মঙ্গলবার, ১৯শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং

আওয়ার লেডি অব ফাতিমা চার্চ, খ্রিস্টধর্মাবলম্বীদের ঐতিহ্যবাহী উপাসনালয়

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ২৩, ২০১৯
news-image

 

মাছুম কামাল :

আওয়ার লেডি অব ফাতিমা চার্চ। এটি মূলত একটি ক্যাথলিক গীর্জা। এটি কুমিল্লার একটি প্রাচীণ এবং ঐতিহ্যবাহী খ্রিষ্টান প্রার্থনালয়। কুমিল্লা মহানগরীর সার্কিট হাউস সংলগ্ন এলাকায় অবস্থিত এই চার্চের অভ্যন্তরে প্রবেশ করা মাত্রই গীর্জার নির্মল নিস্তব্ধতা আপনার মনে প্রশান্তির পরশ এনে দেবে।

এর প্রতিষ্ঠা কিংবা নির্মাণ সময় নিয়ে মতবিরোধ থাকলেও এটি যে একটি প্রাচীণ উপাসনালয়, সে বিষয়ে কোনো সন্দেহই নেই। মূলত, রোমান ক্যাথলিকরা এই গীর্জাটি প্রতিষ্ঠা করেন। ফ্রান্সের ডেলোনি ফ্যামিলিই এর প্রতিষ্ঠাতা।

পরবর্তীতে ফ্রান্স থেকে সেবার উদ্দেশ্যে আসা লুর্থ সম্প্রদায়ের ফাতিমা নামক এক মহীয়সী নারীর নামে এই চার্চের নামকরণ করা হয়, ‘আওয়ার লেডি অব ফাতিমা চার্চ। এই চার্চটি মূলত ভ্যাটিকান সিটির পোপদের অনুসারী একটি চার্চ। অর্থাৎ, বর্তমানে ক্যাথলিক খ্রিষ্টানদের প্রধান পোপ ফ্রান্সিসের অনুসারী এই চার্চের ধর্মযাজকগণ। ১৯৬১ সালে এমেরিকান বংশোদ্ভূত ফাদার টেরেন্স ড্যানিয়েল কেনার্ক সিএসসি এই চার্চটির আধুনিকায়ন করেন। ১৯৬১ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত মোট ৪০ বছর তিনি এই চার্চটির দায়িত্ব পালন করেন।

অপর মতে, প্রয়াত সিস্টার মেরী লিও ক্যাভেল এর উদ্যোগে ১৯৫০ খ্রীঃ কুমিল্লা ক্যাথলিক মিশনের কাজ শুরু হয়। ক্যাথলিক মিশনটি ১৯৫১ সালে অর্থের বিনিময়ে লিক্যান মিশন থেকে ক্রয় করা হয়। তখন এই চার্চের নাম করণ হয় “আওয়ার লেডী অফ ফাতিমা ক্যাথলিক চার্চ”। তখন প্রথম ফাদার ছিলেন “ফাদার ফ্রান্সিস উইস সি, এস, সি। পরে ১৯৬১ সালে ফাদার ডানিয়েল টেরেন্স ক্যানার্ক সি, এস, সি চার্চের দায়িত্ব গ্রহন করেন।

সাধারণত খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের গীর্জাগুলি দুই ধরণের হয় ক্যাথলিক ও ব্যাপ্টিস্ট। আওয়ার লেডি অব ফাতিমা একটি ক্যাথলিক চার্চ। প্রার্থনার নিয়মানুযায়ী চার্চগুলি বিভিন্ন ধর্ম প্রদেশের অন্তর্ভুক্ত হয়ে থাকে। এই চার্চটি ঢাকা ধর্ম প্রদেশের অন্তর্ভুক্ত। এখানকারর নিয়মিত প্রার্থনার নাম মিশা। সাধারণত শনিবার বিকেলে ও রবিবার সকালে এখানে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রার্থনা অনুষ্ঠিত হয়। তখন, স্বেচ্ছায় দানের মাধ্যমে তহবিল গঠন করা হয়। গঠিত তবে তহবিলের মাধ্যমে এর বিভিন্ন ব্যয়ভার নির্বাহ করা হয়। তবে, যে কেউ চাইলে যখন ইচ্ছে এখানে প্রার্থনা করতে পারেন। সাধারণত, লোকসমাগম খুব বেশী না হলেও মেরি ক্রিসমাসে, ইস্টার সানডের মতো ধর্মীয় উৎসবগুলোতে ভীড় বেশী হয়। তবে, অন্যান্য ধর্মের মতোই খ্রিস্টধর্মেও রয়েছে গোত্রভিত্তিক ধর্মপ্রচারের ভিন্নতা, রয়েছে বিভিন্ন সামাজিক ও ধর্মীয় সীমাবদ্ধতাও। সাধারণত চার্চের ফাদার কিংবা সিস্টারদের বিয়ে বিষয়ে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।

আওয়ার লেডি অব ফাতিমা চার্চের বর্তমান প্রধান বা ফাদারের নাম হলো তপন ব্লেস রোজারিও। গত দুই বছর ধরে তিনি এখানে দায়িত্ব পালন করছেন। কথা হলো তার সঙ্গে। তিনি জানালেন বর্তমানে এই ধর্ম অঞ্চলে (কুমিল্লা) নতুন করে খ্রিষ্ট ধর্মগ্রহণকারীর সংখ্যা ক্রমশ কমছে। জানালেন বিভিন্ন সীমাবদ্ধতার কথাও। তিনি জানালেন, নিরাপত্তা, প্রচারসহ বিভিন্ন ধর্মীয় সীমাবদ্ধতাই এর মূল কারণ। তবে এসব সত্ত্বেও এই প্রার্থনালয়ে উপস্থিতির পরিমাণ সন্তোষজনক। এক ফাঁকে বললেন, এই উপমহাদেশে খ্রিষ্ট ধর্মের প্রচারণায় সবচে’ বেশি ভূমিকা রেখেছেন গোয়ানিজ, পর্তুগিজরা। তবে, আমেরিকানদের অবদান আছে বলে জানান তিনি।

খ্রিস্টানরা সাধারণত ‘যীশুতে প্রণাম’ বলে কোনো আলাপ শুরু করেন। এছাড়াও অন্যান্য ধর্মের মতোই খ্রিষ্ট ধর্মেরও বিভিন্ন নিজস্ব নিয়মকানুন এবং বিধি-নিষেধ রয়েছে।

কুমিল্লা ক্যাথলিক চার্চের আওতাধীন ৪৭ টি পরিবারের ২৭২ জন সদস্য কুমিল্লা শহরে বসবাস করেন। এই চার্চের পরিচালিত একটি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় ও প্রাইমারী বালক বিদ্যালয় রয়েছে। ক্রেডিট ইউনিয়ন বা সমবায় ঋণদান সমিতি রয়েছে এবং একটি ক্যাথলিক কবর স্থান রয়েছে। আওয়ার লেডি অব ফাতিমা চার্চটি তার নিজস্বতায় এবং শান্তিপূর্ণ আবহের কারণে হয়ে ওঠেছে অনন্য।

আর পড়তে পারেন