শুক্রবার, ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

আসল বিএনপির নাসিমের গোপন কাহিনী! যেনে নিন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ১, ২০১৬

nasim3
দেশের চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে বিএনপিকে জিয়ার আদর্শে পুনর্গঠিত করতে ও দলের মধ্যকার বুদ্ধিভিত্তিক রাজনীতি প্রতিষ্ঠা করতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন বিএনপির পুনর্গঠনের উদ্যোক্তা কামরুল হাসান নাসিম। অন্যদিকে বিএনপির বড় একটা অংশ বলছে- নাসিমের এই উদ্যোগে অন্য কিছু আছে। সরকারের ইন্ধন আছে। নাসিম জবাবে বলছেন, আমি তো বিএনপির ‘বড়’ পদধারি কেও না। তাহলে সরকার আমাকে দিয়ে তা করাবে কেন? কাজেই তা আদর্শিক লড়াই। বিএনপিকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ফিরতে হবে এবং জাতীয়তাবাদী হতে হবে।

এদিকে গেল বছরের ৯ জানুয়ারী থেকে পাক্ষিক ক্রীড়ালোকের সম্পাদক, গবেষক, লেখক ও কবি কামরুল হাসান নাসিম বিএনপির পুনর্গঠনে থেকে নিজেকে ওষুধওয়ালা বলে দলের চিকিৎসা করবেন বলে একের পর কর্মসূচীতে ব্যস্ত রয়েছেন। ডেকেছেন দলীয় বিপ্লব। শুরুটা হয়, ৯ জানুয়ারি রাজধানীর একটি অভিজাত হোটেলে সংবাদ সম্মেলন করে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের নেতৃত্বাধীন বিএনপি নেতৃত্ব দেওয়ার যোগ্যতা হারিয়ে ফেলেছে বলে ঘোষণা করেন। জিয়াউর রহমানের আদর্শের বিএনপিকে ফিরিয়ে আনার ঘোষণা দিয়েছিলেন আজকের দেশব্যাপি আলোচিত এই কামরুল হাসান নাসিম।

nasim1
সেই ধারাবাহিকতায় সংকট উত্তরণে সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে বিএনপির পুনর্গঠনের জন্য ডেকেছেন দলিয় বিপ্লব, ঝুঁকি নিয়ে মাঠে রয়েছে তার হাতে সাথে সমন্বয়ে থাকা ৬৪ জেলার নেতাকর্মীরা। দলীয় বিপ্লবের মহড়াও দিয়েছেন দুই বার। যারা দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে রাজনৈতিক- সাংস্কৃতিক আঙ্গিকে যেতে চাইলে দুই বারই দলের ছাত্রদল, যুবদল দ্বারা আক্রমনের শিকার হয়েছেন।

এদিকে গেল ২৬ নভেম্বর সময়ে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে কামরুল হাসান নাসিম বসিয়েছিলেন জাতীয়তাবাদী জনতার নিম্ন আদালত। যেখানে তিনি ছিলেন বাদী। উপস্থিত জনতা ছিল বিচারক হিসাবে। আর বিবাদী হিসাবে বিএনপির পাচটি অসুখ। সেই আদালতে বিচার হিসাবে কামরুল হাসান নাসিমের দুটি রায় পেয়েছেন। একটি নয়াপল্টন দলীয় কার্যালয়ের সামনে জনতার উচ্চ আদালত বসানোর রায়, অন্যটি দলীয় গঠনতন্ত্র স্থগিত করার রায়। এই রায়কে কেন্দ্র করে তিনি বিএনপির পুনর্গঠনের কাজ করে যাচ্ছেন।

চলছে- দলের নেতাকর্মীদের নিয়ে অহিংসভাবে জনতার উচ্চ আদালত বসানোর পূর্ব মহড়া। এদিকে তিনি ঘোষণা দিচ্ছেন নয়া পল্টনের কার্যালয়ের সামনেই বসাবেন জাতীয়তাবাদী জনতার উচ্চ আদালত। সেই আদালতে তিনি বাদী হিসাবে কালজয়ী বক্তব্য রাখতে চান। উপস্থিত থাকার কথা বলছেন গেল ২০ বছরের দলের কাউন্সিলরদের। যারা বিচারক হিসাবে দলের গঠনতন্ত্র স্থগিত করবেন এবং দলের নতুন নেতৃত্ব নির্ধারণে ভুমিকা রাখবেন।

