সোমবার, ৪ আগস্ট, ২০২০

এবার এসআই'র বিরুদ্ধে ছাত্রীর মামলা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ১, ২০১৬

নিউজ ডেস্ক: রাজধানীর আদাবর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) রতন কুমারের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ এনে মামলা করেছেন নিপীড়নের শিকার বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সেই ছাত্রী। সোমবার বেলা ১টার দিকে ওই ছাত্রী ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৪-এর বিচারক সালেহ উদ্দিন আহমেদের আদালতে মামলা করেন। বিচারক ওই ছাত্রীর জবানবন্দি রেকর্ড করে তা বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। ওই ছাত্রীর পক্ষে মামলা পরিচালনা করছেন আইনজীবী হাসানুজ্জামান হেলালী।

Police
এর আগে রোববার বিকালে মোহাম্মদপুর শিয়া মসজিদের সামনে রাজধানীর শ্যামলীর আশা ইউনিভার্সিটির ছাত্রী ফারহানা আক্তার অভিযুক্ত পুলিশের ওই উপপরিদর্শকের হাতে নিপীড়নের শিকার হন। এর পরিপ্রেক্ষিতে এসআই রতনকে তার দায়িত্ব থেকে প্রত্যাহার করে নেয়া হয়েছে এবং তাকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে কর্তৃপক্ষ।

ওই ছাত্রী অভিযোগ করেন, রোববার বিকালে তিনি ইউনিভার্সিটি থেকে বেরিয়ে বই কিনতে শিয়া মসজিদের দিকে রিকশায় যাচ্ছিলেন।পথিমধ্যে মসজিদের বিপরীতে আদাবর থানার এসআই রতন কুমারসহ পুলিশের তিন সদস্য তাকে বহনকারী রিকশাটি থামান। কোনো কিছু বলার আগেই তার কাছে ইয়াবা আছে কিনা জানতে চান এসআই। এতে তিনি চরম বিব্রতকর অবস্থায় পড়েন। শুধু তাই নয়, তাকে রিকশা থেকে জোর করে নামিয়ে একটি দোকানের ভেতরে নিয়ে যায়। তাকে ইয়াবা ব্যবসায়ী বানানোর অপচেষ্টা করা হয়।

এক পর্যায়ে এসআই রতন তার (ছাত্রী) কাছে ২০০ পিস ইয়াবা আছে বলে দাবি করেন। এসময় দোকান থেকে সবাইকে বের করে দিয়ে প্রায় এক ঘণ্টা যাবৎ ওই দোকানে তার ব্যাগে তল্লাশি চালানো হয়। তার জ্যাকেট খুলতে বলা হয় ও নানা ধরনের কটূক্তি করেন। ওই ছাত্রী আরো বলেন, আমি বারবারই বলছিলাম, আপনি আমাকে সার্চ করতে পারেন না। সার্চ করতে হলে আমাকে থানায় নিয়ে চলেন। তখন ওই এসআই উত্তেজিত হয়ে নানা কটূক্তি ও অশোভন কথাবার্তা বলেন। রতন তাকে অনৈতিক প্রস্তাবও দেন। এভাবেই আমাকে শ্লীলতাহানি করা হয়। ওই ছাত্রী বলেন, পরে আমি থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ মামলা নেয়নি।

জানা গেছে, এই ঘটনার পর ঘটনাটি যাতে তেজগাঁও জোনের ডিসির কানে না পৌঁছায় সেজন্য থানার ওসিসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চালান। কিন্তু রাত ১১টা ৩ মিনিটে ডিসি ঘটনা শোনার ১ মিনিট পরই এসআই রতনকে তার দায়িত্ব থেকে প্রত্যাহার করেন।

এ বিষয়ে তেজগাঁও জোনের ডিসি বিপ্লব সরকার বলেন, ব্যক্তির দায় বাহিনী নেবে না। অপরাধ করলে তার রেহাই নেই। তিনি বলেন, ‘ঘটনা শুনে ১ মিনিটের মধ্যে তাকে শাস্তির আওতায় আনা হয়েছে। প্রয়োজনে তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।’ এবিষয়ে সোমবার এ বিষয়ে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এসআই রতনকে সাময়িক বরখাস্তের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

গত মাসে বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তা গোলাম রাব্বী ও সিটি করপোরেশনের পরিদর্শক বিকাশ চন্দ্র দাস পুলিশের নিপীড়নের শিকার হন। ওই ঘটনা দুটি সুরাহা হওয়ার আগেই পুলিশের বিরুদ্ধে আরেকটি অভিযোগ উঠল। এদিকে এসআই রতন কুমার দাবি করেন, ফারহানাকে রিকশা থেকে নামিয়ে তল্লাশি করা হয়নি। তাকে তিনি আগে থেকে চেনেন।

তিনি আদাবরের যুবদল নেতা সজিব আহমেদ রানার স্ত্রী। তার স্বামীর বিরুদ্ধে নাশকতার অভিযোগ রয়েছে। তিনি বলেন, ফারহানাকে রিকশায় দেখে বলি আপনার স্বামী ভুল ঠিকানা দিয়েছেন। তিনি এখন কোথায় থাকেন। তার সঠিক ঠিকানাটা চেয়েছি মাত্র। আর অন্য কোথাও তাকে ডাকার বিষয়টিও সঠিক নয় বলেও তিনি দাবি করেন।