শুক্রবার, ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

কুমিল্লায় আর.সি.এল এমডি শাহজাহানের বিরুদ্ধে ২৫০ কোটি টাকা লুটপাটের অভিযোগ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ২৬, ২০১৯
news-image

স্টাফ রিপোর্টারঃ
রুরাল কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিঃ (আর.সি.এল) এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহজাহান ও স্ত্রী (চেয়ারম্যান) মহিনুর বেগমের বিরুদ্ধে ২৫০ কোটি টাকা লুটপাট করে নামে বেনামে সম্পদের পাহাড় গড়ে তোলার অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে দুদকের চেয়ারম্যান বরাবর অভিযোগ করা হয়েছে।

জানা যায়, কুমিল্লা লালমাই উপজেলার আজবপুর গ্রামের মৌলভী আবদুল হালিমের ছেলে শাহজাহান। সংসারে দারিদ্রতা দুর করতে বেছে নেন শিক্ষকতা পেশা, ৫ শতক ভিটি মাটির পরিবারটি এখন ২৫০ কোটি টাকার সম্পদের মালিক। ২০০৩ সালে কুমিল্লা জেলা সমবায় অফিস থেকে রুরাল কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিঃ (আর.সি.এল) নামে সারাদেশে ১৮টির অধিক শাখার মাধ্যমে সাধারণ মানুষকে অধিক মুনাফা দেখিয়ে এফডিআর ও সঞ্চয়ের নামে শত শত কোটি টাকা আমানত গ্রহণ করে কৌশলে নিজের নামে জমি, ফ্লাটসহ সম্পদের পাহাড় গড়ে তুলেন।
২০১০ সালের পর নতুন কোন ব্যবস্থাপনা কমিটি না হওয়ায় সমবায় আইন ও বিধি মোতাবেক ২০১৩ সালের পর সমিতির পরিচালনা পর্ষদ বলে কিছু নেই। ২০১১ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানের কোন অডিট রিপোর্ট জমা হয়নি। এ সুযোগে সদস্যদের জমাকৃত আমানত এফডিআর ও শেয়ারের নামে যে আমানত গ্রহণ করা হয়েছে, সে টাকা দিয়ে শাহজাহান নিজের নামে নাঙ্গলকোটের হরিপুর মৌজায় ১২ শতক, বাঙ্গড্ডা মৌজায় ৫০ শতক, সদর দক্ষিণের শ্রীবল্লবপুর মৌজায় ২৮ শতক, তিতাস উপজেলার গোপালপুর মৌজায় ৫ শতক, আদর্শ সদর উপজেলার গোবিন্দপুর মৌজায় ১৬ শতক, লাকসাম উপজেলার মুদাফ্ফরগঞ্জ মৌজায় ১৯.৫০ শতক জমি অবৈধভাবে বিক্রি করে টাকা আত্মসাৎ করেন।

এছাড়া গ্রামের বাড়িতে ৫ একর, সিদ্ধিরগঞ্জে ৭ কাঠা জমির উপর একটি বাড়ি, ঢাকায় ও কুমিল্লায় স্ত্রী- ছেলে,মেয়ের নামে ফ্লাট ক্রয় করেছেন। তার গ্রামের বাড়ির যুক্তিখোলা বাজারে ৩ শতক, বাজারের উত্তর পাশের্^ ছেলে মেরাজের নামে মেরাজ ট্রেডার্স নামে ৫টি দোকান রয়েছে।
এদিকে সমিতি চলাকালীন সময়ে ঢাকায় তাকওয়া গার্মেন্টস, এতে বিনিয়োগ করা হয়েছে ১০ কোটি, সাপ্তাহিক কুমিল্লা নামক পত্রিকায় বিনিয়োগ ৫০ লক্ষ, মৎস প্রকল্পে বিনিয়োগ ৪৫ লক্ষ, স্বাস্থ্য প্রকল্পে সাড়ে ৪ কোটি, অটো রাইচ মেইলে ১ কোটি, মাস্টার ডেইরি ফার্মে ২ কোটি ৪০ লক্ষ, মুরগি ফার্মে ৩৫ লক্ষ, পরিবহন প্রকল্পে ৫ কোটি, আর.সি.এল হাউজ (শো-রুমে) ৮ কোটি, আর.সিএল. ফাইন্যান্স এন্ড ইনভেষ্টমেন্ট কোম্পানী প্রতিষ্ঠা করার নামে ১০ কোটি, ভূমি উন্নয়ন ব্যাংক করার নামে ৫ কোটিসহ প্রায় ২৫০ কোটি টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ রয়েছে।

২০০৪ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত চৌদ্দগ্রাম উপজেলার খিরনশাল কাজী জাফর আহম্মদ উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতিকে ম্যানেজ করে এবং সহকারি প্রধান শিক্ষককে সর্বাধিক অর্থনৈতিক সুবিধা দিয়ে প্রধান শিক্ষক পদে বহাল থেকে নিয়মিত বেতন ভাতাসহ অন্যান্য সুবিধা ভোগ করেন। দুই তিন মাস পরপর রাতের আধাঁরে গিয়ে হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়।
এসব বিষয়ে কুমিল্লা বিজ্ঞ ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ২০/২২টি মামলা রয়েছে। অধিকাংশ মামলায় আদালত কর্তৃক সাজাপ্রাপ্ত হয়ে পলাতক রয়েছে এই শাহজাহান। তার নামে সাজা ওয়ারেন্ট থাকা সত্বেও কোন ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। এ নিয়ে আমানতকারীরা বর্তমানে দিশেহারা হয়ে পড়ছে। সম্প্রতি সময়ে তিনি আওয়ামীলীগের নাম ভাঙ্গিয়ে এলাকায় দাবড়িয়ে বেড়াচ্ছেন। কিন্ত সাধারণ মানুষ তাদের জমাকৃত আমানত না পেয়ে ভিটেবাড়ি বিক্রিসহ নানান সমস্যায় জড়িয়ে পড়ছে। এবিষয়ে যথাযথ কর্তৃপক্ষের নিকট সঠিক বিচার প্রত্যাশা করছে ভুক্তভোগীরা।

আর পড়তে পারেন