মঙ্গলবার, ১৮ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং

অশালীন মন্তব্য করায় ভিক্টোরিয়া কলেজ প্রভাষক ওয়ায়েছ আল কারনী মুন্সীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ১৬, ২০১৯
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
ফেসবুকে অশালীন মন্তব্য করায় ভিক্টোরিয়া কলেজ সমাজকর্ম বিভাগের প্রভাষক ওয়ায়েছ আল কারনী মুন্সীকে শোকজ করা হয়েছে। গত ৪ অক্টোবর শিক্ষক পরিষদের ফেসবুক গ্রুপে কলেজের পরিবেশ অস্থিতিশীল করার উদ্দেশ্যে স্ট্যাটাস দেন তিনি। তার স্ট্যাটাসে “হার্মাদের দেশ ” “বিড়ালের গলায় ঘন্টা বাঁধি “অযাচার” অধ্যক্ষ মহোদয়ের বাম হাত” এধরণের উস্কানিমূলক শব্দ ব্যবহার করেন।

এই স্ট্যাটাসের পর গত ৭ অক্টোবর শোকজ করেন ভিক্টোরিয়া কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর রুহুল আমিন ভূঁইয়া। শোকজে বলা হয়, স্ট্যাটাসে কলেজের অধ্যক্ষ ও কর্মাচারীদের নিয়ে তিনি অশালীন মন্তব্য করায় তাকে এর কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে ।

শোকজ করার পর, শোকজের কপি ফেসবুকে প্রচার করেন এবং এই শোকজ ওনার কিছুই করতে পারবেনা বলে দম্ভ প্রকাশ করেন।

এছাড়াও বিভিন্ন সময়ে তার বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ রয়েছে, কলেজ শিক্ষক -কর্মচারীদের সাথে অশোভন আচরণ, শিক্ষক পরিষদের কাজের দোহাই দিয়ে ক্লাস না নেওয়া। তার ৫ বছর চাকরী জীবনে দীর্ঘ ৩ বছর শিক্ষক পরিষদের কোষাধ্যক্ষ দায়িত্ব পালন করছেন ।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, তিনি শিক্ষক পরিষদের কাজের কথা বলে নিয়মিত ক্লাস নিতেন না, সমাজকর্ম বিভাগে মাঠকর্ম ও অনার্স – মাস্টার্সে মৌখিক পরীক্ষার সময় বিভাগের নামে অতিরিক্ত টাকা নেওয়ার ক্ষেত্রে ওনার সম্পৃক্ততা ছিল বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। যা কিছুদিন পূর্বে পত্রিকাতেও এসেছে।

অন্যদিকে, সাবেক অধ্যক্ষ রতন সাহার দুর্নীতির সাথেও তিনি (ওয়ায়েছ আল কারনী মুন্সী) জড়িত ছিলেন বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। এমনকি দুর্নীতির অভিযোগে রতন সাহাকে ওএসডি করার পর তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে রতন সাহার পক্ষে বিভিন্ন মন্তব্য করেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধের চেতনার নাম করে কলেজ থেকে বিভিন্ন আর্থিক সুবিধা নেওয়ার চেষ্টা করেছেন।

কিন্তু খোঁজ নিয়ে জানাযায়, তিনি জামায়াত পরিচালিত নরসিংদী জামেয়া কাসেমিয়া থেকে দাখিল (এসএসসি) ও আলিম (এইচএসসি) পাশ করেন। সে সময়ে তিনি ছাত্রশিবিরের সাথী ও মাদরাসা শাখার বাইতুল মাল সম্পাদক ছিলেন।

পরবর্তীতে ভিক্টোরিয়া কলেজে অনার্স – মাস্টার্স পড়াকালীন সময়ে তৎকালীন বিএনপি সরকারের আমলে ছাত্রদলের শেল্টারে নজরুল হলে ছিলেন।

সদ্য বিদায়ী কলেজ হিসাব রক্ষক আব্দুল হানান তার সম্পর্কে বলেন, তিনি (ওয়ায়েছ আল কারনী মুন্সী) জামাত ও জঙ্গিবাদের মদদ পুষ্ঠ। তার বিরুদ্ধে রতন স্যারের সময় সব খবরাখবর নেওয়া হয়েছে। সে বঙ্গবন্ধু বঙ্গবন্ধু করে মুখে ফেনা তুলে ফেলে। মূলতঃ কেউ সাহস করে তার বিরুদ্ধে বলে না।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত ওয়ায়েছ আলকারনী মুন্সী বলের, বিষয়টি একটি ইন্টার্নাল বিষয়। এ বিষয়টি মিটমাটের পথে। আমি যা লিখেছি তার পক্ষে অবশ্যই যুক্তি আছে। ১৩৮ জন শিক্ষকের একটা ফেসবুক গ্রুপ আছে, সেখানে আমি এ মন্তব্য করেছি। ৭১জন শিক্ষক আমার পক্ষে মত দিয়েছেন। ২৪ জন ভিন্নমত পোষণ করেছেন। এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি সরাসরি দেখা করার প্রস্তাব পেশ করেন। বিশেষ কোন ছাত্রজীবনে বিশেষ কোন রাজনৈতিক দলের সাথে সম্পর্ক বিষয়ে তিনি বলেন, আমি ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে অনার্স মাষ্টার্স করেছি। আমি দূরের কেউ না। খবর নিয়ে দেখুন।

এ বিষয়ে কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. রুহুল আমিন ভূইয়াকে গতকাল বিকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত একাধিকবার মোবাইলে চেষ্টা করে ও সংযোগ স্থাপন করা যায়নি। ক্ষুদে বার্তা প্রেরণ করলে তিনি তার উত্তর প্রদান করেননি।

উলে­খ্য যে, ওয়ায়েছ আল কারনী মুন্সী সমাজ কর্ম বিভাগের প্রভাষক হিসাবে কর্মরত আছেন। তিনি ৩২তম বিসিএস এর মাধ্যমে শিক্ষা ক্যাডারে যোগদান করেন।

আর পড়তে পারেন