শনিবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

ঈদের ছুটিতে ঘুরে আসতে পারেন কুমিল্লায়

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ২৭, ২০১৭
news-image

 

সেলিম সজীবঃ

ঈদ ছুটিতে আনন্দকে বাড়িয়ে তুলতে ঘুরে আসতে পারেন ঐতিহ্যধারণ করা প্রকৃতির বুকে। যানজট আর কোলাহল মুক্ত পরিবেশে ঈদের আনন্দকে উপভোগ করতে পর্যটন নগরী কুমিল্লা ঢুঁ মেরে আসতে পারেন। পর্যটন শিল্পের বিচিত্র শাখায় সমৃদ্ধ এ নগরী। ব্যাংক ও ট্যাংকের (পুকুর) শহর কুমিল্লা। ত্রিপুরার রাজারা একসময় গ্রীষ্মকালীন অবকাশ যাপনের কেন্দ্র হিসেবে গোড়াপত্তন করেছিলেন এই কুমিল্লায়। কুমিল্লার বুকজুড়ে রয়েছে অসংখ্য আদি নিদর্শন। প্রাচীন সভ্যতার নীরব কুমিল্লা। যার অবস্থান ঢাকা ও চট্টগ্রাম জেলার মাঝামাঝি। প্রকৃতির হাতে গড়া ভূমি খ্যাত কুমিল্লায় আছে নানা দর্শনীয় স্থান। শালবন বৌদ্ধ বিহার বাংলাদেশের প্রাচীন সভ্যতার নিদর্শনগুলোর মধ্যে অন্যতম। কুমিল্লার ময়নামতি কোর্টবাড়ীতে খননকৃত প্রততাত্ত্বিক নিদর্শনের মধ্যে শালবন বিহার অন্যতম। পূর্বে এই প্রতস্থানটি শালবন ‘রাজার বাড়ি’ নামে পরিচিত ছিল। কিন্তু খননের পর ১১৫টি ভিক্ষুক বিশিষ্ট ৫৫০ ফুট বাই ৫৫০ ফুট পরিমাপের একটি বৌদ্ধ বিহারের ধ্বংসাবশেষ উন্মোচিত হওয়ায় একে ‘শালবন বিহার’ নামে আখ্যায়িত করা হয়। যার আসল নাম ছিল ‘ভবদেব মহাবিহার’। ইতিহাস থেকে জানা যায়, বিহারটির আশপাশে একসময় শাল-গজারির ঘন বন ছিল বলেও বিহারটির নামকরণ হয়েছে শালবন বিহার নামে। খ্রিস্টীয় সাত শতকের মধ্যভাগ হতে আট শতকের মধ্যভাগ পর্যন্ত দেব বংশের শাসকগণ এই অঞ্চল শাসন করেন। দেব বংশের শাসনামলে চতুর্থ রাজা ভবদেব কর্তৃক এই ‘মহা বিহার’ নির্মিত হয়। বর্গাকার হিসেবে বিহারটির প্রতিটি বাহুর দৈর্ঘ্য ৫৫০ ফুট। চার বাহুতে সর্বমোট সন্ন্যাস ক ১১৫টি। মধ্যভাগে একটি উন্নত বৌদ্ধ মন্দির, মূল মন্দিরের চারপাশে ছোট ছোট ১২টি মন্দির ও ৮টি স্তূপ উন্মোচিত হয়েছে। উত্তর বাহুর মধ্যবর্তী স্থানে বিশালাকার তোরণ এই বিহারের বিশেষ আকর্ষণ। আকারে পুরো বিহারটি চৌকো। বিহারের চারদিকের দেয়াল ৫ মিটার পুরু। বিহারে ঢোকা বা বের হওয়ার পথ মাত্র একটাই। বিহার অঙ্গনের ঠিক মাঝে কেন্দ্রীয় মন্দির অবস্থিত ছিল। বিহারের মূল ফটকের পূর্বপাশে খননের ফলে একটি প্রাচীন কূপের কাঠামো উন্মোচিত হয়। সেই সময়কার বৌদ্ধ শাসকশ্রেণি ও ভিক্ষুগণ এই কূপ থেকে পানি আহরণ করে যাবতীয় প্রয়োজন মেটাতেন বলে ধারণা পাওয়া যায়। কূপটির সময়কাল আনুমানিক সাত হতে আট শতক। মন্দির এবং মন্দির পার্শ¦বর্তী অঞ্চলে কয়েক দফা প্রতœতাত্ত্বিক খননের মাধ্যমে বিভিন্ন মূল্যবান প্রতœবস্তু পাওয়া গিয়েছে। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্যÑ পোড়ামাটির ফলক, ব্রোঞ্জের মূর্তি, নকশাকৃত ইট, সিলমোহর ও বিভিন্ন মূল্যবান মুদ্রা। শালবন বিহারের ছয়টি নির্মাণ ও পুনর্নির্মাণ পর্বের কথা জানা যায়। কেন্দ্রীয় মন্দিরটি তৃতীয় নির্মাণ যুগে ক্রুশ আকৃতিরূপ ধারণ করে ওই সময়ে চতুর্দিকসহ বিহার দ্বারা বেষ্টিত হয়ে বিশাল প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়। বিহারটি মধ্য যুগের একটি প্রশাসনিক কেন্দ্র ও বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে সমন্বিতভাবে ব্যবহৃত হয়েছে। এই বিহার খননে প্রাপ্ত বিপুল পরিমাণ প্রতœসম্পদ স্থানীয় জাদুঘরে সঞ্চিত ও প্রদর্শিত হচ্ছে। প্রাকৃতিক শোভায় সুশোভিত কুমিল্লা শালবন বিহারে ভিন্ন এক আবহ তৈরি করে রাখে দর্শনার্থীদের মাঝে। বিরল সৌন্দর্য ও সভ্যতার আদি নিদর্শন এ অঞ্চলের মানুষের বর্ণাঢ্য জীবনধারা, প্রকৃতির রূপ বৈচিত্র্য দেশি- বিদেশি ভ্রমণবিলাসীদের চিরকাল আকর্ষণ করেছে। শালবন বিহার মূলত সপ্তাহে সাত দিনই সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৬টা পর্যন্ত খোলা থাকে। শুধুমাত্র বছরের দুই ঈদের দিনই বিহারটি বন্ধ থাকে। সাপ্তাহিক ছুটি কিংবা সরকারি ছুটির দিনগুলিতে এখানে থাকে দর্শনার্থীদের উপচেপড়া ভিড়। টিকিটের মূল্য জনপ্রতি ২০ টাকা। তবে ৫ বছরের বয়সের নিচে শিশুদের কোনো টিকিট লাগে না। যারা ঢাকা থেকে আসতে চান, তারা সায়েদাবাদ থেকে বাস সার্ভিস তিশা, এশিয়া লাইন, রয়েল, প্রাইম, কর্ডোভা হয়ে আসতে পারেন। ঢাকা থেকে কুমিল্লা শহরের দূরত্ব মাত্র ৯৬ কিলোমিটার। সময়ের ব্যবধানে দুই থেকে আড়াই ঘণ্টা লাগে মাত্র। যেখান থেকেই আসুন, আপনাকে প্রথমে কুমিল্লা শহরে নামতে হবে। তারপর কান্দিরপাড় বা টমছম ব্রিজ থেকে সিএনজি, অটোরিকশা যোগে অনায়াসে পৌঁছে যেতে পারেন কুমিল্লা শালবন বিহারে। শালবন বিহার দেখা ছাড়াও এর পাশাপাশি দূরত্বে যা দেখতে পাবেন দেশের সবচেয়ে বড় ৩০ ফুট উঁচু একটি বৌদ্ধ মন্দির।কুমিল্লা নগরের একমাত্র বিনোদন কেন্দ্র ধর্মসাগরে ঈদের ছুটিতে পরিবার- পরিজন নিয়ে বেড়াতে এসেছে শত শত মানুষ। ময়নামতি জাদুঘর, ব্লু ওয়াটার পার্ক, লালমাই পাহাড়, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়, দৃষ্টিনন্দন কুমিল্লা ক্যাডেট কলেজ, বার্ড একাডেমি, ওয়ার সিমেট্রি, সেনানিবাস জাদুঘর ইত্যাদি। ভ্রমণ শেষে যাওয়ার সময় কুমিল্লার ঐতিহ্যবাহী খাদির পোশাক ও রসমালাই নিতে ভুলবেন না।