শনিবার, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

অস্তিত্ব সংকটে কুমিল্লা বিসিক

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ২৭, ২০১৯
news-image

 

অনলাইন ডেস্কঃ
চরম অস্তিত্ব সংকটে ভুগছে কুমিল্লার বিসিক এলাকা। নিয়ম-নীতি ভেঙে এ শিল্পনগরীর বেশ কিছু প্লটে বসতবাড়ি গড়ে তোলা হয়েছে। এসব বাসাবাড়িতে কারখানার মালিকরা যেমন পরিবার নিয়ে থাকছেন, তেমনই বাড়তি আয়ের জন্য ভাড়াও দিচ্ছেন।

অন্যদিকে জলাবদ্ধতাসহ নানা সমস্যায় ভুগছেন বিসিকের কারখানার মালিকরা। ২০১৭ সালের শেষ দিকে কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন বিসিকের কিছু সড়কের উন্নয়ন কাজ করলেও এখনও সংস্কারের বাকি রয়েছে অধিকাংশ সড়ক। ওই সড়কগুলো সামান্য বৃষ্টিতেই পানির নিচে তলিয়ে যাচ্ছে। নেই পানি নিষ্কাশনের উন্নত কোনো ব্যবস্থা। আশ-পাশের এলাকার ময়লা পানি এসে বিসিকে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি করছে।

একটি আটা ফ্যাক্টরির মালিক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, কুমিল্লা বিসিক আজ অস্তিত্ব সংকটে। কারণ, যে ভাবে আবাসিক এলাকা গড়ে উঠেছে এখনই যদি শক্ত হাতে তা বন্ধ করা না হয় তাহলে ভবিষ্যতে এটি পুরো আবাসিক এলাকা হিসেবে গড়ে উঠবে।

তিনি এ জন্য বিসিকের এক শ্রেণির কর্মকর্তা কর্মচারীদের উদাসীনতা বা ক্ষেত্র বিশেষ সুবিধা গ্রহণ করাকে দায়ী করেন।

১৯৬১ সালে নগরীর আশোকতলায় ৫৪ দশমিক ৩৫ একর জমিতে বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্প কর্পোরেশন (বিসিক) শিল্পনগরী প্রতিষ্ঠা করা হয়। কুমিল্লায় শিল্পের প্রসার ও বেকার সমস্যা দূরীকরণে যাত্র শুরু করে বিসিক। শিল্প কারখানার জন্য ১৪২টি শিল্প ইউনিটের বিপরীতে ১৪৯টি প্লট বরাদ্দ দেয়া হয়। বর্তমানে ১৩৫টি ইউনিট চালু আছে। একটি বাস্তবায়নাধীন, ছয়টি বন্ধ হওয়ার পথে।

কারখানার জায়গায় বাড়ি তৈরি ও বাসা ভাড়ার বিষয়ে এক বাড়ির মালিক জানান, খালি বাসা ফেলে রেখে লাভ কী? ভাড়া দিলে কিছু আয় হবে। কারখানায় পণ্য উৎপাদন করে আগের মতো লাভ হয় না। তাই বেশির ভাগ সময় কারখানা বন্ধ রাখছেন। ভাবছেন অন্য কিছু করার জন্য।

প্লটজুড়ে তৈরি করা বাড়িতে অনেকগুলো রুম আছে। এর একপাশে তারা থাকছেন। অন্যপাশের ঘরগুলো ভাড়া দিয়ে দিবেন।

অভিযোগ রয়েছে, কুমিল্লা বিসিক এলাকায় শিল্প-কারখানা স্থাপনের নামে সহজ শর্তে প্লট নিয়ে অনেকেই সেখানে বসবাসের জন্য বাড়ি নির্মাণ করেন। অনেকে আবার ছাত্রাবাস বা সাময়িক স্থাপনা নির্মাণ করে অন্য কাজে ব্যবহার করছেন। নীতিমালা লঙ্ঘন করে শিল্প প্লটের অবৈধ ব্যবহারকারীদের কর্তৃপক্ষ এর আগে একাধিকবার চিঠি দিয়ে সতর্ক করলেও কোনো কাজ হয়নি। এরপর গত জুলাই মাসের প্রথম দিকে বিসিক কর্তৃপক্ষ শেষবারের মতো চিঠি দিয়েছেন ওই প্লট মালিকদের।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, বিসিক শিল্প এলাকায় গড়ে উঠা অধিকাংশ প্লটের চারদিকে বাউন্ডারি দিয়ে একটি সাইনবোর্ড লাগিয়ে ভেতরে বাড়ি নির্মাণ করে মালিক অথবা ভাড়াটে পরিবার বসবাস করছে। অনেক প্লটে বাইরে কারখানার সাইনবোর্ড থাকলেও ভেতরে গড়ে তোলা হয়েছে মেস। সেখানে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্র অথবা কর্মজীবী লোকজন বসবাস করছেন। আবার কেউ প্লটের প্রথম এবং দ্বিতীয় তলায় কারখানায় ব্যবহার করে বাকিগুলো ভাড়া ও চাকরিজীবী-শ্রমজীবী মেস এবং ওষুধ কোম্পানিরসহ বিভিন্ন কোম্পানির পণ্যের গোডাউন হিসেবে ভাড়া দিচ্ছেন।

রাকিব নামে এক চাল উৎপাদক কারখানার মালিকের ছেলে বলেন, ধান থেকে আমাদের কারখানায় চাল উৎপাদন করা হয়। ওই কারখানায় আমার মা, বাবাসহ পরিবারের সবাই থাকি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিসিকের এক ফ্যাক্টরির মালিক বলেন, সিটি কর্পোরেশনের সঙ্গে বসেছি কিন্তু তারা বাজেট নেই বলে রাস্তা করে দিচেছ না। রাস্তা না করলে আমরা মালামাল আনা নেয়া করব কিভাবে। মাত্র কয়েকটি রাস্তা ছাড়া বিসিকের অধিকাংশ রাস্তাই ভাঙা।

শিল্প নগরী কর্মকর্তা হাসান আসিফ চৌধুরী জানান, সিটি কর্পোরেশন কয়েকটি সড়কের উন্নয়ন কাজ করলেও অধিকাংশ সড়কের এখনও বেহাল দশা। কারখানার মালিকরা উৎপাদিত মালামাল আনা-নেয়া করতে গিয়ে প্রতিদিন ভোগান্তিতে পড়ছেন। আমরা সিটি কর্পোরেশনের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগ করেছি, তারা জানায় বিসিক উন্নয়নে বর্তমানে কোনো বাজেট নেই।

শিল্প এলাকায় বরাদ্দ করা প্লটে আবাসিক কেন? জানতে চাইলে হাসান আসিফ চৌধুরী জানান, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প করার জন্য সহজ শর্তে প্লট বরাদ্দ নিয়ে অব্যবহারে বিসিকের নিয়ম ও শর্তে লঙ্ঘন করেছেন। কুমিল্লা বিসিক শিল্প এলাকায় বরাদ্দ করা প্লটের অপব্যবহার রোধে কর্তৃপক্ষ সম্প্রতি প্লট মালিকদের চূড়ান্ত চিঠি দিয়েছি। চিঠিতে শিল্প এলাকায় পরিবার নিয়ে বসবাস না করার নির্দেশও দেয়া হয়। শিল্প-কারখানার নামে প্লট নিয়ে অবৈধ কাজে ব্যবহার বন্ধে ১২টি প্রতিষ্ঠানের মালিককে বাসস্থান সরিয়ে নেয়ার জন্য বলা হয়েছে।

আর পড়তে পারেন