বৃহস্পতিবার, ২৪শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং

কুমিল্লার আদালতে ছোরা নিয়ে কিভাবে প্রবেশ করলো ?

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ১৬, ২০১৯
news-image

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতুঃ
কুমিল্লায় আদালতে বিচার চলাকালে বিচারকের সামনে এক আসামি অপর আসামিকে
ছুরিকাঘাতে হত্যা করে। জনমনে প্রশ্ন উঠেছে এ ছোরা নিয়ে আসামি কিভাবে
বিচারকের এজলাসে প্রবেশ করলো ? এজলাসে প্রবেশের আগে পুলিশ চেক করলো না
কেন কিংবা পুলিশের চোখ এড়িয়ে আসামি কিভাবে এত বড় ছোরা নিয়ে এজলাসে প্রবেশ
করলো। কুমিল্লার সুশীল সমাজসহ বিভিন্ন স্তরের মানুষ সামাজিক যোগাযোগ
মাধ্যমসহ বিভিন্ন মিডিয়ায় এটা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন। আইনশৃঙ্খলা
বাহিনীর ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন। যেখানে মানুষের বিচার পাওয়ার
একমাত্র আশ্রয়, সেখানেই মানুষের নিরাপত্তা নেই। এ হত্যাকান্ডের ঘটনায়
কুমিল্লাজুড়ে সমালোচনার ঝড় চলছে।

সোমবার বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে কুমিল্লা অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ ৩য়
আদালতের বিচারক ফাতেমা ফেরদৌসের আদালতে মনোহরগঞ্জ উপজেলার কান্দি গ্রামে
২০১৩ সালের ২৬ আগস্ট সংঘটিত আবদুল করিম হত্যা মামলায় (মামলা নং-১৩)
আসামি আবুল হাসান (২৫) ও ফারুক হোসেন (২৭) হাজিরা দিতে আসেন। আদালতে
হত্যা মামলার বিচারিক কার্যক্রম চলার সময় ওই হত্যা মামলার আসামি আবুল
হাসান হঠাৎ করে উত্তেজিত হয়ে তার সহযোগি আসামি ফারুক হোসেনকে ছুরিকাঘাত
করে। এতে ফারুক নিরুপায় হয়ে দৌঁড়ে বিচারকের খাস কামরায় গিয়ে আশ্রয় নেয়।
এসময় হাসান দৌঁড়ে ওই কামরায় গিয়ে ফারুককে আবারও উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করলে
সে ফ্লোরে লুটিয়ে পড়ে। এসময় আদালতের পুলিশ, আইনজীবী ও বিচারপ্রার্থীরা
হাসানকে ধরে ফেলে। গুরুতর আহত ফারুককে প্রথমে কুমিল্লা সদর হাসপাতালে ও
পরে আশংকাজনক অবস্থায় কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর বেলা
সাড়ে ১২টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেছেন। ফারুক ও হাসান
আপন মামাতো ফুফাতো ভাই। নিহত আসামি মো. ফারুক কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ
উপজেলার অহিদ উল্লাহর ছেলে এবং ঘাতক হাসান জেলার লাকসাম উপজেলার ভোজপুর
গ্রামের শহীদুল্লাহর ছেলে। এ ঘটনায় আদালত এলাকায় আতংক ছড়িয়ে পড়ে। এ ঘটনার
পর ঘাতক হাসানকে আটক করা হয়। হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ছুরিটি জব্দ করা হয়েছে।

এ ঘটনার তদন্তে জেলা পুলিশ তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে
। এই তদন্ত কমিটির প্রধান করা হয়েছে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ)
মোহাম্মদ সাখাওয়াত হোসেনকে। অপর দুই সদস্য হলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার
(সদর সার্কেল) তানভীর সালেহীন ইমন এবং ডিআইও-১ মাহবুব মোর্শেদ।

