সোমবার, ১৮ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

আমি দাঁড়িয়েছি বর্ণবৈষম্যের শিকার সবার পক্ষে- শিল্পা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ২০, ২০১৯
news-image

বিনোদন ডেস্ক :

ঢেঙ্গা-পটকা কালো মেয়েটা ফ্যাশন শোর র‍্যাম্পে উঠেছিলেন মজাচ্ছলে। তিনি কারও নজর কাড়বেন, সেটা তখন কল্পনাতেও আসেনি। কিন্তু একজন আলোকচিত্রী এগিয়ে এসেছিলেন তাঁর ছবি তোলার জন্য। এটা ছিল তাঁর জীবনের প্রথম বিস্ময়। নিজের খোলস ছেড়ে বের হওয়ার সেটা একটা সুযোগও ছিল বটে। সেই সুযোগেই মডেলিংয়ের জগতে আসতে পেরেছিলেন শিল্পা।

বলিউডের প্রায় নিষ্প্রভ তারকা শিল্পা শেঠির ক্যারিয়ারের শুরুর দিকের ঘটনা এটা। স্নাতকের পর বাবার হাত ধরে কাজে নামেন তিনি। চেয়েছিলেন ব্যতিক্রম, বড় আর ভালো কিছু করতে। সেটা তিনি পেরেছিলেন। মডেলিং ক্যারিয়ার থেকে দ্রুত সুযোগ পেয়েছিলেন বলিউডে। শাহরুখ খানের সঙ্গে ‘বাজিগর’, অক্ষয় কুমারের সঙ্গে ‘জানোয়ার’, অনিল কাপুরের সঙ্গে ‘রিস্তে’সহ বলিউডের প্রায় সব নায়কের সঙ্গে অনেক ছবিতে অভিনয় করেছেন এই অভিনেত্রী। তারপর আর পিছে ফিরে তাকাতে হয়নি। একের পর এক কাজ করে গেছেন; যদিও খুব সহজে সেটা সম্ভব হয়নি।

সম্প্রতি সেই দিনগুলোর স্মৃতিচারণা করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে লিখেছেন এই বলিউড তারকা। তিনি লিখেছেন, ‘মাত্র ১৭ বছর বয়সে এই অঙ্গনে কাজ করতে এসেছিলাম। দুনিয়ার কিছুই দেখিনি, জীবন কী সেটাও জানতাম না তখন। কিন্তু কীভাবে যেন সাফল্য পেয়েছি, যেটার জন্য প্রস্তুত ছিলাম না। হিন্দিতে ঠিকমতো কথা বলতে পারতাম না, ক্যামেরার সামনে দাঁড়াতে পা কাঁপত। কয়েকটা হিট ছবির পরও আমি সাধ্যমতো ভালো কাজ করার চেষ্টা করেছি। কিন্তু কীভাবে যেন আমাকে পেছন টেনে ধরছিল। ওই সময়টা উদ্‌যাপন বা পরের ঘটনাগুলোকে অবজ্ঞা করা খুব কঠিন হয়ে পড়েছিল। মনে পড়ে, কয়েকজন প্রযোজক কোনো কারণ ছাড়াই তাঁদের ছবি থেকে আমাকে ছুড়ে ফেলেছিলেন। তখন সবকিছু কেমন আমার বিরুদ্ধে চলে যাচ্ছিল।

নতুন কিছু একটা হবে ভেবে ব্রিটিশ রিয়্যালিটি শো ‘বিগ ব্রাদার’-এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছিলেন তিনি। কিন্তু সেটাও হলো না। তিনি বলেন, ‘এটা একটা দারুণ সুযোগ ছিল আমার জন্য। কিন্তু সেটাও বন্ধ হয়ে গেল। লোকে প্রকাশ্যে উপহাস করতে শুরু করল। ভারতীয় হিসেবে একরকম বৈষম্যের শিকার হলাম। কিন্তু আমি থেমে যাইনি। এত দূর আসার জন্য আমাকে যথেষ্ট কাঠখড় পোড়াতে হয়েছে। যখন জয়ী হয়েছি, লোকে বলেছে “তোমাকে নিয়ে আমরা গর্বিত।” আমি কেবল নিজের জন্য শক্ত ছিলাম তা নয়; আমি দাঁড়িয়েছি বর্ণবৈষম্যের শিকার সবার পক্ষে।

যদিও খুব খারাপ একটা সময় পার করতে হয়েছে, তবু জীবনের কোনো অংশ থেকে শিল্পা সেসব বাদ দিতে চাননি। তিনি বলেন, ‘আজ আমি একজন স্বনির্ভর নারী, গর্বিত অভিনয়শিল্পী, একজন স্ত্রী এবং একজন মা। এ পর্যন্ত আসার অন্য কোনো উপায় আমার ছিল না।

আর পড়তে পারেন