সোমবার, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

এক খন্ড মাথা গুজার জায়গা চায় মুক্তিযোদ্ধা মতিন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১৮, ২০১৭
news-image

মোঃ অপু খান চৌধুরী ॥
১৯৭১ সালে দেশের প্রেক্ষাপটে অস্ত্র হাতে নিয়ে জীবন বাজি রেখে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলাম পাক হায়েনাদের বিরুদ্ধে। দীর্ঘ ৯ মাস সম্মুখ যুদ্ধ করে অনেক কষ্টের বিনিময়ে এই দেশকে স্বাধীন করেছিলাম। মনে মনে ভাবতাম আমরা আর পরাধীন থাকব না। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর বীরের মত চলবো। কিন্তু অভাবের তাড়নায় আজ পথে পথে ঘুরে বেড়াচ্ছি। ৫ ছেলে ১ মে ও স্ত্রী নিয়ে সংসার। বড় ছেলে অসুস্থ। বাকিরা বিয়ে করে অন্য জায়গায় সংসার করছে। মেয়েকে বিয়ে দিতে অনেক অর্থ ঋণ করেছি। পাওনাদারদের দেনা এখনো শোধ করতে পারিনি। নিজের কোন বসতভিটা নেই। জনৈক জবসেনের পরিত্যক্ত খালের পাশে ২ শতক জায়গায় অস্থায়ী কোন রকম একটি ছোট ঘরে বাস করি। ঝড় বৃষ্টি এলে ঘরে থাকার কোন উপায় থাকেনা।
এসব কথা বলতে বলতে দু’চোখের জল চলে আসে বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মতিনের। মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মতিন কুমিল্লা জেলার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার শশীদল ইউনিয়নের (সেনের বাজার) বেগমাবাদ গ্রামের মৃত. জুলফু মিয়ার ছেলে। ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে টগবগে যুবক এই সেই আব্দুল মতিন ঝাঁপিয়ে পড়লেন পাক হানাদারবাহিনীর বিরুদ্ধে। দীর্ঘ ৯ মাস খেয়ে না খেয়ে রাত দিন নিদ্রা বিহীন বিরামহীন কষ্ট করে শত্রুর মোকাবেলা করে স্বাধীনতা ছিনিয়ে এনেছিলাম, কারো পরাধীনতায় না থেকে স্বাধীনভাবে বেঁেচ থাকার জন্য। একটি লাল সবুজের পতাকার স্বাধীন বাংলাদেশ পেয়েছি। কিন্তু একখন্ড বসতভিটার জন্য এখনো আমি পরের জায়গায় পরাধীন রয়েই আছি। অভাবের তাড়নায় পরিবারের হাল ধরতে গিয়ে লেখাপড়া করতে পারিনি। বাবারও কোন সহায় সম্পত্তি ছিলনা। পরের জায়গায় থেকে নিজের ছেলে মেয়েদেরকেও ভালভাবে লেখাপড়া করাতে পারিনি। আমি নিজেও অসুস্থ, অর্থের অভাবে ভাল কোন চিকিৎসা নিতে পারিনা। নিজের কোন অর্থ সম্পদ না থাকায় মানুষের ধারে ধারে গিয়ে কোন রকম বেঁেচ আছি। মরার আগে যদি সরকার আমাকে মাথা গুজার একটু জায়গা দিত, তা হলে মরে গিয়েও এ দেশের একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে সার্থক হতাম।

আর পড়তে পারেন