শুক্রবার, ২২শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং

কুমিল্লার তিতাসে আ’লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী পারভেজকে মনোনয়ন না দিতে ঢাকায় নেতাকর্মীদের বিক্ষোভ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৯
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টার
কুমিল্লার তিতাসে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী পারভেজ হোসেন সরকারকে দলীয় মনোনয়ন না দিতে ঢাকায় বিক্ষোভ মিছিল এবং মানববন্ধন করেছে নেতাকর্মীরা। সোমবার রাতে ঢাকার ধানমন্ডিস্থ দলীয় কার্যালয়ের সামনে এ বিক্ষোভ মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়।

এতে নেতাকর্মীরা রাজাকার হটাও তিতাস বাঁচাও স্লোগান সংবলিত প্ল্যাকার্ড ও ব্যানার নিয়ে মানববন্ধনে অংশ গ্রহন করেন।

এ সময় বিগত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ প্রার্থীর বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ গ্রহনকারী পারভেজ হোসেন সরকারকে দলীয় মনোনয়ন ও নৌকা প্রতিক বরাদ্ধ না দিতে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করা হয়। আসছে ২১ অক্টোবর স্থগিত হওয়া ওই উপজেলা পরিষদের নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন।

জানা যায়, চলতি বছরের ৩১ মার্চ অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে কুমিল্লার তিতাসে আওয়াীলীগের দলীয় মনোনয়ন লাভ করেন ওই উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান শাহীনুল ইসলাম ওরফে সোহেল শিকদার। কিন্তু দলের শৃংখলা ভঙ্গ করে ওই নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ গ্রহন করেন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান এবং কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়াীলীগের সদস্য পারভেজ হোসেন সরকার। পরে নির্বাচন চলাকালে আওয়ামীলীগ এবং দলের বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থক কর্তৃক নির্বাচনের আগের রাতে ব্যলট পেপারে সিল মারা, কেন্দ্র দখল, হামলা, ভাংচুর ও ব্যালট পেপারসহ বাক্স ছিনতায়ের অভিযোগে ওই উপজেলার নির্বাচন স্থগিত করে কমিশন। পরে বিতর্কিত নানা কর্মকান্ডের কারণে নির্বাচনটি বাতিল করে দেয় নির্বাচন কমিশন। ওই নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীদের বিপক্ষে কাজ করা এবং বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ গ্রহনকারীদের বিরুদ্ধে দলীয় শৃংখলা ভঙ্গের অভিযোগে সংশ্লিস্ট নেতাকর্মী এবং প্রার্থীদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহনের সিদ্ধান্ত গ্রহন করে কেন্দ্রিয় আওয়ামীলীগ। এরই প্রেক্ষিতে তিতাসের বিদ্রোহী প্রার্থী পারভেজ হোসেন সরকারকে দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে অবস্থানের অভিযোগে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের স্বাক্ষরিত কারন দর্শানোর নোটিশ প্রদান করা হয়।

আগামী ২১ অক্টোবর তিতাস উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে পুন:তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। এতে দলের একক প্রার্থী হিসেবে ওই বিদ্রোহী প্রার্থীর নাম প্রস্তাব করে উপজেলা আওয়ামীলীগের একাংশ। বিতর্কিত ও দলীয় শৃংখলা ভঙ্গকারীকে দলের মনোনয়ন না দিতে দলের বড় একটি অংশ ঢাকার ধানমন্ডি দলীয় কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ মানববন্ধন করেন।

মানববন্ধনে বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, পারভেজ হোসেন সরকারের পিতা বেলায়েত হোসেন সরকার এক সময় বিএনপির প্রভাবশালী নেতা ছিলেন। স্বাধীনতা যুদ্ধে পারভেজের পিতার ভূমিকা ছিল বিতর্কিত। রাজাকারের তালিকায় পারভেজ সরকারের পিতার নাম রয়েছে। তাকে মনোনয়ন দিলে দলের অপুরনীয় ক্ষতি সাধন হবে বলে আশংকা নেতাকর্মীদের। নেতাকর্মীরা তিতাসে রাজাকার হটাও স্লোগান সংবলিত প্ল্যাকার্ড নিয়ে মানববন্ধনে অংশ গ্রহন করেন।

এবিষয়ে পারভেজ হোসেন সরকার বলেন, রাজাকারের তালিকায় কখনোই আমার বাবার নাম ছিলনা। স্বার্থান্বেষী মহল রাজনৈতিক ফায়দা হাসিল করতে আমার বাবার বিরুদ্ধে মিথ্যঅ অপবাদ দিচ্ছে। এ ছাড়া দলের শৃংখলা ভঙ্গের অভিযোগে আমাকে শোক প্রদানের বিষয়টিও সঠিক নয়, এ ধরনের কোন নোটিশ আমি পাইনি। তিনি বলেন, আমি নোটিশ পাওয়ার আগে কিভাবে তা ফেসবুবে ছড়িয়ে পরলো তা বোধগম্য নয়।

আর পড়তে পারেন