তবে আদালতের মত গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় এমন নজীরবিহীন ঘটনায় সুশীল সমাজসহ
বিভিন্ন স্তরের মানুষ ক্ষোভ প্রকাশ করছেন। কুমিল্লার সচেতন নাগরিক কমিটির
(সনাক) সভাপতি বদরুল হুদা জেনু জানান, এটা খুবই নিন্দনীয় ও হতাশাজনক
ঘটনা। আদালতের মত একটি জায়গায় এমন ঘটনা ঘটবে তা আশা করা যায় না। আদালত
মানুষের বিচার পাওয়ার একমাত্র ঠিকানা , আর সেখানেই মানুষ নিরাপত্তাহীন।
তা কি ভাবা যায়? যদিও ঘটনাটি দুভার্গ্যবশত হয়েছে। তারপরও সংশ্লিষ্ট
কর্তৃপক্ষকে আরো বেশি সচেতন হওয়ার দরকার ছিল। এজলাসে ছোরা নিয়ে আসামি
ঢুকবে , মানুষ খুন করবে তা মেনে নেওয়া যায় না। তাই ভবিষ্যতে যাতে এমন
অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সেদিকে সর্বোচ্চ নজর দেওয়া উচিত সংশ্লিষ্ট
কর্তৃপক্ষকে।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের শিক্ষার্থী তাসনিম ফারিয়া জানান, আমি
বিশ্বাসই করতে পারছি না আদালতে বিচারকের সামনে মানুষ খুনের ঘটনা ঘটবে।
এটা খুবই উদ্বেগজনক ঘটনা। আদালতেও মানুষের নিরাপত্তা নেই। বিষয়টি খুবই
হতাশার।

আইনজীবিরা জানান, আদালতের নিরাপত্তা বিধান রাখা পুলিশের দায়িত্ব। এজলাসের
ভিতর কোন প্রকার অস্ত্র নিয়ে প্রবেশ নিষিদ্ধ। তারপরেও অনাকাংখিত এ
হত্যাকান্ড সংঘটিত হয়েছে। এ ঘটনায় আমরা বিব্রত। কাস্টোডিতে থাকা আসামি
হলে এমন হওয়ার সুযোগ ছিল না। যেহেতু আসামিদ্বয় জামিনে ছিলেন। তারা আজ
হাজিরা দিতে এসেছিলেন। তাই এমন ঘটেছে বলে মনে করি। কেউ আশা করেনি এমন
ঘটনা ঘটবে। বাংলাদেশের ইতিহাসে এমন ঘটনা আর ঘটেনি। আশা করি ভবিষ্যতে এমন
ঘটনা আর ঘটবে না।

আইনজীবি আনোয়ারুল হক আদালত হলো মানুষের ন্যায় বিচার পাওয়া জায়গা। সেখানে
যদি কেউ অস্ত্র নিয়ে ঢুকে মানুষ হত্যা করে, তাহলে মানুষ কোথায়
বিচারপ্রার্থী হবে? এটা খুবই হতাশাজনক ঘটনা। তাই পুলিশের নিরাপত্তা
ব্যবস্থায় আধুনিকায়ন পদ্ধতি গ্রহণ করা উচিত।

আদালতের পুলিশ পরিদর্শক সুব্রত ব্যানার্জি জানান, আদালতের ইতিহাসে এমন
ঘটনা আর ঘটেনি। এটা অবিশ্বাস্য। এতে পুলিশের অবহেলা ছিল না। গেইট থেকে
শুরু করে সব জায়গায় পুলিশ যথা সাধ্য তাদের কর্তব্য সঠিকভাবে পালন করে।
প্রতিদিন কমপক্ষে ৪/৫ হাজার মানুষ আদালতে আসে। পুলিশ প্রতিদিন তাদের
দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করছে। এমন ঘটনা ঘটবে তা কল্পনাতীত ছিল।
তিনি আরো জানান, আসামি হাসান পূর্ব শত্রুদার জের ধরে এ হত্যাকান্ড
ঘটিয়েছে। হাসান জানিয়েছে, নিহত ফারুকের কারণে সে এই হত্যা (আবদুল করিম)
মামলার আসামি হয়েছে। আদালতে আসার পর তাদের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। তাই
ক্ষোভ থেকে এ ঘটনা ঘটিয়েছে হাসান।

কুমিল্লা পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম জানান, এতোটা নিরাপত্তার মাঝেও
আসামি ছুরি নিয়ে কিভাবে আদালতের ভেতরে প্রবেশ করলো তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।
এ ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে এবং দায়িত্বরত পুলিশের অবহেলা থাকলে
ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আর পড়তে পারেন