সোমবার, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

কুবি শিক্ষকের গবেষণায় অনিয়মে তদন্ত কমিটি গঠনের দাবি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ২৪, ২০১৭
news-image

শাহাদাত বিপ্লব, কুবিঃ
কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুবি) ইংরেজী বিভাগের এক প্রভাষকের  স্নাতকোত্তরের গবেষণা (থিসিস) নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। এই ঘটনায় শিক্ষক সমিতি নিরপেক্ষ তদন্ত কমিটি গঠনের দাবি জানিয়েছে। উপাচার্যের অপসারণের দাবিতে মঙ্গলবার দুপুরে এক মানববন্ধনে শিক্ষক নেতারা এ দাবি জানান। উপাচার্যের বিরুদ্ধে নিয়োগে বানিজ্য, আত্মীয়করণ, বিচারহীনতার সাংস্কৃতি চালু, আর্থিক দুর্নীতির অভিযোগে গত ১৬ অক্টোবর থেকে তার বিচার ও অপসারণের দাবিতে আন্দোলন করে আসছেন শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও কর্মচারীরা ।
মঙ্গলবার প্রশাসনিক ভবনের সামনে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো: আলী আশরাফের অপসারণ ও বিচারের দাবিতে আয়োজিত এক মানববন্ধনে শিক্ষকরা বলেন, ইংরেজী বিভাগে ২০০৮-০৯ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী রেঁনেসা আহমেদ সায়মা উপাচার্যের বন্ধুর মেয়ে হওয়ায় যোগ্য প্রার্থীদের বাদ দিয়ে তাকে বিভাগের প্রভাষক পদে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। ঐ প্রভাষক ভাষা তত্তে¡র শিক্ষার্থী হয়েও বেশি নাম্বার পাওয়ার আশায় সাদাদল (বিএনপি-জামায়াত) সমর্থিত উপাচার্যপন্থী এক শিক্ষকের তত্ত¡বধায়নে সাহিত্যে গবেষণা করেছেন যা সম্পূর্ণ সাংঘর্ষিক। ভাষা তত্তে¡র শিক্ষার্থী হয়েও সাহিত্যে কিভাবে গবেষণা করেন এমন প্রশ্ন রেখে মানববন্ধনে এ ঘটনার সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ তদন্ত কমিটির আহŸান জানান শিক্ষক নেতারা। রেঁনেসা উপাচার্যের বন্ধুর মেয়ে হওয়ায় তার পরীক্ষার খাতায় নাম্বার বাড়িয়ে দিতে উপাচার্য অতিতে বিভিন্ন সময়ে বিভাগের শিক্ষকদের উপর চাপ প্রয়োগ করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।
গবেষণায় অভিযোগের বিষয়ে ইংরেজী বিভাগের প্রভাষক রেঁনেসা আহমেদ সায়মার (সাবেক শিক্ষার্থী) মুঠোফোনে কয়েক দফায় যোগাযোগ করলেও তিনি ফোন তোলেননি এমনকি মুঠোফোনে ক্ষুদে বার্তা পাঠিয়েও কথা বলা সম্ভব হয়নি।
মানববন্ধনে শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসানের উপস্থাপনায় বক্তব্য রাখেন শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. আবু তাহের, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কাজী ওমর সিদ্দিকীসহ শিক্ষক সমিতি ও বঙ্গবন্ধু পরিষদের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। শিক্ষকদের সাথে একাত্মতা পোষণ করে শিক্ষার্থীরাও এ মানববন্ধনে অংশ নেয়। মানববন্ধনে উপাচর্যের নানান অনিয়ম এবং পরিরহন খাত এবং আসবাব পত্র ক্রয়ে নানা অনিয়মের তথ্য তুলে ধরেন শিক্ষক নেতারা।
অভিযোগের বিষয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো: আলী আশরাফ বলেন, ‘ঐ প্রভাষকের গবেষণার বিষয়ে কি সাংঘর্ষিক তা দেখা শিক্ষক সমিতির কাজ না। এটা সিলেকশন বোর্ড দেখেছে। এখানে আমার কিছু করার নেই।’
উল্লেখ্য, উপাচার্যের বিরুদ্ধে আর্থিক দুর্নীতি, স্বেচ্ছাচারিতা, শিক্ষক লাঞ্ছনা, নিয়োগে বানিজ্যসহ বেশ কয়েকটি অভিযোগ এনে গত ১৬ অক্টোবর সোমবার তার বিচার ও অপসারণের দাবিতে উপাচার্যের কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে দেন শিক্ষকরা। এতে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো: আলী গত সপ্তাহে এবং চলতি সপ্তাহের কোন কার্য দিবসে কার্যালয়ে আসেননি।