এদিকে দ্বিতীয় মহড়ার পর সোমবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি নেতাদের উদ্দেশে নাসিম বলেন, “প্রস্তুত থাকো সাত দিন ১৭ ঘণ্টার অপেক্ষায়, গাইতে হবে তোমাদেরই জাতীয়তাবাদের গান। তার মানে, বিএনপির নয়া পল্টনের কার্যালয়ের সামনে উচ্চ আদালত বসবে। এটা দলীয় বিপ্লব। এর সময়সীমা হবে সাত দিন ১৭ ঘণ্টা।

“সেই আদালতে কী হবে? বিএনপির পুনর্গঠন হবে গেল ২০ বছরের কাউন্সিলারদের দ্বারা। ওই উচ্চ আদালতের বিচারক হবেন গেল ২০ বছরের যেসব কাউন্সিলর জীবিত আছেন তারা। আর বাদীর কথা বলব আমি কামরুল হাসান নাসিম।”
এসময় তিনি জানান, গত ২৬ নভেম্বর জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে নিম্ন আদালত বসেছিল। বিএনপির পাঁচটি ‘অসুখ’ হয়েছে এবং তা সারানোর কাজ করছেন বলেও দাবি করেন কামরুল হাসান নাসিম। সরকারের সমালোচেনা না করার যুক্তি তুলে ধরেছেন তিনি।
আদালত কবে বসবে জানতে চাইলে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, “বিপ্লব দিনক্ষণ দিয়ে হয় না। তারিখ বলা হবে না। দলীয় বিপ্লব তারিখ দিয়ে হয় না। যে কোনো দিন হবে ।”

এসময় রোববার বিএনপি অফিস অভিমুখে ‘শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে হামলার’ জন্য দলটির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর নেতৃত্বে ‘সন্ত্রাসী বাহিনীকে’ দায়ী করে ৩০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দাবি করে তা দিতে ২৪ ঘণ্টা সময় বেঁধে দেন নাসিম। হামলায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন ‘ছাত্রলীগের ছেলেরাও’ ছিল বলে তার দাবি।

অন্যদিকে সর্বশেষ গত ২ জানুয়ারি ও ১৭ জানুয়ারি নয়া পল্টনের কার্যালয়ের অভিমুখে যেতে গিয়ে বিএনপি নেতা-কর্মীদের তোপের মুখে তার কর্মীরা পালিয়ে যায়।

nasim2
সংবাদ সম্মেলনে কামরুল হাসান নাসিম বলেন, “গতকাল আমাদের একটি রাজনৈতিক-সাংস্কৃতিক মহড়া ছিল, সবার হাতে বই ছিল। আমাদের পিকআপটি পুড়ানো হয়েছে। কালকে আমাদের ৩০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে।
“আমি এই সংবাদ সম্মেলনে বলতে চাই, গতকাল রুহুল কবির রিজভী তার নিজস্ব সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে আমাদের ওপর আঘাতটা করিয়েছে। ওই হামলায় ছাত্রলীগের ছেলেরাও ছিল, আমি দেখেছি।”

“আমি তাকে ২৪ ঘণ্টা টাইম দিচ্ছি, তিনি যাতে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আমাদের ৩০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দিয়ে দেন। আগামীকাল ২টা ১৭ মিনিটের মধ্যে ক্ষতিপূরণের অর্থ না পেলে আমরা আইনগত ব্যবস্থা নিতে বাধ্য হব।”
‘বিএনপি পুনর্গঠন’ কর্মকাণ্ডের পেছনের সরকারের ইন্ধন নেই দাবি করে তিনি বলেন, “সরকারের সঙ্গে সম্পর্ক থাকলে নয়া পল্টনের অফিস দখল হয়ে যেত।”

