সোমবার, ১৮ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

কান্নাভেজা চোখে বিদায় বললেন রুনি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ১৬, ২০১৮
news-image
স্পোর্টস ডেস্কঃ

জাতীয় দলে বহুদিন ধরে সুযোগ পাচ্ছিলেন না ওয়েইন রুনি। সুযোগ আর হয়তো পেতেনও না। ইংল্যান্ড দলে রুনির জায়গাটাই যে নেই! কিন্তু ইংলিশরা নিজেদের ফুটবল ইতিহাসের সর্বোচ্চ গোলদাতাকে নিঃশব্দে বিদায় জানাতে চায়নি। আন্তর্জাতিক ম্যাচ আয়োজন করেই ইতিহাসের অন্যতম সেরা তারকাকে বিদায় জানিয়েছে তারা। আর বিদায়ী ম্যাচে জয়ই উপহার পেয়েছেন তিনি।

যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে কাল ইংল্যান্ড জয় পেয়েছে ৩-০ গোলে। বিদায়টা একেবারে মনের মতোই হয়েছে সাবেক ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড-তারকার, ‘আমি ঠিক যেমনটা ভেবেছিলাম, ঠিক তেমনভাবেই আমার শেষ ম্যাচটা কাটল। আমি এখন যখনই পেছনে ফিরে তাকাব, ইংল্যান্ডের হয়ে সোনালি মুহূর্তগুলো আমার চোখে ভাসবে।’

বয়স হয়ে গেছে তেত্রিশ। জাতীয় দল বা ক্লাব, দুই জায়গাতেই আর আগের মতো অবিচ্ছেদ্য অংশ ছিলেন না রুনি। যে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে একের পর এক রেকর্ড গড়েছেন, সেই দলের বেঞ্চে বসে থাকতে থাকতে বিরক্ত হয়ে শেষ পর্যন্ত গত মৌসুমে যোগ দিয়েছিলেন এভারটনে। সেখানেও যখন নিয়মিত খেলার সুযোগ পেলেন না, বুঝে গেলেন শেষের ডাক শোনা যাচ্ছে। তাই এই মৌসুমে যোগ দিয়েছিলেন ফুটবলারদের অবসরযাপন কেন্দ্র হিসেবে খ্যাত যুক্তরাষ্ট্রের মেজর লিগ সকারে— ডিসি ইউনাইটেডে। একই ভাবে হ্যারি কেন, রহিম স্টার্লিং, মার্কাস রাশফোর্ড, জেমি ভার্ডির মত তরুণ স্ট্রাইকারদের উঠে আসাটাও তাঁর ক্যারিয়ারের শেষটা ত্বরান্বিত করেছে। জাতীয় দলের হয়ে সর্বোচ্চ গোলদাতার বিদায়টা অনাড়ম্বর হোক, এটা চাননি কোচ গ্যারেথ সাউথগেট, চায়নি ইংল্যান্ডের ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন। তাই এই শেষবারের মতো রুনিকে দলে ডাকা হয়েছিল।
খেলা শুরুর আগে গোটা ইংলিশ দলের কাছ থেকে সংবর্ধনা পেয়েছেন রুনি। অধিনায়ক হ্যারি কেন আনুষ্ঠানিকভাবে তাঁর হাতে তুলে দেন সম্মাননা স্মারক। ব্যাপারটা বেশ খানিকটা প্রতীকীও। রুনির কাছ থেকে ইংল্যান্ডের জার্সি গায়ে সর্বোচ্চ গোলদাতার স্থানটি ছিনিয়ে নেওয়ার জন্য সবচেয়ে যোগ্য খেলোয়াড়টির কাছ থেকেই রুনি পেলেন বিদায়ী স্মারক!

কাল যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে গোল করেছেন হেসে লিনগার্ড, ট্রেন্ট আলেকজান্ডার আরনল্ড ও কালাম উইলসন। ম্যাচে রুনির একটা দুর্দান্ত শট যুক্তরাষ্ট্রের গোলরক্ষক আটকে দেন। গোলটি হয়ে গেলে বিদায়ী মুহূর্তটি আরও রাঙিয়ে নিতে পারতেন তিনি।

খেলা শেষে ড্রেসিং রুমে ঢোকার সময় রুনির চোখে পানিই দেখেছেন সবাই। রুনির জন্য কাল কেঁদেছে তাঁর ভক্তরাও। ১২০ ম্যাচের স্মৃতি বলে কথা!

আর পড়তে পারেন