শুক্রবার, ১৭ই জানুয়ারি, ২০২০ ইং

কুমিল্লার ডাকাতিয়ায় বালু ডাকাতি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ১২, ২০১৯
news-image

 

 

স্টাফ রিপোর্টার:

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে ডাকাতিয়া নদীতে চলছে বালু ডাকাতি। উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ২৮টি ড্রেজার দিয়ে কয়েক কোটি টাকার বালু-মাটি তুলেছে প্রভাবশালী কিছু ব্যক্তি।

প্রশাসনের অভিযান, জড়িতদের বিরুদ্ধে মামলার পরও থেমে নেই অবাধে বালু ও মাটি তোলা। এতে আশপাশের কৃষিজমি, ব্রিজ, কালভার্টে ফাটল সৃষ্টি হয়েছে।

 

সরেজমিনে দেখা গেছে, উপজেলার কাশিনগর ইউপির ধর্মপুর ঈদগাঁহ, হিলালনগর ব্রিজ, শাহাপুর, শ্রীপুর ইউপির রাজার বাজার, ত্রিশকোট, শুভপুর ইউপির আকছর, পোটকরা কড়ীয়া বাজার, চিওড়া ইউপির সাঙ্গিশ্বর, শাকতলা, পন্নারা, চিলপাড়া, কনকাপৈত ইউপির জাগজুর, জঙ্গলপুর, গুণবতী ইউপির পরিকোট ও আকদিয়াসহ ডাকাতিয়া নদীর শতাধিক পয়েন্টে চলছে বালু তোলার মহোৎসব।

 

আরো দেখা গেছে, চৌদ্দগ্রাম ও নাঙ্গলকোট উপজেলা সংলগ্ন ডাকাতিয়া নদীর দুই পাশে কয়েক হাজার হেক্টর ফসলি জমি রয়েছে। নদীর উপর স্থাপন করা হয়েছে একাধিক ব্রিজ, কালভার্ট। নদী থেকে বালু তোলার কারণে দিনদিন উর্বরতা হারাচ্ছে জমিগুলো, ফাটল ধরেছে ব্রি-কালভার্টে।

 

 

 

স্থানীয়রা জানায়, শুভপুর ইউপির পোটকরা থেকে শ্রীপুর ইউপির ত্রিশকোট পর্যন্ত প্রায় দুই কিলোমিটার এলাকায় তিন মাসে ৬-৭ কোটি টাকার মাটি তোলা হয়েছে।

 

তারা আরো জানায়, রাজনৈতিক ছত্রচ্ছায়ায় একটি বিশাল সিন্ডিকেট এ কর্মকাণ্ডে জড়িত। তাই কেউ প্রতিবাদ করার সাহস পায় না। মাটি ও বালু তোলা রোধে প্রশাসন বিভিন্ন পদক্ষেপ নিলেও কর্মকর্তাদের সঙ্গে সখ্যতা থাকায় ফাঁক গলে বেরিয়ে আসছে জড়িতরা।

 

চৌদ্দগ্রামের উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) সাইফুর রহমান বলেন, এরই মধ্যে ডাকাতিয়া নদী থেকে বালি ও মাটি তোলা চক্রের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু হয়েছে। এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

 

তিনি আরো জানান, এসব ঘটনায় জড়িত কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে বাকিদেরও আইনের আওতায় আনা হবে।

আর পড়তে পারেন