সোমবার, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

উপমহাদেশের প্রথম নারী নবাব ফয়জুন্নেছার বাড়ি হতে পারে দক্ষিন কুমিল্লার শ্রেষ্ঠ পর্যটক কেন্দ্র

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ২৭, ২০১৭
news-image

 

সেলিম চৌধুরী হীরাঃ
কুমিল্লার লাকসাম পৌর এলাকায় দৃষ্টি নন্দন নির্মান শৈলীর কারনে ভারত উপ মহাদেশের প্রথম নারী নবাব ফয়েজুন্নেছা চৌধুরানীর স্মৃতি বিজড়িত ডাকাতিয়া নদীর তীর ঘেষে গড়ে উঠা পশ্চিমগাঁও নবাব বাড়িটি এক কালে এ অঞ্চলে রাজবাড়ী হিসাবে পরিচিত ছিল। কিন্তু রক্ষনাবেক্ষন ও সংস্কারের অভাবে প্রায় ২০০ বছরের পুরনো বিভিন্ন স্থাপনা আজ কালের আর্বত্তে হারিয়ে যাচ্ছে। এ জমিদারের বিস্তৃত্ব ছিল তৎকালীন ত্রিপুরা রাজ্যের চব্বিশ পরগনার ১৪ মৌজা নিয়ে। জমিদারী প্রথা বিলুপ্তির পর যার যার মত করে বিভিন্ন পেশায় গিয়ে জীবন যাপন করছেন। জমিদার প্রথম নারী নবাব ফয়জুন্নেছা চৌধুরানীকে এখন আর কেউ স্মরন করে না। দীর্ঘ ১৮১ বছর পার হলেও রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি এখনো মিলেনি তার ভাগ্যে।
১৮৩৪ সালে কুমিল¬া জেলার তৎকালীন হোমনাবাদ পরগনা লাকসামের পশ্চিমগাঁও গ্রামে নবাব ফয়জুন্নেছা জন্ম গ্রহণ করেন। জমিদার আহম্মদ আলী চৌধুরী হলেন নওয়াব ফয়জুন্নেছা চৌধুরানীর পিতা। তৎকালীন হোমনাবাদের জমিদার আহম্মদ আলী চৌধুরী ও ভুলুয়ার জমিদার আসাদ চৌধুরী কন্যা আরফান্নেছা চৌধুরীর জ্যেষ্ঠ কন্যা হলেন এ মহিয়ষী নারী ফয়জুন্নেছা চৌধুরানী। নবাব ফয়জুন্নেছার দুই মেয়ের মধ্যে এক মেয়ে সৈয়দা বদরুন্নেছা চৌধুরানীকে নিজ গ্রাম পশ্চিমগাঁওয়ে এবং অপর মেয়ে সৈয়দা আসাদুন্নেছা চৌরানীকে বৃহত্তর সিলেটের হবিগঞ্জ জেলার জমিদার বাড়ীতে বিয়ে দেয়। এছাড়া সরকারের আন্তরিকতায় এ নবাব বাড়ীটি সংস্কার করে দেশের বৃহত্তম পর্যটন নগরী হিসাবে গড়ে তুললে এ অঞ্চলের মানুষ ফিরে পেতো অতীত ঐতিহ্য।
৬ষ্ঠ বংশধর আহম্মদ আলী চৌধুরীর পিতা জমিদার নন্দিনী আরফান্নেছা মাতার তৃতীয় সন্তান এ ফয়জুন্নেছা। বাল্যকালেই ১৮৪৪ খ্রিঃ সেপ্টেম্বর মাসে আকালেই তিনি পিতৃহারা হলেন। তখন তিনি ১০ বছরের বালিকা মাত্র। ১৮৪৯ সালের শেষ দিকে অনেক নাটকীয় ও কৌশলী স্রতের বেড়াজালে অবশেষে ফয়জুন্নেছার বিয়ে সম্পন্ন হলো দ্বিতীয় স্ত্রী হিসাবে তরুন প্রেমিক জমিদার গাজী চৌধুরীর সাথে। এরমধ্যে দুটি কন্যা সন্তান জন্ম নিল আরশাদুন্নেছা ও বদরুন্নেছা। ১৮৮৫ সালে মায়ের মৃত্যুর পর ফয়জুন্নেছা জমিদারীর দায়িত্ব তুলে নিয়ে কর্মতৎপরতার মাধ্যমে নিজেকে গড়ে তুলেন একজন সুদক্ষ, প্রজাহিতৈষী, শিক্ষানুরাগী, তেজস্বী ও বিচক্ষণ শাসক হিসাবে। তিনি পিতা-মাতার শোককে হাতিয়ার করেই দীর্ঘ ২১ বছর জমিদারী শাসনে হয়ে উঠেন জীব সংগ্রামের এক অনন্যা মহিয়ষী নারী। অবশেষে ১৯০৩ সালে ২৩ সেপ্টেম্বর এ মহিয়ষী প্রথম রানী নবাব ফয়জুন্নেছা চির নিদ্রায় শায়িত হন তারই নির্মিত নবাব বাড়ি জামে মসজিদের পাশে।