শনিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং

ইরান-যুক্তরাষ্ট্র দ্বন্দ্ব: ঝুঁকিতে বিশ্ব অর্থনীতি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ৮, ২০২০
news-image

 

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ;
ইরানের বিপ্লবী গার্ড বাহিনী কুদস ফোর্সের প্রধান জেনারেল কাসেম সোলাইমানির হত্যাকাণ্ডকে ঘিরে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে পুরো বিশ্বজুড়ে। তবে এর মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে মধ্যপ্রাচ্যে। সোলাইমানি হত্যার কঠোর প্রতিশোধ নেয়ার হুমকি দিয়েছে ইরান। যদিও ইরানের হুমকিতে থেমে নেই যুক্তরাষ্ট্র। দেশটিকে পাল্টা হামলার হুঁশিয়ারি দিয়েছে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। যুক্তরাষ্ট্রের কোনো ক্ষতি হলে ইরানের ৫২টি স্থাপনায় মার্কিনি হামলা চালানো হবেও বলে জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প।

তবে ট্রাম্পের হুমকির জবাবে পাল্টা হুঁশিয়ারি দিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি। সোমবার হুঁশিয়ারি বার্তা দিয়ে টুইট করেছেন প্রেসডেন্ট রুহানি। সেখানে তিনি বলেছেন, ইরানি জনগণকে যেন কোনো ধরণের হুমকি না দেয়া হয়। হুমকিতেই থেমে নেই ইরান। সোলাইমানি হত্যার প্রতিশোধের যে হুমকি ইরান দিয়েছে এরইমধ্যে সেটি বাস্তবায়ন করতেও শুরু করেছে তারা। বুধবার ভোরে ইরাকের মার্কিন বিমানঘাঁটি ‘এইন আল-আসাদের’ ওপর ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে ইরানের ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনী (আইআরজিসি)। এক ঘণ্টা পার না হতেই আরেকটি মার্কিন ঘাঁটিতে পুনরায় হামলা চালিয়েছে ইরান।

ইরানের ক্ষোভ, দুই দেশের হুমকি-পাল্টা হুমকি, প্রতিশোধ নেয়ার হুঁশিয়ারি। এই সবকিছুর আসলে ফলাফল কি? কোথায় যেয়ে থামবে দুই দেশের মধ্যকার এই ব্যাপক সংঘর্ষ? বিশ্লেষকদের মতে, মার্কিনিদের এই হামলার চরম মূল্য দিতে হতে পারে বিশ্ববাসীকে। থেমে যেতে পারে বিশ্বের অনেক অংশের কার্যকলাপ। এমনকি তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের আশঙ্কাও করছে বিশ্লেষকরা। ইরান ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে যে যুদ্ধ লাগবে সে বিষয়ে এখন আর সন্দেহের কোনো জায়গা নেই। তবে এই যুদ্ধের পরিণতি কতটা ভয়ংকর হতে পারে এখন সেটাই দেখার বিষয়। তবে অর্থনীতিতে ব্যাপকভাবে এই যুদ্ধের প্রভাব পড়তে পারে।

বাব আল-মান্দেব প্রণালী একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ জায়গা। ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্রের দেশগুলোতে প্রবেশকারী তেলবাহী বা অন্য সব পণ্যবাহী জাহাজগুলো ভারত মহাসাগর থেকে ইয়েমেন উপকূলের বাব আল-মান্দেব প্রণালী দিয়ে প্রবেশ করে। এরপর এডেন উপসাগর ও লোহিত সাগর হয়ে ভূমধ্যসাগর হয়ে সুয়েজ খাল পারি দিয়ে আটলান্টিক মহাসাগরে যায় জাহাজগুলো। সেখান থেকেই ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্রের পথে পাড়ি জমায় জাহাজগুলো। যদি ইরান এবং যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে যুদ্ধ লাগে তবে পুরো মধ্যপ্রাচ্যে জুড়ে সেই যুদ্ধ ছড়িয়ে পড়ার আশংকা করার জোরালো কারণ রয়েছে। ইরান সমর্থিত হওয়ায় সেই যুদ্ধে জড়িয়ে পড়তে পারে হুথিরাও। হুথিরা যদি বাব আল-মান্দেব প্রণালী বন্ধ করে দেয় তাহলে নিঃসন্দেহে সেই পথ দিয়ে জাহাজ চলাচল কঠিন হয়ে পড়বে।

