শুক্রবার, ২২শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং

কুমিল্লায় কবরস্থানে মাদক সেবন !

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৯
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
সোনার বাংলাকে শ্মশান বাংলায় পরিণত করতে মাদক এক ভয়ংকর অভিশাপ হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে লাখো শহীদের রক্তবিধৌত এই বাংলার জমিনে। মাদকাসক্তের সংখ্যা বিবেচনায় বাংলাদেশের অবস্থান বিশ্বের মধ্যে সপ্তম।

শিশু-কিশোর-যুবা-বৃদ্ধা-নারী-পুরুষ-নির্বিশেষে মাদকের ভয়াল থাবার শিকারে পরিণত হচ্ছে প্রতিনিয়ত। একটি জাতীয় পত্রিকার তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশের গবেষকরা বলছেন, ৭৩ লাখ মাদকাসক্ত সারা বাংলায় ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে, যাদের বেশির ভাগ তরুণ। মোট জনগোষ্ঠী ১৬ কোটির অনুপাতে এ সংখ্যা কতটা ভয়াবহ, তা সহজেই অনুমেয়। বাংলাদেশের মোট গ্রামের সংখ্যা ও মাদকাসক্তের সংখ্যার যদি অনুপাত বের করা হয়, তাহলে তা রীতিমতো আঁতকে ওঠার মতো বিষয়। ৬৮ হাজার গ্রামের প্রতিটিতে গড়ে ১০৭ জনের ওপরে মাদকাসক্ত পাওয়া যাবে। গবেষকরা বলছেন, মাদকাসক্তদের মধ্যে নারীর সংখ্যা ১০ থেকে ১৫ শতাংশ। মাদকাসক্তদের ৯১ শতাংশই কিশোর, তরুণ ও যুবক বয়সী। বাংলাদেশের কারা কর্তৃপক্ষ বলছে, কারাবন্দি মানুষের মধ্যেও ৩৫ শতাংশের বেশি মাদকসংক্রান্ত অপরাধের সঙ্গে জড়িত।

মাদকের ভয়াবহতা উপলব্ধি করে সরকার মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি ঘোষণা করেছে। প্রশাসনিক, আইনগত, বিচারিক ও সামাজিকভাবে মাদকের বিরুদ্ধে সর্বাত্মক যুদ্ধকে জিরো টলারেন্স বলে। দৃশ্যমান প্রশাসনিক জিরো টলারেন্স কৌশল হিসেবে বন্দুকযুদ্ধকে বেছে নিয়েছে সরকার। সঙ্গে চলছে গ্রেপ্তারও। গত বছরের ২৭ অক্টোবর জাতীয় সংসদে মাদক নিয়ন্ত্রণে কঠোর আইন পাস হয়েছে। ইয়াবা, কোকেন, হেরোইন পরিবহন, কেনাবেচা, কারবার, সংরক্ষণ, উৎপাদন, প্রক্রিয়াজাতকরণ, হস্তান্তর, সরবরাহ ইত্যাদি অপরাধের জন্য সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড বা যাবজ্জীবনের বিধান রয়েছে। মাদক বহনের পরিমাণ অনুযায়ী সাজা কমবেশির বিধান রাখা হয়েছে। কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান এই আইনের অধীন অপরাধ সংঘটনে অর্থ বিনিয়োগ, সরবরাহ, মদদ ও পৃষ্ঠপোষকতা দিলেও একই ধরনের শাস্তির বিধান রাখা হয়েছে। এই প্রথম মাদকসেবী ও মাদক কারবারির পাশাপাশি মাদক কারবারে পৃষ্ঠপোষক বা অর্থলগ্নিকারী, মদদদাতাদেরও কঠোর শাস্তির মুখোমুখি করা হয়েছে নতুন আইনে। তবে কুমিল্লা জেলার বুড়িচং উপজেলার সীমান্তে এখনো চলছে মাদক। এমন অভিযোগ রয়েছে এই এলাকার সুশীল মানুষের। চলমান মাদক অভিযানে ২৫কুমিল্লার বুড়িচংয়ে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী কামাল হোসেন ওরফে ফেনসি কামাল নিহত হয়েছে। এসময় দুইজন আটকসহ। ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করা হয়েছে বিপুল পরিমাণ মাদকদ্রব্য।নিহত মাদক ব্যবসায়ী কামাল হোসেন কুমিল্লা সদর উপজেলার রাজমঙ্গলপুর গ্রামের মৃত হিরন মিয়ার পুত্র। তার বিরুদ্ধে ১২টি মামলা রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।এর কিছুদিন পরে বুধবার (৩০ মে) রাত ১ টার দিকে উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের লরিবাগ রাস্তায় এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। নিহত রোসমত আলী উপজেলার বাকশীমূল ইউনিয়ন (সীমান্ত) কালিকৃষ্ণ নগরের মৃত. আলী আহমেদের ছেলে।

