শনিবার, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

একুশের মঞ্চে ‘অভিষেকে’র পরই কেলেঙ্কারিতে ভাইপোর নাম, মমতার পরিকল্পনায় ধাক্কা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ১, ২০১৭
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

ফের আরও এক আর্থিক কেলেঙ্কারিতে নাম জড়াল তৃণমূল কংগ্রেসের। এবার দুর্নীতির অভিযোগ যুব তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের দিকে। আর্থিক কেলেঙ্কারির ভাইপোর নাম জড়ানোয় স্বভাবতই অস্বস্তিতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। সারদা, রোজভ্যালি-সহ একাধিক চিটফান্ড ও নারদকাণ্ডের পর ফের দুর্নীতিতে নাম জড়ানোয় অস্বস্তি ক্রমশ বাড়ছে রাজ্যের শাসক দলের।

 অভিষেকের বিরুদ্ধে অভিযোগ, রাজকিশোর মোদী নামে এক বিতর্কিত প্রোমাটারের কাছ থেকে তিনি কোটি টাকারও বেশি কমিশন নিয়েছিলেন। সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে এই খবর সম্প্রচারিত হওয়ার পর থেকেই ফের বিতর্ক দানা বেঁধেছে। রাজকিশোর মোদীর বিরুদ্ধে জমির দখল নেওয়া থেকে শুরু করে খুনের মামলাও ঝুলছে। এমনই এক ব্যক্তির কাছ থেকে কমিশন নেওয়ার অভিযোগ উঠল তৃণমূল সাংসদের বিরুদ্ধে।
 সংবাদমাধ্যমটি দাবি করেছে, অভিষেকের সংস্থার সঙ্গে রাজকিশোরের আর্থিক লেনদেন সংক্রান্ত বহু নথি তাঁদের কাছে রয়েছে। অভিষেকের নাম জড়িয়ে যাওয়ায় স্বাভাবিকভাবেই এবার একেবারে মুখ্যমন্ত্রীর পরিবারের অন্দরমহলে দুর্নীতির বাসা তৈরি হয়েছে বলে প্রচার চলছে। অভিযোগ, ওই রাজকিশোরের গ্রেফতারের দাবিতেই সরব হয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।এমনই একজনের কাছ থেকেই কমিশন নিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রীর ভাইপো।

অভিযোগ, রাজকিশোর মোদী এবং অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সংস্থার মধ্যে মধ্যস্থতার কাজ করেছিলেন অশোক তুলসিয়ান নামে এক চার্টার্ড অ্যাকাউন্যা সন্ট। একাধারে তিনি ছিলেন রাজকিশোরের সংস্থা গ্রিন টেক সিটি প্রাইভেট লিমিটেডের ডিরেক্টর। অন্যদিকে অভিষেকের সংস্থা লিপস অ্যান্ড বাউন্ডসের অডিটর।

আরও অভিযোগ, আর্থিক লেনদেনের সময় কোম্পানির ডিরেক্টর পদে ছিলেন অভিষেক। সেখানে ঠিকানাও দেওয়া ছিল ৩০ বি হরিশ চ্যাটার্জি স্ট্রিট। এখন মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ির ঠিকানাও ওই একই। চিটফান্ডের পর ‘কমিশনগেট’-আর্থিক কেলেঙ্কারিতে অভিষেকের নাম জড়িয়ে যাওয়ায় তাঁকে নিয়ে মমতা বন্দ্যাপাধ্যায়ের পরিকল্পনা ধাক্কা খাবে বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল। উল্লেখ্য, এবার একুশের মঞ্চে যুবরাজ হিসেবে অভিষেক হয়েছিল অভিষেক বন্দ্যেপাধ্যায়ের। তারপরই এই ধাক্কা ধেয়ে এল তৃণমূলের দিকে। ফলে অভিষেককে নিয়ে্ মমতার পরিকল্পনা ধাক্কা খেতে বাধ্য।