রাজনীতিকরা অনেক সময় ‘প্রেসক্রিপসন’ অনুযায়ী কথা বলেন মন্তব্য করে তিনি বলেন, “কামরুল হাসান নাসিমকে প্রেসক্রিপশন দেওয়ার মতো বাংলাদেশ নয়, সারা দেশে বা বিশ্বে কারও জন্ম হয় নাই।
“আমি দলীয় বিপ্লবকে যেভাবে দেখছি, এমনও হতে পারে, আগামী দিনে আমি রাষ্ট্রীয় পর্যায়ের বিপ্লবেও আসতে পারি।”
সরকারের সমালোচনা না করার যুক্তি তুলে ধরে নাসিম বলেন, “সমকালীন সময়ে স্বেচ্ছাচারী কায়দায় থাকা হাসিনা সরকারের বিরুদ্ধে কথা বলি না। কেন বলি না, সেটা আমার রাজনৈতিক কৌশল। কারণ আমি মনে করি, আগে আমাদের ঘর ঠিক করতে হবে।”

সংবাদ সম্মেলনে তার আবৃত্তি করা ‘এসো কান্না করি’ শীর্ষক কবিতার ক্যাসেট ও লেখা ‘নেতৃত্ব’ নামক বই সাংবাদিকদের দেওয়া হয়।
বিএনপির পাঁচটি ‘অসুখ’ সারানোর কাজ করছেন দাবি করে নাসিম বলেন, “অসুখগুলো হলো- জনস্বার্থ সংরক্ষণের রাজনীতি করা হচ্ছে না, নাশকতাকে রাজনীতির হাতিয়ার করা হচ্ছে, বিদেশি শক্তির ওপর নির্ভরশীলতা, জাতীয়তাবাদী থেকে জামায়াতীবাদী হয়ে যাওয়া এবং আমাদের শীর্ষ নেতৃবৃন্দ দল পরিচালনায় ব্যর্থ। রোগগুলো আমাদের সারাতে হবে।”
একটি কবিতা পড়ে নাসিম তার সংবাদ সম্মেলন শেষ করেন।

কে এই কামরুল হাসান নাসিম?
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উন্নত ভাষা শৈলীর দৃষ্টান্তে অনেকের দৃষ্টিতে আসেন এই কামরুল হাসান নাসিম। জানা যায়, তিনি চুয়াডাঙ্গা ভি জে সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এস এস সি, রাজশাহী কলেজ হতে এইচ এস সি এবং ঢাকা কলেজ থেকে সাহিত্যের উপর উচ্চতর ডিগ্রি নিয়েছিলেন। এরপরেই বিএনপির রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত হন। কিন্তু ছেলেবেলা হতেই বাংলা সাহিত্যের উপর বিশেষ দখলের জন্য নাসিমকে বিশিষ্ট লেখক আখতারুজ্জামান ইলিয়াস- জীবন কে লেখালেখির মধ্যে থাকতে অনুরোধ করেছিলেন। কিন্তু এক সময়ের ডানপিঠে ছেলে নাসিম হয়ে যান রাজনীতিক। বিএনপির প্রচলিত রাজনীতির সাথে জড়িয়ে পড়েন।

২০০২ সাল থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত কেন্দ্রীয় কৃষক দলের সদস্য ছিলেন এবং তিনি বহিষ্কৃতও না। ছিলেন জাতীয়তাবাদী ব্যবসায়ী ফোরামের সদস্য সচিব। ছিলেন ঢাকা মহানগরী কৃষক দলের সদস্য। পল্লবী থানা বিএনপির সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন।কিন্তু নিজ এলাকা যশোরের চৌগাছার কৃষক দলের সভাপতি হওয়ার দরুন নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নেয়ার জন্য নিজেকে তৈরি করেন। সে সময়েও দলের মধ্যে অনেক কোন্দলে তার উপর আক্রমন করা হতো। কিন্তু হঠাত করেই বদলে যান কামরুল হাসান নাসিম। নির্বাচনে অংশ না নিয়ে তিনি রাজনীতি থেকে গুটিয়ে নেন। সাংবাদিকতায় ফেরেন। টক শো সঞ্চালক, এরপর গড়বো বাংলাদেশের স্থপতি হিসাবে এক পর্যায়ে শিক্ষাবিদ প্রফেসর ড শাহেদাকে সামনে রেখে সামাজিক সংগঠনটির যাত্রা শুরু করেন। যেখানে প্রফেসর ড শাহেদাকে তিনি “মাম” (মা) বলে সম্বোধন করেন।