তবুও ভয় কাজ করিনি কিছু অসাধু মাদক ব্যবসায়ীর। তালাশ বাংলা ডট কম অনুসন্ধান টিম সরেজমিনে গিয়ে জানতে পারে যে,জেলার বুড়িচং উপজেলার বাকশীমূল ইউনিয়ন অজ্ঞাপুর (সীমান্ত)এলাকার উজ্জ্বল বাড়ি পারিবারিক কবরস্থানে বেশ কিছুদিন ধরে লাশ ঘরের পাশে অসাধু মাদক ব্যবসায়ীদের সহযোগীতায় নিরাপত্তা হিসেবে এই কবরস্থানে মাদক সেবন করে থাকে এবং এখানে গিয়ে কিছু ফেন্সিডিল বোতল দেখেও অভিযোগে পরিপ্রেক্ষিতে প্রমাণও মিলেছে।এ কবরস্থানে মাদক সেবনকালে বাঁধা দেওয়ার সময় তাদের সাথে কয়েকবার সংঘর্ষ হয়েছে। এলাকাবাসীর সূত্রে আরো জানা যায়, বর্তমান চলমান অভিযানে বুড়িচং থানার ওসি আকুল চন্দ্র বিশ্বাসের নির্দেশে ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ এসআই ওয়াহিদ উল্লাহ্ ঘটনাস্থল থেকে দুইজন মাদকসেবী আটক করে থানায় নিয়ে যায়। কিছু লোক জানান, পুলিশ অভিযান দিয়ে মাদকসেবী এবং মাদক ব্যবসায়ী আটক করলেও কিছুদিন পরে এ কবরস্থানে পুনারায় তাদের লোকেরা অবস্থান করে এবং চিহৃিত মাদক ব্যবসায়ীদের সহযোগীতায় দূরের লোক সহ এখানে এসে মাদক সেবন করে চলে যায়।কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যাচ্ছে না।

অপর দিকে ১৪ সেপ্টেম্বর একই ইউনিয়ন আনন্দপুর গ্রামের লিটন মেম্বার ওয়ার্ডের আব্দুল আজিজের ছেলে জাকির হোসেনকে গাঁজা সহ আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

অনুসন্ধানে আরো জানা যায়, একই ইউনিয়ন কালিকাপুর আব্দুল মতিন খসরু সরকারি কলেজের পাশে ভূমি অফিস সংলগ্নে(কাচারিতে) অসাধু ব্যবসায়ীদের সহযোগীতায় সন্ধ্যার পরে কুমিল্লা থেকে কিছু যুবক মোটরসাইকেলে এসে মাদক সেবন করে চলে যায়। এ ছাড়াও একই ইউনিয়ন জামতলা সীমান্ত এলাকা জিরো পয়েন্টের সাথে একটি পরিত্যক্ত বাড়ি এবং ঘটলাপাড়া নামক পরিচত স্থানে বাংলাদেশ বর্ডার গার্ড (বিজিবি)কে ফাঁকি দিয়েই মাদক কারবারী চলে।

এখানের স্থানীয় কিছুলোক জানান,ওইসব অসাধু ব্যবসায়ীদের অত্যাচারে আমরা অতিষ্ট। আমাদের ছেলে-মেয়েরা এইসব দেখতে দেখতে বড় হতে থাকলে তাদের ভবিষ্যৎ অন্ধকার হয়ে যাবে।

সাবেক আইন ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী এডভোকেট আব্দুল মতিন খসরু এমপি বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বলেছেন,মাদকের সাথে যারা জড়িত তাদেরকে কখনো ছাড় দেওয়া যাবে না এবং মাদক সেবী ও ব্যবসায়ী আটক করতে হবে। আর তাদের পক্ষ হয়ে যদি কেউ সুপারিশ করতে আসে তাদেরকে মামলা দিয়ে জেল হাজতে প্রেরণ করার জন্য ওসিকে কড়া নির্দশনা প্রদান করেন।

এদিকে ১৬ সেপ্টেম্বর বুড়িচং থানার ওসি আকুল চন্দ্র বিশ্বাস চুরি,ডাকাতি ও মাদক প্রতিরোধে অবদান রাখায় জেলার শ্রেষ্ঠ ওসি হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন। এতে অনেকের ব্যাপক প্রশংসা পেয়েছেন তিনি। বুড়িচং উপজেলাবাসী একটাই দাবী চলমান মাদক অভিযান’কে আরো জোরদার করে প্রশংসনীয়তা অব্যাহত রাখবেন বলে তারা আশাবাদী।

মাদক ও ধূমপান ঐক্য পরিষদ(মাধূবি) প্রতিষ্ঠাতা এস আই ইয়াছিন মিয়া ও কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি অধ্যক্ষ আবু ছালেক মো: সেলিম রেজা সৌরভ একটি অনুষ্ঠানে বলেছেন,প্রশাসনের পাশা-পাশি মাদকের বিরুদ্ধে ঘরে ঘরে আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে এবং সবাইকে আরো সচেতন হতে হবে।

আর পড়তে পারেন