সোমবার, ১৭ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

কাজ করে বাঁচতে চায় মুরাদনগরের ইব্রাহিম প্রয়োজন একটু সহযোগীতা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১১, ২০১৯
news-image

 

মাহবুব আলম আরিফ, মুরাদনগর প্রতিনিধিঃ
গল্পটি ২০১৭ সালের। ১ মেয়ে, ১ ছেলে, মা ও স্ত্রী নিয়ে গোছানো ছোট্ট সুখের সংসার ইব্রাহিমের। ঘরকন্নার কাজ ভালোভাবেই করেন স্ত্রী। আর ইব্রাহিম (৩০) রং এর দোকানে কাজ করেন। এতে প্রতি মাসে তার হাতে আসে ৬ থেকে ৮ হাজার টাকা। তা দিয়ে পাঁচ জনের এই সংসারে সুখেই দিন কেটে যাচ্ছিল। বড় মেয়ে জান্নাত (৯) চতুর্থ শ্রেনীতে মুরাদনগর মডেল সরকারী প্রাথমীক বিদ্যালয়ে পরে । আর ছোট ছেলে আরাফাত (৫) বিদ্যালয়ে পাঠাবে ২০১৯ সালের প্রথম দিকে।
ইব্রাহিমের স্বপ্ন, তার মেয়ের লেখা পড়া শেষে ভালো পাত্র দেখে বিয়ে দিবে আর ছেলে লেখা পড়া শেষে চাকুরী করে সংসারের হাল ধরবে। মানুষের মত মানুষ হবে। ছেলে, মেয়েকে নিয়ে গর্বের কোনো শেষ নেই ইব্রাহিমের।

গল্পটা এভাবেই এগোতে পারতো। কিন্তু ২০১৮ সালের মার্চ মাসে এসে ঘটে এক বিরাট ছন্দপতন। হঠাৎ রোড এক্সিডেন্টের কারণে ইব্রাহিমের ডান পা কেটে ফেলে দিতে হয়। সুখের সংসারে যেন দুঃখের কালো ছায়ায় মুষড়ে পড়লো কুমিল্লার মুরাদনগর সদর এলাকায় বসবাসরত এ পরিবারটি। সংসারের একমাত্র উপার্জনক্ষম মানুষটি অসুস্থ হওয়ায় চরম দুরাবস্থার মুখে পড়ে পরিবারটি।

এক্সিডেন্টের পর তাকে সুস্থ্য করতে খরচ হয়েছে প্রায় ৮ লক্ষ টাকা। নিজের ভিটে মাটি একটু ছিলো সেটি বিক্রয় করে পেয়েছেন ৮০ হাজার টাকা আর বাকি টাকা দোকানের মালিক ও দোকান মালিকের আত্মিয় স্বজনরা জোগার করে তার চিকিৎসা শেষ করে।

ইব্রাহিম সুস্থ্য হয়েছে ঠিক কিন্তু বর্তমানে তার একটি পা না থাকার কারণে ভারি কোন কাজ করতে পারছে না। টাকার অভাবে বন্ধ হয়ে গেছে ছেলে, মেয়ের লেখাপড়া। প্রথম দিকে আত্মিয় স্বজনরা সহযোগীতা করলেও বর্তমানে সেটিও আর মিলছে না। তাই অন্যের বাসায় কাজ করে দু’মুঠো খাবার জোগাতে হিমসিম খাচ্ছে মা ও স্ত্রীর।

ইব্রাহিম বলেন, অসুস্থ্য হবার পর থেকে আমার কোন ইনকাম না থাকায় দুই সন্তানের লেখাপড়া বন্ধ হয়ে গেছে। আমার মা আর স্ত্রী অন্যের বাড়ী কাজ করে যে টাকা পায় তা দিয়ে সংসার চালাতেই হিমসিম খেতে হয়।

সন্তানের লেখাপড়াতো অনেক দুরের কথা। অন্যের কাছে হাত পেতে সহযোগীতা নিয়ে তো আর সারা জীবন পাড় কারা যায় না। আমার খুব ইচ্ছে সামাজের বৃত্তবানরা যদি একটু সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে মুরাদনগর সদরে আমাকে একটি ছোট দোকানের ব্যবস্থা করে দিতো তাহলে হয়তো আবার আমার সন্তানরা স্কুলে যেতে পারতো। মা ও স্ত্রীকে হয়তো আর অন্যের বাড়ী কাজ করতে হতোনা।

গত কয়েক মাসে ধরে অনেক চেষ্টা করেছি মুরাদনগর বাজারে রাস্তার পাশে একটি ছোট্ট পান দোকান নিয়ে বসতে, কিন্তু সেখানেও সম্ভব হয়নি। যেখানেই পান দোকান নিয়ে বসতে যাই সেখানেই বাধা আসে।

পরিবারটিকে আর্থিক সাহায্য করতে চাইলে পাঠানো যাবে নিম্নোক্ত উপায়ে: বিকাশ নম্বর: ০১৯৪৩৭০৯২২৫।

আর পড়তে পারেন