এরপরে সামাজিক আন্দোলনে থেকে নিজেকে পুরোদস্তুর সাংবাদিকতাকে কাছে টানেন। দৈনিক আমাদের অর্থনীতির স্পেশাল এডিটর হিসাবে যোগ দেন। পরবর্তীতে দেশের একমাত্র রাজনৈতিক অনলাইন সংবাদপত্র জননেতাডটনেট এর এডিটর ইন চিফ হিসাবে যোগ দেন। আরো পরে তিনি দেশের পথিকৃৎ ক্রীড়া ম্যাগাজিন ক্রীড়ালোকের প্রধান সম্পাদক হিসাবে এখন দায়িত্ব পালন করছেন। ব্যক্তি জীবনে এক কন্যা সন্তানের জনক রাজনৈতিক ও সাহিত্য সংস্কৃতিতে ভুমিকা রাখতে যেয়ে নিজে সামাজিক ক্রমবিকাশের মতবাদ ঘিরে গবেষণায় রয়েছেন। ইতোমধ্যে তার লেখা ‘নেতৃত্ব’ বইটি দেশ ও বিদেশে সমাদৃত হচ্ছে।
সমসাময়িক দলীয় বিপ্লব ঘিরে তিনি রাজনৈতিক- সাংস্কৃতিক রুগ্ন ধারা ভাঙ্গার জন্য নিজের লেখা ৯টি কবিতা আবৃত্তি করেছেন। বাজারে এসেছে- ‘এসো কান্না করি’ শীর্ষক কবিতার সিডি। কবিতাগুলোতে তিনি বাংলা সাহিত্যের প্রচলিত ধারায় গুনগত পরিবর্তন এনেছেন।

বিএনপির পুনর্গঠনের উদ্যোক্তা ও মুখপাত্র কামরুল হাসান নাসিমের সাথে কথা বলে জানা গেছে, তার লড়াই কিংবা দলিয় বিপ্লব হবে অহিংস ও আদর্শিক বুদ্ধিভিত্তিক লড়াই। এমনকি জিয়ার আদর্শ বাস্তবায়নের জন্য সমসাময়িক বিএনপির রাজনীতির মধ্যকার ভুল-ত্রুটি গুলো সংশোধনে অত্যন্ত জরুরী বলেও উল্লেখ করেন বিএনপির পুনর্গঠনের উদ্যোক্তা কামরুল হাসান নাসিম। সমসাময়িক রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে বিএনপি নেতাকর্মী কিংবা দলের শীর্ষ পর্যায় নাসিমের এই উদ্যোগকে শ্রদ্ধা জানিয়ে জিয়ার
আদর্শে বিএনপিকে পুনর্গঠন করলে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে পাল্লা দিতে পারবে বিএনপি, এ মন্তব্য করছেন বিশ্লেষক কিংবা রাজনৈতিক গবেষকরা। ইতোমধ্যে সূত্রমতে নাসিম ঠেকাও অবস্থায় বেগম জিয়ার নেতৃত্বাধীন বিএনপি। কিন্তু অতি মানবিক চরিত্র ধারন করা কামরুল হাসান নাসিম বলছেন, “আমি আগামী ১০০ বছরের বাংলাদেশ নিয়ে কাজ করছি। আর লেখনি শক্তির মাধ্যমে বাঁচতে চাই ৭০০ বছরের মতো। কাজেই বিএনপি কে সেরা একটা দল করা এবং এই দলের মাধ্যমে দেশকে ৭ বছরের মধ্যে ধনী রাষ্ট্র করা আমার লক্ষ্য। কিন্তু শুধুমাত্র দলীয় পুনর্গঠন নয়, হাসিনা সরকারের চেয়ে ভালকিছু করার প্রতিশ্রুতি জনগন কে বিএনপির পক্ষ থেকে দিতে হবে। মনে রাখা দরকার, মানুষ আজ আমাদের ভোটে জেতালেও আমাদের কাজ যদি ভাল না হয় তবে তারা তাদের সিদ্ধান্ত পরে বদলাতে পারে- এমন সুযোগ আমরা দিতে চাই না। অর্থাৎ দেশের মানুষের জন্য আমাদের রাজনীতি করতে হবে।”

