শনিবার, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

কুমিল্লায় আওয়ামী লীগ নেতাকে ধরতে পুলিশের অনীহা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ২৭, ২০১৮
news-image

ডেস্ক রিপোর্টঃ
চার মাসেও পুলিশ আটক করতে পারছে না কুমিল্লার চাঞ্চল্যকর মনির চেয়ারম্যান হত্যা মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত প্রধান আসামি আওয়ামী লীগ নেতা ও তিতাস উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সোহেল সিকদারকে। তিতাস থানায় ওয়ারেন্ট ও মালামাল ক্রোকের আদেশ ফাইলবন্দি হয়ে রয়েছে। ওয়ারেন্ট থাকা সত্ত্বেও রাজনৈতিক প্রভাবের কারণে পুলিশ সোহেল সিকদারকে গ্রেপ্তারে অনীহা দেখাচ্ছে। আর এমনটিই দাবি নিহত মনির চেয়ারম্যান পরিবারের।

গতকাল মামলার বাদী তাহমিনা আক্তার সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগে জানান, আসামি সোহেল শিকদারের বিরুদ্ধে মনির চেয়ারম্যান হত্যা মামলার ওয়ারেন্ট ও মালামাল ক্রোকের আদেশ পড়ে রয়েছে। কিন্তু পুলিশ তাকে ধরছে না। সে প্রকাশ্যে ঘুরছে, উপজেলা অফিসে বসছে, রাজনৈতিক প্রভাব বিস্তার করে বাদী, স্বাক্ষীদের হুমকি ধমকি দিচ্ছে। পুলিশ তৎপর হলেই তাকে গ্রেপ্তার করতে পারে। কিন্তু এ ব্যাপারে পুলিশের অনীহা কেন বোধগম্য নয়।

এলাকায় আধিপত্য বিস্তারের বিরোধের জের ধরে ২০১৬ সালের ৮ই নভেম্বর কুমিল্লা তিতাস উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক এবং জিয়ারকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান মনির হোসাইন সরকার ও তার শ্যালক মহিউদ্দিনকে দাউদকান্দির গৌরিপুর মোড়ে প্রকাশ্যে গুলি ও কুপিয়ে হত্যা করা হয়।

এ ঘটনায় মামলা দায়ের, তদন্ত ও চার্জশিট দাখিলের পর কুমিল্লা জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত থেকে গত ১২ জুলাই ওই হত্যা মামলার ১২ আসামির মধ্যে ৬ জনের বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট জারি করা হয়। প্রায় চার মাস আগে ওই মামলার প্রধান আসামি আওয়ামী লীগ নেতা সোহেল সিকদারসহ ২ জনের নামে তিতাস থানায় এবং সুমনসহ ৪ জনের নামে দাউদকান্দি থানায় ওয়ারেন্ট পৌঁছে এবং সেপ্টেম্বরের শেষের দিকে আদালত থেকে মালামাল ক্রোকের নির্দেশও পাঠানো হয়।

এ প্রসঙ্গে তিতাস থানার সাব-ইন্সপেক্টর আবদুর রহমান জানান, ওয়ারেন্ট তো অনেকদিন আগেই থানায় এসেছে। কিন্তু আসামি খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।

আর পড়তে পারেন