ও হয়রানি করা হচ্ছে। ফলে মিলাররা টাকা পরিশোধে বাধ্য হচ্ছেন। গুদামের কর্মকর্তারাও টন প্রতি ৫ শ’ টাকা উৎকোচ নেয়ার পর গুদামে চাল সংগ্রহ করছেন। এ টাকা ঘুষ না দিলে মিলারদের নানাভাবে হয়রানি করা হয়। এভাবে মিলাররা তাদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছেন।

এছাড়া জেলার বিভিন্ন গুদামে নিয়মবহির্ভূতভাবে গম সংগ্রহ করা হয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। কৃষকদের কাছ থেকে গম কেনার নীতিমালা থাকলেও তা না মেনে গম ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে নিম্নমানের গম কেনা হয়েছে। এতে কৃষক ফসলের ন্যায্য দাম পাচ্ছেন না।

কুমিল্লা জেলা চাল কল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম জানান, লাইসেন্স বা চুক্তিপত্রবিহীন মিলারদের কাছ থেকে খাদ্য নিয়ন্ত্রক চাল সংগ্রহ করছে কিনা তা জানি না। আমাদের মিলারদের বরাদ্দকৃত চাল যথাসময়ে গুদামে পৌঁছে দিতে চেষ্টা করি। চুক্তিবদ্ধ মিলারদের হয়রানির অভিযোগ আমাদের কাছে নেই।

সব অভিযোগ অস্বীকার করে কুমিল্লা জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মো. ফারুক হোসেন বলেন, ‘কমিশন বাণিজ্য ও উৎকোচের মাধ্যমে ধান চাল সংগ্রহের অভিযোগ মিথ্যা। আমরা কোনও লাইসেন্সবিহীন ভুয়া চালকল থেকে খাদ্য সংগ্রহ করি নাই। আমাদের বরাদ্দকৃত চাল সংগ্রহের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে অবশিষ্ট চাল ও ধান সংগ্রহ করতে

আর পড়তে পারেন