গেল ১ বছর আগে বিএনপি পুনর্গঠনের নেতা কামরুল হাসান নাসিম যা দল এবং দেশ নিয়ে বলেছিলেন…

ভিডিও লিঙ্ক দেয়া হল

https://www.facebook.com/kamrul.nasim.9/videos/801911419873918/
নিচের দেয়া ফুটেজে ব্যবসায়ী ফোরামের উপদেষ্টা সাবেক মন্ত্রী রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, মিরপুরের সাবেক সংসদ সদস্য এস এ খালেক, তাঁর পুত্র এস ও ফারুক( সে সভাপতি- কামরুল হাসান নাসিম সাধারণ সম্পাদক), জাতীয়তাবাদী কৃষক দলের সেই সময়ের কেন্দ্রীয় আইন বিষয়ক সম্পাদক কাম্রুজ্জামান কামরুল হাসান নাসিমের সঙ্গী হতো নিজ এলাকাতে গেলেও, আজকের যশোর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাবেরুল হক সাবু, আমার থানা চৌগাছার সেই সময়ের সভাপতি আব্দুস সালাম, ছাত্রদলের সভাপতি মাসুদ পারভেজ, সাধারণ সম্পাদক মোশ্তাক আহমেদ, যশোর জেলা বিএনপির বতমান নেতা ইঞ্জি টি এস আইয়ুব( যশোর-৪) মকবুল আহমে্‌দ, লুতফুল বারী মুকুল(বগুড়া-১) কে দেখা যাচ্ছে ও সর্বোপরি সলুয়া বাজার,পাশাপোল, চৌগাছা বাজারের সেই হত দরিদ্র মানুষেরা।
এও বলে রাখা দরকার- ৪ দলীয় ঐক্য জোটের মেয়াদে কামরুল হাসান নাসিমের এক বিশেষ ঘোষণায় বৃহত্তর মিরপুরকে হরতাল মুক্ত রাখতে পেরেছিলেন। এখানে পল্লবী থানা বিএনপি থেকে র‍্যালি, মিছিল সব তার সাংগঠনিক তৎপরতায় হতো। তার সহকর্মী ঐ মিউজিক ভিডিওটা ইউটিউবে আপলোড করেছে।

সূএ: জননেতা

নিচে সেই ইউটিউব ভিডিও লিঙ্ক দেয়া হল :

 

 

111111111111111111111

»মানসিকভাবে প্রস্তুত তারেক রহমান তবে . . .

»ছেলের কবরের পাশে কাঁদলেন খালেদা জিয়া

» প্রধান বিচারপতির বক্তব্য নিয়ে যা লিখলেন সাঈদীপুত্র

» টক সােতে ‘খালেদা জিয়াকে নিয়ে একি বললেন’ কামরুল হাসান নাসিম (ভিডিও)

»ছাত্রলীগ নেতা ও নেত্রী আপত্তিকর অবস্থায় আটক

»বিএনপির কার্যালয় দখল করতে যাওয়া, কে এই কামরুল হাসান নাসিম?

»‘আসল বিএনপি’র গাড়ি ভেঙে জ্বালিয়ে দিল ছাত্রদল(দেখুন ছবিতে..)

»আজও নয়াপল্টন কার্যালয়ে যেতে পারল না ‘আসল বিএনপি’! (ভিডিও)

»বিএনপির নয়া পরিকল্পনা

»বিএনপিতে ভাঙ্গন ধরা এত সহজ নয়!

⇑…………………………………………………………………………………………………….⇑