মঙ্গলবার, ১৯শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং

এবার মন্ত্রীদের সম্পদের খোঁজ নেওয়া হচ্ছে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ২৯, ২০১৯
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

সাম্প্রতিক শুদ্ধি অভিযানে শুধুমাত্র ছাত্রলীগ- যুবলীগ বা অন্য অঙ্গ সংগঠন বা মধ্যস্তরের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধেই শুধুমাত্র অভিযান পরিচালনা করা হবে না। সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের সম্পদের হিসাব এবং তারা কোন অবৈধ কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত আছে কিনা সে ব্যাপারেও তদন্ত করা হচ্ছে।

শুদ্ধি অভিযানের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট একাধিক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এই অভিযানে কাউকেই বাদ দেওয়া হবে না। মন্ত্রীদের সম্পদেরও খোঁজ নেওয়া হচ্ছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, ২০০৯ থেকে মন্ত্রিসভায় যারা অন্তর্ভূক্ত হয়েছেন মন্ত্রী হওয়ার আগে কি পরিমাণ তাদের সম্পদ ছিল এবং মন্ত্রিসভায় দায়িত্বপালনকালে কি পরিমাণ বৃদ্ধি ঘটেছে এবং তাঁর আয়ের উৎস কি কি, মন্ত্রিসভার দায়িত্ব পালনকালে কোন অবৈধ বা অনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িত ছিলেন কিনা সে ব্যাপারেও খোঁজ খবর নেওয়া হচ্ছে এবং তদন্ত করা হচ্ছে।

আওয়ামী লীগ টানা তিন মেয়াদে ক্ষমতায় রয়েছে এবং তিন মেয়াদেই যারা মন্ত্রী ছিলেন তাদের প্রত্যেকের সম্পদের হিসাব নেওয়া হবে। শুধু সম্পদের হিসাব নয়। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানিয়েছে, সম্পদের হিসাবের পাশাপাশি মন্ত্রী হিসাবে দায়িত্ব পালনকালে তিনি টেন্ডার প্রক্রিয়ায় হস্তক্ষেপ করেছিলেন কিনা, টেন্ডার প্রক্রিয়ায় হস্তক্ষেপের মাধ্যমে তিনি কোন অনৈতিক সুবিধা গ্রহণ করেছিলেন কিনা, প্রাক্কলিত মূল্যের চেয়ে বেশি টেন্ডার দেওয়ার ক্ষেত্রে কাউকে সহযোগিতা করেছিলেন কিনা, মন্ত্রী থাকাকালীন সময়ে যে বিভিন্ন প্রকল্পগুলো বাস্তবায়িত হয়েছে সে প্রকল্প বাস্তবায়নে মন্ত্রীর ভূমিকা কি ছিল, কারা এই প্রকল্পগুলো বাস্তবায়িত করেছে, প্রকল্পের মান কতটকু ছিল ইত্যাদি সামগ্রিক বিষয়গুলো খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

জানা গেছে যে, প্রশাসনের উর্ধতন পর্যায়ের কয়েকজনের নেতৃত্বে এই কাজগুলো ইতিমধ্যে শুরু হয়ে গেছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, মন্ত্রিসভায় এখন যারা অন্তর্ভূক্ত হয়েছেন তাদের কর্মকাণ্ডগুলোও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

একটি সূত্র বলছে, শুধু মন্ত্রীদের নয়। কেউ কেউ অনিয়ম করে তার পরিবারের নামেও সম্পদ গড়েছেন। সেজন্য শুধু মন্ত্রীরা নয়, মন্ত্রীদের বাইরে তার স্ত্রী, পুত্র এবং নিকটাত্মীয়দের সম্পদের ব্যাপারেও খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে। গত দশ বছরে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন মন্ত্রীর বিরুদ্ধে টেন্ডারে হস্তক্ষেপ করা সহ তাঁর ঘনিষ্ঠদেরকে কাজ পাইয়ে দেয়ার ব্যাপারে প্রভাব বিস্তার করা এবং ওই কাজগুলো যথাযথভাবে না হওয়ার বিষয়টি সামনে চলে এসেছে।

বিশেষ করে স্বাস্থ্যক্ষেত্রে বেশকিছু যন্ত্রপাতি ক্রয় করা হয়েছে যেগুলো প্রাক্কলিত বাজারমূল্যের চেয়ে অনেকবেশি দামে। আবার নিম্নমানের যন্ত্রপাতি ক্রয়ের অভিযোগও কম নয়। কোন কোন মন্ত্রণালয়ের নির্মাণকাজের ক্ষেত্রে দেখা গেছেব যে নিম্নমানের কাজ হয়েছে, প্রাক্কলিত মূল্যের চেয়ে অনেক বেশি দামে জিনিসপত্র ক্রয় করা হয়েছে। এইসমস্ত অভিযগগুলো সামগ্রিকভাবে খতিয়ে দেখা হবে। শুধু টেন্ডার নয় মন্ত্রী থাকাকালে একজন মন্ত্রী নিয়োগের ক্ষেত্রে হস্তক্ষেপ করেছেন কিনা, নিয়োগবাণিজ্য করেছেন কিনা সে বিষয়টিও খতিয়ে দেখা হবে।

জানা গেছে, আওয়ামী লীগের যারা মন্ত্রী ছিলেন, মন্ত্রী থাকালীন সময় তাদের যে সম্পদের হিসাব, এম্পি থাকাকালীন সময় বা নির্বাচনকালীন যে সম্পদের হিসাব সংগ্রহ করা হয়েছে এবং সম্পদের হিসাবের পর পাঁচ বছর বা যে সময়টুকু তিনি মন্ত্রীদের দায়িত্ব পালন করেছেন তারপর তাঁর সম্পদের আয় কতটুকু বৃদ্ধি পেয়েছে বা পরিবর্তন ঘটেছে সেটা যাচাই করা হচ্ছে। একইসঙ্গে মন্ত্রণালয়ের কাজগুলো পর্যালোচনা করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে যারা শুদ্ধি অভিযানের সঙ্গে জড়িত তারা বলেছেন যে, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন যে এই শুদ্ধি অভিযান করা হবে ধাপে ধাপে এবং এটি দীর্ঘমেয়াদি একটি প্রক্রিয়া। এটার লক্ষ্য হঠাত করে একটি অভিযান পরিচালনা করে সবকিছু বন্ধ করে দেওয়া নয় বরং একটি ব্যবস্থা তৈরি করা, যে ব্যবস্থায় দুর্নীতি এবং অবৈধ কর্মকাণ্ড বন্ধ হয়। সেজন্য মন্ত্রীদেরকেও জবাবদিহিতার আওতায় আনা জরুরী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশ দিয়েছেন যে, যাদের বিরুদ্ধে মাত্রাতিরিক্ত অনিয়ম এবং সীমাহীন দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া যাবে তাদেরকেই আইনের আওতায় আনার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

সূত্রঃ বাংলা ইনসাইডার

আর পড়তে পারেন