মঙ্গলবার, ৭ই জুলাই, ২০২০ ইং

কুমিল্লার দাউদকান্দিতে টাকার বিনিময়ে পোষাকের দোকান খোলার অনুমতি!

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ২২, ২০২০
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
টাকার বিনিময় শপিংমল খোলার অনুমতি পেল কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার গৌরীপুর বাজারের ব্যবসায়ীরা। এমন অভিযোগ পাওয়া গেছে। কসমেটিক, তৈরী পোষাক, থান কাপড়ের ব্যাবসায়ীদের কাছ থেকে ৫০০ থেকে ১০০০ টাকা আদায় করার অভিযোগ উঠেছে। বাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক নোমান মিয়ার নামে এমন অভিযোগ উঠলেও এ টাকা বনিক সমিতির ফান্ডে জমা করবেন বলে জানান তিনি।

জানা যায়, করোনার প্রভাবে সারাদেশে মার্কেট শপিংমল বন্ধ ঘোষণা করে সরকার। ঈদকে সামনে রেখে গত ১০ মে থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শপিংমল খোলার অনুমতি দেয় সরকার। গত ১৪ মে গৌরীপুর বাজারের ওষূধ নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রীর দোকান ছাড়া অন্যান্য শপিংমল বন্ধ রাখার ঘোষণা দেন বাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক নোমান মিয়া।

বৃহস্পতিবার(২১ মে) বাজারের ব্যবসায়ীদের দোকান প্রতি ৫০০ টাকা নিয়ে খোলার অনুমতি দেন তিনি।

তৈরী পোষাক ব্যবসায়ী সালাম মিয়া বলেন, টাকা লাগলে আরো বেশি নিতো, তারপরও যদি প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী ১০ তারিখ থেকে দোকান খোলার সুযোগ দিতো তাহলে আমরা কিছুটা পুষিয়ে নিতে পারতাম।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যবসায়ী বলেন, বছরে রোজার ঈদে আমাদের ব্যবসার সিজন। করোনার কারণে আমরা অনেক ক্ষতিগ্রস্ত। তারপরেও ভালো যে ৫০০ টাকার বিনিময়ে ঈদেও আগে দোকান খুলতে পেরেছি।

বাজার কমিটির সভাপতি হাজি ওমর আলী জানান, টাকা নেয়ার বিষয়টি বিভিন্ন ব্যবসায়ীরা আমাকে বলেছে। ছোট দোকান ৫০০, মাঝারি দোকান-১০০ এবং বড় দোকান থেকে দুই হাজার টাকা করে বিভিন্ন লোক দিয়ে নোমান আদায় করেছে ।

গৌরীপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হাসেম সরকার বলেন, দোকান খোলার নামে টাকা আদয়ের বিষয়টি একাধিক ব্যবসায়ী আমাকে জানিয়েছে।

বাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক নোমান মিয়া জানান, আমরা ৫০০ টাকা টাকা করে নিয়ে ব্যবসায়ীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা সরঞ্জাম দিয়েছি । বাকি টাকা দিয়ে বাজারের ব্যবসায়ীদের নিয়ে বনিক সমিতি করা হবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ কামরুল ইসলাম খান বলেন, করোনার কারণে
দেশের ব্যবসায়ীরা এমনি ক্ষতিগ্রস্ত। এমন সময় গৌরীপুর বাজারে দোকান খোলার নামে টাকা আদায় করা অত্যান্ত নিন্দনিয় কাজ। বিষয়টি আমি দেখছি।

আর পড়তে পারেন