মঙ্গলবার, ২৮শে জানুয়ারি, ২০২০ ইং

কুমিল্লার কসবার ট্রেন দুর্ঘটনার সাহসী সেই পাঁচ যুবক

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
November 14, 2019
news-image

 

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবার মন্দবাগে ট্রেন দুর্ঘটনায় খবর শুনে সবার মতো এগিয়ে আসেন পাঁচ যুবক। কিন্তু তারা সবাই পিকআপ চালক। ঘটনার পর রাতে মরদেহ উদ্ধার করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতাল ও কসবা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেন তারা। এরপর চিকিৎসকরা আহতদের মৃত ঘোষণার পর পিকআপে করে তা বায়েক উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে নেন তারা।

 

 

তাদের এ সাহসী ভূমিকায় সামাজিক মাধ্যম ও স্থানীয়রা প্রশংসা করছেন। তাদের এ কাজের স্বাকৃতি জানিয়েছেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা।

 

 

উদ্ধারকারী পাঁচ যুবকের চারজনই কসবার বায়েক ইউপির চাঁন্দখলা গ্রামের বাসিন্দা। তারা হলেন নুরুল আমিন বাপ্পি, ফয়সাল আহমেদ, উজ্জল আলম, সাকিব হাসান। তাদের মধ্যে নাজমুল হাসানের বাড়ি নয়নপুর গ্রামে।

 

 

 

পিকআপ চালক নুরুল আমিন বাপ্পি জানান, শব্দ শুনার সঙ্গে সঙ্গে মোবাইল ফোনটা নিয়ে ঘর থেকে বের হই। দুর্ঘটনা দেখার পর প্রথমে পিকআপ চালকদের কল দেই। আমার নিজের তিনটা গাড়িসহ চালকদের নিয়ে হতাহতদের হাসপাতালে নিয়ে যাই।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

ফেসবুকে মো. আজহারুল লিখেছেন, বাপ্পির কারণে অসুস্থ অনেক রোগী বেঁচে গেছে। সে পিকআপে করে রোগীদের হাসপাতালে নিয়ে যায়।

তানভীর মোল্লা, তাহমিনা আক্তার, বশির মিয়া, এসএম জহিরসহ অনেকে তাদের এ কাজের জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

 

উদ্ধার কাজে প্রথম অংশ গ্রহণকারী তরুণ নুরুল আমিন বাপ্পির ফেসবুকে দেখা যায়, সকাল ৬.০১ মিনিটে ব্যক্তিগত ফেসবুকে লাইভ দেখান। পরে বাকেয় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে মরদেহ শনাক্তকরণের জন্য স্বজনদের আহবান করেন। এছাড়াও বুধবার এ বিষয়ে ফেসবুকে দুটি স্ট্যাটাস দেন বাপ্পি। ফেসবুকে তার উদ্ধারের অভিজ্ঞতা বিনিময় করেন। এমনকি যারা শতাধিক মানুষ নিহত হওয়ার কথা বলছেন, তাদের গুজব না ছড়ানোর অনুরোধ করেন।

 

স্থানীয় সাংবাদিক তৌহিদ হোসেন সরকার বলেন, সকাল বেলা ঘটনাস্থলে গিয়ে এ যুবকদের দেখতে পাই। তরুণদের এ সাহসী ভূমিকার বিষয়টি অবশ্যই প্রশংসার দাবি রাখে।

 

স্থানীয় মেম্বার মো. সেলিম বলেন, বাপ্পির বাড়ি আর রেললাইন দুই এক মিনিটের ব্যবধান। সে কয়েকটা পিকআপের মালিক। অন্যান্য চালকদের সঙ্গে নিয়ে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

 

বায়েক ইউপির চেয়ারম্যান আল-মামুন ভূইয়া বলেন, ঘটনাস্থলের পূর্ব ও পশ্চিম পাশের বাড়িতে তারা থাকে। এটা হুমায়ূন মাস্টারের বাড়ি নামে পরিচিত। ঘটনাস্থলের নিকটবর্তী হওয়ায় তারা সবার আগে উপস্থিত হতে পেরেছে। খুবই আন্তরিকতার সঙ্গে তারা নিজ উদ্যোগে উদ্ধার কাজে অংশ নিয়েছে।

আর পড়তে পারেন