রবিবার, ২৯শে মার্চ, ২০২০ ইং

কুমিল্লায় অবস্থানরত চট্টগ্রাম সমিতির বিভক্ত মেজবান !

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ১৯, ২০২০
news-image

স্টাফ রিপোর্টারঃ
কুমিল্লা জেলায় অবস্থানরত বৃহত্তর চট্টগ্রামের অধিবাসীগণ ৯০ দশকে “চট্টগ্রাম সমিতি ” নামক একটি সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেন । যার মাধ্যমে তারা সমবেত হয়ে আত্মিক বন্ধনে আবদ্ধ হয় । কুমিল্লায় সুপরিচিত মরহুমা ডাক্তার জোবায়দা হান্নান, ডাক্তার এস আলম, অধ্যাপক ডাক্তার কে এ মান্নান, বিএডিসির সাবেক পরিচালক নেছারুল ইসলাম কুতুবী ,কুমিল্লার সাবেক কর কমিশনার রেজাউল করিম চৌধুরী, কুমিল্লার সাবেক ডিডিএলজি গোলামুর রহমানসহ অনেক প্রথিতযশা ব্যক্তিত্ব এই সমিতি পরিচালনা করেছেন । তাদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টার ফলে সমিতি রেজিস্ট্রেশন নং ১১৪১/ ২০০১ । পরবর্তীতে ২০০৬ সালে নিয়ম বহির্ভূত কার্যকলাপের জন্য সমাজসেবা অধিদপ্তর রেজিস্ট্রেশন বাতিল করে।

সূত্র জানায়, রেজিস্ট্রেশন বাতিলের পর নানা প্রতিকূলতায় সমিতির কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিল । একই ধারাবাহিকতায় ২০১৬ সালে এজিএম এর মাধ্যমে সমিতি পরিচালনার জন্য সকল সদস্যদের উপস্থিত সম্মতিতে এডভোকেট ওহিদুর রহমানকে সভাপতি এবং আবু জাফর মোহাম্মদ সালেহকে সাধারণ সম্পাদক করে কমিটি অনুমোদিত হয় । কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে ২০১৯ সালে কতিপয় স্বার্থান্বেষী মহল জোরপূর্বক কমিটি বাতিল করে নতুন কমিটি ঘোষণা করে । বর্তমানে নতুন কমিটি তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে, এর ফলে সমিতির কার্যক্রমে বিভক্তি দেখা দিয়েছে।

জানা যায়, সাবেক ও বর্তমান কমিটির নেতৃস্থানীয় সদস্যদের বিভক্তির মুখে সমাজসেবা অধিদপ্তরে দুটি ভিন্ন নামে কমিটির অনুমোদনের জন্য আবেদন করা হয় । সমাজসেবা কর্মকর্তা উভয় পক্ষের সাথে আলাপ করে তাদেরকে ঐকমত্যে পৌঁছার জন্য অনুরোধ জানান । কিন্তু এ প্রস্তাবে উভয় পক্ষ মতক্যে উপনীত হতে পারেনি । দীর্ঘদিন অতিবাহিত হওয়ার পর সমাজসেবা অধিদপ্তর বর্তমান কমিটির অনুকূলে সমিতি রেজিস্ট্রেশন দেওয়ার প্রক্রিয়া নেয় । যা বর্তমানে প্রক্রিয়াধীন।

” চট্টগ্রাম সমিতি ” কুমিল্লায় চট্টগ্রামের ঐতিহ্যকে ধরে রাখার জন্য প্রতিবছর মেজবানের আয়োজন করে থাকে । বিগত ২০১৬ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী মেজবানি অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে গুণীজনদের সংবর্ধনা প্রদান করা হয়েছিল । যার মাধ্যমে চট্টগ্রামবাসীর মিলনমেলা সকলে উপভোগ করেছিল । কিন্তু , বিভক্তির মুখে ২০১৯ সালের মেজবান বির্তকের জন্ম দেয়। মেজবানকে কেন্দ্র করে সংগৃহিত অর্থের হিসাব না দেওয়ায় বর্তমান কমিটির বিরুদ্ধে সাধারণ সদস্যদের ব্যাপক অভিযোগ রয়েছে । যা চট্টগ্রাম সমিতির ঐতিহ্যকে ক্ষুন্ন করেছে।

বর্তমান অননুমোদিত কমিটির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন অধ্যাপক লোকমান হাকিম । ইতিপূর্বে তিনি চার দফায় সভাপতি ছিলেন । সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন এনামুল হক । ইতিপূর্বে তিনি নির্বাহী কমিটির সদস্য ছিলেন । সমিতির দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালন করেছিলেন টুন্টু চৌধুরী । তিনি বর্তমান কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন । তিনি সর্বাধিক আকবার ১৬ বছর দায়িত্ব পালন করেছিলেন । লোকমান – পিন্টু কমিটি দায়িত্ব পালনরত অবস্থায় সমিতির রেজিস্ট্রেশন বাতিল হয় । এই নিয়ে সাধারণ সদস্যদের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে । তাদের নেতৃত্বে চট্টগ্রাম সমিতি পরিচালিত হোক এ নিয়ে বিতর্ক চট্টগ্রামবাসীকে আহত করেছে।

সূত্রে জানা যায়, চলতি বছরের  ৩১ জানুয়ারি  চট্টগ্রাম সমিতির মেজবান এ তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে । এই নিয়ে বর্তমান কমিটি সাধারণ সদস্য সদস্যসহ শুভাকাঙ্ক্ষীদের নিকট হইতে চাঁদা দাবি করা হচ্ছে । একদিকে বিগত সময়ের মেজবানের সংগৃহিত অর্থের হিসাব না দেওয়া এবং অনানুমোদিত কমিটি কর্তৃক মেজবানের আয়োজন নতুন করে বিতর্ক সৃষ্টি করেছে । এই অবস্থায় মেজবান তার পুরনো ঐতিহ্যকে ম্লান করবে বলে সাধারণ সদস্যরা অভিমত ব্যক্ত করে।

আর পড়তে পারেন