এই পথ ব্যবহার করে যে জাহাজগুলো যুক্তরাষ্ট্রে যেতে চায় তারা যদি বিকল্প পথ ব্যবহার করতে চায় তাহলে গন্তব্যে পৌঁছাতে বাড়তি ২৯ দিন সময় লাগবে। ফলে জাহাজগুলোর জ্বালানি তেল বেশি লাগবে এবং তাদের পরিবহন খরচ অত্যাধিক পরিমাণে বেড়ে যাবে। এছাড়া অন্যান্য বেশ কিছু ঝুঁকিও থাকবে সেখানে। অপরদিকে বিকল্প পথে ইউরোপের দেশগুলোতেও যেতে নির্ধারিত সময়ের চেয়ে তুলনামূলক অনেক বেশি সময় লাগবে। সেক্ষেত্রে খরচ এবং সময় দুটোই বাড়বে। এর একটি ফলাফল দাঁড়াতে পারে বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি। ইরান এবং যুক্তরাষ্ট্র যদি যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে তাহলে তেলের দাম ঠিক কতটা বেড়ে যাবে সেটি ধারণার বাইরে। জ্বালানি তেলকে কেন্দ্র করে বিশ্বব্যাপী ভয়ংকর অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের সৃষ্টি হবে যা সামলানো কষ্টকর হয়ে পড়বে।

আরেকটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ নৌ-রুট হল পারস্য উপসাগরের হরমুজ প্রণালী। এই রুট দিয়ে বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন দেশে ৩০ থেকে ৪০ ভাগ জ্বালানি তেল পাঠানো হয়। জাপানে প্রতিদিন যে পরিমাণ জ্বালানি তেলের প্রয়োজন হয় তার শতকরা ৯০ ভাগ হরমুজ প্রণালী দিয়ে পার হয়। চীনের জ্বালানি তেলের চাহিদার সম্ভবত শতকরা ৪০ ভাগই সরবরাহ করা হয় এই রুট দিয়ে। এছাড়া ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্রের দেশগুলোতে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ তেল সরবরাহ করা হয় এই রুটের মাধ্যমে।

হরমুজ প্রণালী বন্ধ করে দেয়াও হতে পারে ইরান ও যুক্তরাষ্ট্রের সম্ভাব্য এই যুদ্ধের কারণে। বর্তমানে এই আশংকাই করা হচ্ছে। এর প্রধান কারণ হলো হরমুজ প্রণালীর প্রধান নিয়ন্ত্রণ ইরানের হাতে। তাই দেশটি চাইলেই খুব সহজে এই প্রণালী বন্ধ করে দিতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এছাড়া কয়েকটি যুদ্ধ জাহাজের ওপর হামলা চালিয়ে এরপর সেগুলো ডুবিয়ে দিলে অথবা তেলবাহী কয়েকটি বাণিজ্যিক জাহাজ ডুবিয়ে দিয়েও হরমুজ প্রণালী বন্ধ করা যেতে পারে।

তবে যদি জাহাজ ডুবিয়ে এই রুট বন্ধ না করা হয় তবুও এই রুটটি হবে অন্যতম যুদ্ধক্ষেত্র। ফলে গুরুত্বপূর্ণ এই পথ ব্যবহার করে বিশ্বব্যাপী তেল সরবরাহ ঠিক রাখা সম্ভব হবে না। এরকম পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে বিশ্বব্যাপী তেলের দাম হু হু করে বাড়তে শুরু করবে। ব্যারেল প্রতি তেলের দাম ঠিক কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে সেটি এখন কল্পনাও করা সম্ভব নয়।

যদি যুদ্ধ বাঁধে এবং পরিস্থিতি এই রকম হয় তবে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প অথবা পুরো যুক্তরাষ্ট্র মিলেও সেটি সামলাতে পারবে না। ইরানের বিপ্লবী গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসি’র কুদস ব্রিগেডের কমান্ডার জেনারেল কাসেম সোলায়মানিকে হত্যার পর এরইমধ্যে বিশ্ববাজারে তেলের দাম ব্যারেলপ্রতি ৫ ডলার বেড়েছে।

মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ইরাক, কুয়েত, সৌদি আরব, বাহরাইন, কাতার, সংযুক্ত আরব আমিরাত, ওমান বিশ্ববাজারে তেল সরবরাহ করে থাকে। বিশ্ববাজারে তেল সরবরাহে এগিয়ে আছে ইরানও। যদি যুদ্ধ শুরু হয় তবে প্রতিটি দেশের তেল উৎপাদন ও সরবরাহ ব্যাহত হবে। হরমুজ প্রণালী এবং বাব আল-মান্দেব প্রণালী যদি যুদ্ধক্ষেত্রে পরিণত নাও হয় পারস্য উপসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলোতে অবশ্যই যুদ্ধের সংকেত বেজে উঠবে। এতে তেলের উৎপাদন এবং সরবরাহ মারাত্মকভাবে বিঘ্নিত হবে। ফলে নিঃসন্দেহে বিশ্ব অর্থনীতি অস্থিতিশীল হয়ে পড়বে।

উপরোক্ত বিষয়গুলোকে যুদ্ধের তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া হিসেবে ধারণা করা হচ্ছে। বিশ্ব অর্থনীতির জন্য আরো অনেক নেতিবাচক খবর রয়েছে। যেমন পারস্য উপসাগরীয় অঞ্চলের তেলসমৃদ্ধ দেশগুলোতে যুদ্ধ ছড়িয়ে পড়ার পর তেল স্থাপনা ও সমুদ্রবন্দরগুলো চরম ক্ষতির সম্মুখীন হবে। তবে হতাশার কথা হল অল্প সময়ের মধ্যেই এসব পরিস্থিতিকে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনা সম্ভব হবে না। সম্ভাব্য যুদ্ধের সুদূর প্রসারি প্রভাব হল এটি। এই প্রভাবের ফলে পশ্চিমা দুনিয়া যতটা ক্ষতিগ্রস্ত হবে ততোটাই ক্ষতিগ্রস্ত হবে মধ্যপ্রাচ্য।

মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর নেতিবাচক পরিস্থিতি প্রভাব ফেলবে এশিয়ার দেশগুলোতেও। মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলংকা, নেপাল, মিয়ানমার, থাইল্যান্ড, ফিলিপাইনসহ বিভিন্ন দেশের শ্রমিকরা কাজ করে। যুদ্ধ পরিস্থিতিতে সেখানে থেকে কাজ করা তাদের জন্য সম্ভব নাও হতে পারে। তাই বাধ্য হয়েই সবাইকে তাদের নিজ দেশে ফিরে যেতে হবে। এর ফলে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো তাৎক্ষণিকভাবে একটি বড় ধরণের শ্রমিক শূন্যতার চাপে পড়বে। বিপর্যস্ত হবে তাদের অর্থনৈতিক ব্যবস্থাও। তবে মধ্যপ্রাচ্যের পাশাপাশি সমানভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে জনশক্তি ফেরত দেশগুলো।

মধ্যপ্রাচ্যে ব্যাপক পরিমাণে বাংলাদেশি জনশক্তি রয়েছে। সেখানে কাজ করে দেশে বৈদেশিক মুদ্রা পাঠাচ্ছে তারা। ইরান-যুক্তরাষ্ট্রের যুদ্ধ শুরু হলে এবং সেই যুদ্ধ মধ্যপ্রাচ্যে ছড়িয়ে পড়লে এই সমস্ত দেশের জীবন-জীবিকা মারাত্মকভাবে হুমকির মুখে পড়বে। এতে দেশে ফিরতে বাধ্য হবে বাংলাদেশিরাও। ফলে দেশের অর্থনীতি ও বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের ক্ষেত্রে বিশাল নেতিবাচক প্রভাব পড়বে।

তবে তুলনামূলকভাবে সুবিধাজনক অবস্থানে থাকবে ইরান। কারণ দেশটির জনগণ নিজেরাই নিজেদের কাজ করে থাকে। সেখানে বিদেশি শ্রমিকের প্রয়োজন হয় না তাদের। তাই যতো বড় যুদ্ধ হোক নিজেদের অর্থনীতিকে সচল রাখতে সক্ষম তারা। এর বিপরীতে মধ্যপ্রাচ্যের অন্যান্য দেশগুলো বড় ধরনের বিপদের সম্মুখীন হবে। সেখানে তাদের বড় সমস্যা হয়ে দেখা দেবে শ্রমিক সংকট। বিদেশি শ্রমিকরা চলে গেলে তাদের কল-কারখানাসহ অন্যান্য কর্মক্ষেত্রও মোটামুটি বন্ধ হয়ে যেতে পারে। কারণ মূলত বিদেশি শ্রমিকরাই মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর কল-কারখানায় কাজ করে তাদের অর্থনীতিকে সচল রেখেছেন।

আর পড়তে পারেন