বুধবার, ৫ আগস্ট, ২০২০

কুমিল্লায় চাঞ্চল্যকর সবুজ হত্যা মামলা: তিন মাসেও গ্রেপ্তার হয়নি মূল আসামী

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১, ২০১৯
news-image

মাছুম কামালঃ
কুমিল্লায় সবুজ হত্যা মামলার তিনমাস পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত গ্রেপ্তার হয় নি কোনো মূল আসামী। এদিকে মানবেতর জীবন-যাপন করছে সবুজের পরিবার। তার চিকিৎসার জন্য একমাত্র বসতভিটা বন্ধক রেখে ২ লক্ষ টাকা নেয় পরিবারটি। এছাড়াও আত্মীয়স্বজনের কাছ থেকে আরও আট লক্ষ টাকা সবুজের চিকিৎসার জন্য ব্যয় করে তার পরিবার। এখন ধারকৃত অর্থ শোধ করতে পারছেন না তারা। সরেজমিনে সবুজের পরিবারের সাথে কথা হলে এই প্রতিবেদকের সাথে আক্ষেপ করে এভাবেই বলেন সবুজের মা নূরজাহান বেগম।

এসময় সবুজের বড় ভাই রুবেলে অভিযোগ করে বলেন, ‘সবুজ হত্যা মামলায় আমরা কোনো বিচার পাচ্ছি না।  কুমিল্লায় ইদানীং কয়েকটি মামলায় দ্রুত আসামীদের গ্রেপ্তার করলেও তাদের বেলায় তা সম্ভব হচ্ছে না কেনো? এমন প্রশ্ন রাখেন তিনি।

এ বিষয়ে মুঠোফোনে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতায়ালি মডেল থানার এস আই(উপ-পরিদর্শক) ইমাম হোসেন  জানান, ‘আমরা তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছি। এছাড়াও একটি গোপন অভিযান পরিচালনা করব শীঘ্রই এবং মামলার সঠিক চার্জশীট দাখিল করব’।

তবে, খোঁজ নিয়ে জানা গেছে অভিযুক্ত আসামীদের মধ্যে কাউকে গ্রেপ্তার না করলেও সবুজের পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে আসামী পক্ষের ৩জনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে। কিন্তু ওই সময়ে হত্যা মামলা দায়ের না হওয়ায় তিনজনই সাধারণ জামিন নিয়ে বেরিয়ে আসে। বর্তমানে তারা সবাই পলাতক রয়েছে।

সবুজের পরিবার থেকে বলা হয়েছে, স্থানীয় সাবেক চেয়ারম্যান ফখরুল ইসলাম রুবেল ও ইউপি সদস্য রেজাউল করিম রাজন এর মধ্যস্থতায় আসামীপক্ষ ৭ লক্ষ টাকায় মীমাংসার চেষ্টা চালালেও রাজী হন নি তারা। তারা বলেন ‘একজনের জীবনের মূল্য কি ৭ লক্ষ টাকায় হয়? যেখানে তার চিকিৎসার জন্যই আমরা প্রায় ৮ লক্ষ টাকা খরচ করেছি।’

উল্লেখ্য, মামলার এজাহার অনুযায়ী জানা যায়, গত ২৫শে জানুয়ারি রাতে পূর্ব বিরোধের জের ধরে বাক-বিতন্ডার এক পর্যায়ে কয়েকজনের সহায়তায় সবুজকে (১৫) ছুরিকাঘাত করে কাশীনাথপুর এলাকার ইদু মিয়া ড্রাইভারের ছেলে শাওন। পরবর্তীতে, ১২ দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর ঢামেক এ মৃত্যবরণ করে ওই কিশোর। এ ঘটনায় সবুজের মামা ফুল মিয়া বাদী হয়ে মোট ১৬ জনকে আসামী করে কোতোয়ালি মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাতে অজ্ঞাতনামা কয়েকজন অভিযুক্তদের বাড়ী ঘরে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে। পরে, দিদার সমবায় সমিতির ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ স্বপন মিঞা বাদী হয়ে সবুজের ভাই রুবেলকে প্রধান আসামী করে মোট ৬ জনকে অভিযুক্ত করে একটি মামলা দায়ের করেন। এই মামলাটি বর্তমানে পি বি আই এর অধীনে রয়েছে।

এদিকে, ছেলেকে হারিয়ে এবং তার চিকিৎসার জন্য ব্যয়কৃত অর্থ পরিশোধ করতে না পেরে প্রায় পাগলপারা অবস্থায় আছেন সবুজের মা।

আর পড়তে পারেন